সূর্যগ্রহণ ও চন্দ্রগ্রহণে গর্ভবতী নারীর করণীয়

তারাকি হাসান মেহেদীঃ

প্রশ্নঃ ভাইয়া, আমি সাত মাসের গর্ভবতী। দু’দিন আগে সূর্যগ্রহণের সময় আমি রান্নার জন্য মাছ কাটছিলাম। এটা দেখে আমার পাশের বাসার এক মুরব্বি বলে, এ সময় মাছ কাটলে জন্মের সময় বাচ্চার ঠোঁট কাঁটা হয়। এরপর থেকে আমি চিন্তিত। এখন খুব ভয় পাচ্ছি। এটা নিয়ে যদি কিছু বলতেন।

উত্তরঃ
সূর্যগ্রহণের সময় গর্ভবতী মা মাছ, মুরগী বা কিছু কাটলে, সন্তান কান বা ঠোঁট কাঁটা নিয়ে জন্মায়…  এসময় কিছু খেলে সেটা সন্তানের জন্য ক্ষতিকর হয়… কিংবা পেটে হাত বুলালে জন্মগত ত্রুটি নিয়ে সন্তান জন্মায়… এসময় তাদের সেলাই করা যাবে না, সোজা হয়ে শুয়ে থাকতে হবে… ইত্যাদি ইত্যাদি কথা প্রচলিত আছে।

কিন্তু এগুলো কথার কোন ধর্মীয় ভিত্তি তো নেই-ই, বৈজ্ঞানিক ভিত্তিও নেই।

শুধু আমাদের দেশেই নয়, সারা বিশ্বেই সূর্যগ্রহণ নিয়ে এমন কুসংস্কার ও ভ্রান্তবিশ্বাস চালু আছে…

ভারতে এখনো অনেকে সূর্যগ্রহণের দিন উপোস থাকে, কারণ তারা বিশ্বাস করে এদিন খাবারে বিষক্রিয়া হয়।

অতি প্রাচীনকাল থেকে মানুষ সূর্যগ্রহণকে বিশেষভাবে দেখে আসছে।

প্রাচীন গ্রিকরা বিশ্বাস করতো দেবতারা যখন রাগ করে, তখন সূর্য গ্রহণ হয়। আরবের জাহিলিয়াতের যুগের মানুষরা বিশ্বাস করতো মহান ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যুর দিনে সূর্যগ্রহণ হয়… তারা এদিন সূর্যকে পুজাও করতো।

রাসুল (সা) এর পুত্র ইব্রাহিম (রা) যেদিন মারা যান, সেদিন সূর্যগ্রহণ হয়েছিল। অনেকে ভেবেছিল তার মৃত্যুর কারণেই বুঝি সূর্যগ্রহণ হয়েছিল। কিন্তু রাসুল (সা) বলেন,

“কোন লোকের জন্ম বা মৃত্যুর কারণে কখনো সূর্যগ্রহণ বা চন্দ্রগ্রহণ হয় না। তবে তা আল্লাহর নিদর্শন সমূহের মধ্যে দুটি নিদর্শন”। (বুখারি)

সূর্য ও চন্দ্রগ্রহণের সময় রাসূল(সাঃ) সাহাবীদের নিয়ে জামাতে নামাজ পড়তেন। কান্নাকাটি করে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতেন। এই ইবাদতের উদ্দেশ্য এটাই যে, মানুষ যাতে স্বীকার করে নেয় চাঁদ ও সূর্য মহান আল্লাহর দুটি সৃষ্টি মাত্র, এদের নিজস্ব কোন ক্ষমতা নেই, যা কিছু ঘটে সব কিছু মহান আল্লাহর ইচ্ছেয় ঘটে.. এসব নিদর্শন এই জন্যই যাতে মানুষ সাবধান হয়ে যায়।

তাছাড়া, আমাদের এই পৃথিবীতে মহাকাশ থেকে লক্ষ লক্ষ বিভিন্ন পাথর, উল্কাপিন্ড প্রতিনিয়ত ধেয়ে আসে… কিন্তু পৃথিবীর কাছে আসার অনেক আগেই সেগুলো বায়মন্ডলেই ধংস হয়ে যায়… এগুলোর কিছু কিছু এমন বড় যে, তা যদি পৃথিবীর উপর এসে পড়ে, মুহূর্তেই আমরা সকলে ধ্বংস হয়ে যাব।

বিজ্ঞানীরা বের করেছেন, সূর্য ও চন্দ্রগ্রহণের সময় তাদের পৃথিবীতে আঘাত করার সম্ভবনা অন্য কোন সময়ের চেয়ে বেশি। এই জিনিসটা আজ আমরা জানলেও চোদ্দশ বছর আগে রাসুল (সা) ঠিকই জানতেন। তাইতো তিনি এদিন আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে ক্ষমা প্রার্থনা করতেন।

সূর্যগ্রহণের সময় সূর্য হতে নিঃসৃত ক্ষতিকর আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি (এটা সব সময়ই থাকে) এর সাথে অতিরিক্ত উজ্জ্বল আলো থাকে। সাধারণত চোখের পিউপিল (চোখের তারা) আলোতে কন্সট্রিক্ট (সংকুচিত বা ছোট) হয়ে যায়, আবার অন্ধকারে প্রসারিত (বড়) হয় দেখার সুবিধার্থে। স্বাভাবিক সময়ে সুর্যের দিকে তাকালে পিউপিলের এই ছোট হয়ে যাওয়া অতিরিক্ত উজ্জ্বল আলো আমাদের চোখের ভেতর প্রবেশ করতে দেয় না। কিন্তু সুর্যগ্রহণের সময় আলো কমে যাওয়াতে চোখের তারা সাধারণ সুর্যআলোর সময়ের চেয়ে বড় হয়ে থাকে। সুর্যগ্রহণের সময় আপাত দৃষ্টিতে সুর্যের আলো কমলেও তার ক্ষতিকর রশ্মি অদৃশ্যভাবে ঠিকই থাকে। আর এই সময় চোখের তারা বড় থাকাতে এই অতিরিক্ত উজ্জ্বল আলো বেশি পরিমাণে চোখের পেছনে অবস্থিত রেটিনাতে গিয়ে আঘাত হানে। দৃষ্টিশক্তির জন্য দরকারি রড ও কোনগুলোকে নষ্ট করে দেয় (Solar retinopathy)… এমনকি অন্ধ পর্যন্ত বানিয়ে দেয়, যাকে Eclipse blindness বলে।

আমেরিকার নাসা বিজ্ঞানীদের মতে সূর্যগ্রহণের সময় এর দিকে সরাসরি কখনোই তাকানো যাবে না। এমনকি রঙিন চশমা কিংবা এক্স-রে ফিল্মের ভেতর দিয়েও তাকানো যাবে না… এগুলোও চোখকে সুরক্ষা দেয় না। আর যদি দেখতেই হয় তা হলে বিশেষভাবে তৈরি প্রজেক্টর, সোলার ফিল্টার কিংবা এক্লিপস চশমা দিয়ে দেখতে হবে। সূর্যগ্রহণের সময় অদৃশ্য অতিরিক্ত উজ্জ্বল আলোক রশ্মি শুধু চোখেরই ক্ষতি করে, দেহের অন্য অঙ্গের ক্ষতি করে না… তাছাড়া ক্ষতিকর রেডিয়েশন অন্য সব দিনের সুর্যের মতই প্রায় একই থাকে।

তাই সূর্যগ্রহণের সময় গর্ভের বাচ্চার ক্ষতির কোনই সম্ভাবনা নেই। এই বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন নেগেটিভ বৈজ্ঞানিক তথ্যও পাওয়া যায়নি। সূর্যগ্রহণে সাবধান না হলে বাচ্চা বিকলাঙ্গ হবে, এটি শুধু অন্ধবিশ্বাসই নয়, এর সাথে সূর্যের যে নিজের ক্ষমতা আছে, সেটিও বিশ্বাস করা… এমন ভুল বিশ্বাস ইসলাম ধর্মীয় বিশ্বাসের সাথে সাংঘর্ষিক, যা অবশ্যই বর্জন করতে হবে।

রেফারেন্সঃ
১. https://eclipse.gsfc.nasa.gov/SEhelp/safety.html
২. https://eclipse.gsfc.nasa.gov/SEhelp/safety2.html
৩. https://en.wikipedia.org/wiki/Photic_retinopathy
৪. https://www.timeanddate.com/eclipse/eclipse-tips-safety.html
৫. http://www.islamweb.net/emainpage/index.php…
৬. http://islamqa.org/hanafi/muftionline/98094

লেখকঃ চিকিৎসক ও কলামিস্ট

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী