সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে প্রেমিক-প্রেমিকারা কতো কিছুই না করে…!!!

রাশেদ আহমেদঃ

“সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে প্রেমিক-প্রেমিকারা কতো কিছুই না করে… কেউ কেউ তো সন্দেহ দূর করার জন্য একে অপরের আইডির ইউজার / পাসওয়ার্ডও আদানপ্রদান করে !! প্রথম প্রথম কিছুদিন হয়তো সব কিছু ঠিক ভাবেই চলে… তারা ঘনিষ্ঠ থেকে ঘনিষ্ঠতর হতে থাকে… আস্তে আস্তে হাজারো জমে থাকা গোপন কথা শেয়ার করা থেকে শুরু করে নিজেদের অন্তরঙ্গ বা গোপন পিক শেয়ার করতে থাকে !! একটা সময়ে প্রেমিক , প্রেমিকার অন্তরঙ্গ মুহুর্তের পিক দিয়ে বিভিন্ন ফাঁদে ফেলিয়ে “ব্লাকমেইল” করা শুরু করে দেয়… সম্পর্কের জোড়া মজবুত করার নামে মেয়েকে শারীরিক রিলেশনের জন্য চাপ দেয়া শুরু করে… মেয়ে যদি রাজি না হয় তখন-ই মেয়ের দেওয়া খারাপ পিক ফ্লাশ করার ভয় দেখায় !!

সেই মুহুর্তে মেয়ে বুঝে যায় যে , সে এতদিন যার সাথে প্রেমের সম্পর্কে আবদ্ধ ছিলো সে ততটা সুবিধার না… তখন সে সেখান থেকে ফিরে আসার চেষ্টা করে কিন্তু সে চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়… কেনোনা ছেলে এতো দিনে মেয়ের আইডি পাস চেঞ্জ করে নিজের করে নিয়েছে… অপরদিকে অশ্লীল পিক গুলোও ছেলে তার পিসির হার্ডডিক্সে জমা করে রেখেছে !! এদিকে বোকা মেয়ে , ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ঃ- “বন্ধুরা আমি তো কিছুই বুঝতেছিনা , আমার আইডিটা মনে হয় হ্যাক হয়েছে… আমার আইডি থেকে যদি কোনও খারাপ কথা ইনবক্সে বলা হয় বা অশ্লীল পিক আপলোড বা ইনবক্সে দেওয়া হয় তার জন্য আমি দায়ী না ।”

অপরদিকে লিষ্টে থাকা আত্মীয়-স্বজন মেয়ের স্ট্যাটাসে “কেমনে কি হলো ??” বলে কমেন্ট করতে থাকে শুনো মেয়ে , কেবলমাত্র ভি.আই.পি ফেসবুক আইডি দেখে সহজেই কোনও ছেলের প্রতি মুগ্ধ হয়ে নিজের সবটুকু তুলে দিও না !! কিছুদিন আগে একটা অভিযোগ শুনছিলাম , যদিও এরকম ঘটনা অনেকেই অহরহ শুনে থাকেন…

অভিযোগটা ছিলো ঠিক এই রকমঃ-
“ছেলের নাম তামিম , ঢাবির ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র… অপরদিকে মেয়েটি সদ্য এস এসসি পাশ করা কিশোরী… ফেসবুকে পরিচয়ের সুত্র ধরে প্রতারণার জালে আটকে তামিম তার বন্ধুকে নিয়ে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষন করে অল্প বয়সের এই মেয়েটিকে !!

মেয়ে , তুমি এতো বোকা কেনো ?? কেনো নিজেকে বিকিয়ে দাও ধূর্ত শিয়ালের মুখে ??

মেয়ে চোখ খুলে পড়ে নাওঃ-
“প্রোফাইল ইনফোতে লিখা ছেলেটি অক্সফোর্ড কিংবা ঢাবিতে বা বুয়েটে কিংবা ডিএমসিতে পড়ে… খুব ইন্টিলিজেন্ট… গুডি গুডি বয়… ব্যস ধুম করে প্রেমে পড়ে গেলে ?? মেয়ে , তোমাকে বুঝতে হবে , “সেরা প্রতিষ্ঠানে পড়া নয় , বরং নিজের অবস্থান থেকে সেরা কাজটা করে দেখানোই কৃতিত্ব” এই সোজা দুই লাইন কেনো বুঝোনা ?? …প্লিজ মেয়ে… সাবধান হও… প্লিজ !! কারো প্রফাইলে ডিএসএলরের চকচকে “পিকচার” আর “বাইক” দেখে মুগ্ধ হয়ে তার সাথে সম্পর্কে জড়িওনা… পিকচার এডিট করে ঝকঝকে করার সফটওয়ার প্লে ষ্টোরে প্রচুর পাওয়া যায়… তুমি বুঝতেই পারবেনা কিভাবে “কাউয়া” থেকে কয়েক সেকেন্ডের ভিতর “ধবধবে সাদা বকে” কনভার্ট হতে পারে !!

চ্যাট লিষ্টের অপরপ্রান্তে থাকা মানুষটাকে চেনা খুব-ই কঠিন… ফেসবুকে কেউ চাইলেই নিজের আসল পরিচয় লুকিয়ে কুকুর থেকে মানুষের ডাক ডাকতে পারে… ডাক পরিবর্তন করবারও প্রচুর সফটওয়ার আছে !! মেয়ে , জীবনটা তোমার… এই সুন্দর জীবন কয়েক সেকেন্ডের মুগ্ধতায় এলোমেলো করো না… প্রতিষ্ঠান দেখে মানুষ বিচার করো না… অনেক ভালো প্রতিষ্ঠানেও অনেক হিংস্র কুকুরের বসবাস !!

একটা ঘটনা মনে পরে গেলোঃ-
“ছেলেটার সাথে ফেসবুকে পরিচয় মেয়েটার… এরপর প্রেম এবং এরপর নিষিদ্ধ সম্পর্ক… একদিন সিনেমা হলে নিয়ে মেয়েটাকে ধর্ষণ করলো ছেলে আর তার বন্ধুরা মিলে । মেয়েটা অল্পের জন্য প্রান হারায়নি… বেঁচে যায় সে যাত্রায়… কিন্তু জীবনের ভয়ংকরতম অভিজ্ঞতার সূচনা হয়েছিলো এই virtual world থেকেই !! মেয়ে , তোমাকে মাথায় রাখতে হবে virtual প্রেম সব থেকে সহজলভ্য এবং বিপদজনক… সো , মেয়ে সাবধান !!”

 

লেখক রাশেদ আহমেদ

লেখকঃ  রিপোর্টার, এটিএন  বাংলা

 

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী