পানি দূষণ থেকে বাঁচার জন্য কি করা উচিত?

ত্রিভুজ আলমঃ সম্প্রতি পরিচিতদের ভেতরে বেশ কয়েকটা ফ্যামিলির সবাইকে একসাথে অসুস্থ হতে দেখলাম। বিশেষ করে বাচ্চাদের বেশী দেখা যাচ্ছে। এর একটা অন্যতম কারণ পানি দূষণ।

অনেক মানুষের ধারণা পানি ফুটালেই বিশুদ্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এতে পানি আরো দূষিত হয়।

কিভাবে বলি:

পানির দুই রকম দুষন আছে। জীবানু/অনুজীব সংক্রান্ত এবং রাসায়নিক (বিভিন্ন বিষাক্ত রাসায়নিক উপাদান পানিতে মিশে থাকা)।

আমাদের দেশের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক ভালো। জীবানুর দূষন আমরা হয়তো ঠেকাতে পারবো কিন্তু রাসায়নিক দূষন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দিয়ে ঠেকানো যায় না। পানি ফুটালে যেটা হয়, ভালো পানিগুলো বাস্প হয়ে উড়ে গিয়ে এই দূষনের মাত্রা আরো বাড়তে থাকে। ব্যপারটা খুব সহজভাবে বোঝার জন্য একটা উদাহরণ দেই। আপনি যদি এক গ্লাস পানিতে এক চামচ লবন মিশিয়ে ফুটাতে থাকেন, তাহলে দেখবেন পানির লবনাক্ততা বাড়তে থাকবে। এখন ঐ লবনটা যদি বিষাক্ত হয়, তাহলে পানিটা আরো বেশী দুষিত হয়ে গেল না?

এধরণের দূষণ থেকে বাঁচার জন্য সাধারণ পানির ফিল্টার কোন কাজে আসে না। আপনাদেরকে ব্যবহার করতে হবে Reverse osmosis (RO) প্রযুক্তির পানি ফিউরিফিকেশন সিস্টেম। ঢাকায় এধরনের সিস্টেম একেবারে বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত।

 

লেখকঃ ব্লগার, কলামিস্ট, অনলাইন একটিভিস্ট

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী