শূণ্য

শূণ্য
রওনক নূর

স্তব্ধ রা‌ত্রি, জানালার ফাক দি‌য়ে বাঁকা চাঁদ উ‌কি দি‌চ্ছে। জোছনা রা‌তে মৃদু অা‌লো ছড়া‌নো প্রকৃ‌তি মুগ্ধ কর‌ছে নয়নকে। মা‌ঝে মা‌ঝে উচ্ছৃঙ্খল কুকুরগু‌লো চিৎকার ক‌রে কাঁদ‌ছে। কি জা‌নি ও‌দের কি‌সের এত জ্বালা, কেন এত চিৎকার ক‌রে। ও‌দের চিৎকার খুব অসহ্য লা‌গে নয়‌নের। ঘুম না অাসার কষ্টটা চাঁদের অা‌লো‌তে স্নান ক‌রে দুর কর‌লেও অসহ্য লা‌গি‌য়ে দেয় কুকুরগু‌লো। হয়ত ও‌দের ম‌নেও অ‌নেক কষ্ট লু‌কি‌য়ে অা‌ছে। ক্ষুধা হয়ত ও‌দের‌কেও নয়‌নের মতই কষ্ট দেয়। ত‌বে ও‌দের অার নয়‌নের ম‌ধ্যে পার্থক্য হ‌লো ওর‌া কাঁদ‌তে পা‌রে, কিন্তু নয়‌নের কাঁদ‌তে ভা‌লো লা‌গেনা।

প্র‌তি‌দি‌নের মত এক‌ঘে‌য়ে সকাল নয়ন‌কে বিরক্ত ক‌রে। প্র‌তিটা সকাল পে‌টের জ্বালা মেটা‌নোর যু‌দ্ধের কথা ম‌নে ক‌রি‌য়ে দেয়। নয়ন শাহবাগ এলাকা‌র রমনা পা‌র্কে ফুল বি‌ক্রি ক‌রে। প্র‌তি‌দিন ফুল বি‌ক্রির টাকা দি‌য়ে নানী অার ওর খাবার জুটা‌তে হয়। নয়ন ওর নানীর সা‌থে থা‌কে। মাত্র ছয় বছর বয়স থে‌কে নয়‌নের নানীর সা‌থে সংসার, এখর ওর বয়স বা‌রো। ফুল বি‌ক্রির শুরুটা ছি‌লো নানীর হাত ধ‌রে। এখন নানী‌কে ছু‌টি দি‌য়ে একাই কাজ ক‌রে নয়ন।

নয়‌নে বয়স যখন পাঁচ তখন ওর বাবা ও‌দের‌কে ছে‌ড়ে অন্য কাউ‌কে নি‌য়ে সংসার বাঁ‌ধে। বছর খা‌নেক নয়ন মা‌য়ের কা‌ছে ছি‌লো। তারপর মা‌য়েরও নতুন সংসার হ‌লো। সেই থে‌কে নয়‌নের সংসার নানীর সা‌থে। মা তার নতুন সংসার নি‌য়ে ও‌দের ব‌স্তি‌তেই থা‌কে। মা‌ঝে মা‌ঝে খুব জ‌ড়ি‌য়ে ধর‌তে ইচ্ছা ক‌রে। কিন্তু মা য‌দি রাগ ক‌রে, এটা ভে‌বে নয়ন মা‌য়ের কা‌ছে যায়না কখনও।

রাস্তার কুকুরগু‌লো খাবা‌রের জন্য চিৎকার কর‌তে পা‌রে, এ‌দিক থে‌কে মানুষ খুব অসহায়। ক্ষুধার কথা কাউ‌কে বল‌তে চাই‌লে কেউ শুন‌তে চায়না। নয়ন অবশ্য কাউ‌কে নি‌জের দুর্বলতা শেয়ার কর‌তে চায়না, তবুও রাস্তার মানুষগু‌লো নয়ন‌কে রাস্তার কুকু‌রের মত ম‌নে ক‌রে।

নয়‌নের এই বা‌রো বছ‌রের বাচ্চা শরীরটা‌কে রাস্তার কুকুরগু‌লো ছি‌ড়ে খে‌য়ে‌ছে অ‌নেকবার। মানু‌ষের মা‌ঝে অাজকাল মানুষ নয় পশুই বে‌শি বাস ক‌রে। তাই মানুষ রু‌পি পশুগু‌লো নয়‌নের মত মে‌য়ে‌দের শরীর দি‌য়ে ক্ষুধা মিটাই। অবশ্য ফুল বি‌ক্রি ক‌রে যখন চা‌লের দামটা হয়না তখন নানীর খাবার অার চি‌কিৎসার জন্য মা‌ঝে মা‌ঝে ইচ্ছা ক‌রেই নি‌জে‌কে বি‌লি‌য়ে দেয় পশুগু‌লোর কা‌ছে।

নয়‌নের নানী খুব অসুস্থ। নি‌ভে যাওয়া মোমবা‌তির সুতার মত নয়‌নের জীবনটাও দি‌ন দিন নে‌তি‌য়ে যা‌চ্ছে। জীব‌নের অর্থ উপল‌ব্ধি করার অাগেই জীবন যু‌দ্ধে নি‌জে‌কে শেষ ক‌রে দি‌চ্ছে নয়ন। নানীর ঔষু‌ধের জোগান ‌দি‌তে প্র‌তি‌দিন রা‌তে বের হ‌তে হয় তা‌কে। জীবন যে‌নো থম‌কে যা‌চ্ছে তার। মা‌ঝে মা‌ঝে পে‌টের ক্ষুধা নি‌য়েই সারা‌টি রাত মানুষ না‌মের পশুগু‌লোর শিকার হ‌তে হয় তা‌কে।

পৃ‌থিবী‌তে সব কষ্টগু‌লো প্রায় একই, শুধু ক‌ষ্টের রংটা ভিন্ন। মানু‌ষের জীব‌নে ঘ‌টে যাওয়া নানা কষ্ট অ‌নেক সময় ভিন্নতর ম‌নে হ‌লেও সব কষ্টই সমান ভা‌বে যন্ত্রনা দেয়। নয়ন সারাটা রাত বাই‌রে কা‌টি‌য়ে প্র‌তি‌দিন সকা‌লে নতুন স্বপ্ন দেখার ইচ্ছা নি‌য়ে তার ব‌স্তির ছোট্ট ঘর‌টি‌তে অা‌সে। প্র‌তি‌দিন ভা‌বে অার কখনও রা‌তের পশু‌দের ক্ষুধা নিবার‌নের বস্তু হ‌বেনা। কিন্তু ঘ‌রে যে‌য়ে অসুস্থ নানীর অসহায় মুখ দে‌খে সব স্বপ্ন নিঃ‌শেষ হ‌য়ে যায়।

সন্ধ্যায় বের হবার সময় নানী‌কে অ‌নেকক্ষণ জ‌ড়ি‌য়ে ধ‌রে রা‌খে নয়ন। নানী কিছু ব‌লেনা, শুধু চোখ দি‌য়ে ম‌নের ম‌ধ্যে চে‌পে থাকা মেঘগু‌লো‌কে বৃ‌ষ্টি ক‌রে ঝরায়। নয়ন কিছু না ব‌লেই তার অ‌নি‌শ্চিত জীব‌নের দি‌কে ছু‌টে যায়, যেখা‌নে রাস্তার কুকুরগু‌লো প্র‌তি‌দিন তা‌কে ছি‌ড়ে খায়।

‌কিছু‌দিন হ‌লো একটা ছে‌লে নয়ন‌কে স্বপ্ন দেখা‌চ্ছে। য‌দিও একটা সংসা‌রের স্বপ্ন নয়ন সবসময় দে‌খে। কিন্তু নি‌জের স্বপ্ন পূরন কর‌তে হ‌লে নয়ন‌কে তার বৃদ্ধা অসহায় নানী‌কে ছাড়‌তে হ‌বে। কিন্তু নয়ন অসুস্থ নানী‌কে ফে‌লে নি‌জের কথা ভাব‌তে পা‌রেনা। বাবা মা যখন নয়ন‌কে অ‌নিশ্চয়তায় ছু‌ড়ে ফে‌লে নি‌জে‌দের পথ দে‌খে‌ছি‌লো , তখন নয়ন‌কে বু‌কের ম‌ধ্যে জ‌ড়ি‌য়ে নি‌য়ে‌ছে এই বৃদ্ধা। নয়ন নি‌জের মন‌কে বু‌ঝি‌য়ে‌ছে , সে তার বাবা মা‌য়ের মত বেঈমান নয়।

নয়‌নের শরীরটা বেশ খারাপ। কোন খাবার খে‌তে পা‌রেনা, খুব বে‌শি ব‌মি পায়। বুঝ‌তে পে‌রে‌ছে সে, তার শরী‌রে অার একটা শরীর বাসা বে‌ধে‌ছে। মা হওয়াটা একজন নারীর সব‌থে‌কে অানন্দের হ‌লেও নয়‌নের জন্য এটা খুব ক‌ষ্টের। বাবার প‌রিচয়হীন হ‌বে তার সন্তান। তার উপর অারও একটা খাওয়ার মুখ বাড়‌বে। নি‌জের খাবার যার জো‌টেনা সে কিভা‌বে নতুন মু‌খে খাবার দি‌বে।

নয়ন হে‌টে চ‌লে‌ছে অ‌নিশ্চয়তার দি‌কে। তার একলা প‌থে সঙ্গী হিসা‌বে কখনও পায়‌নি কাউ‌কে। চো‌খের অশ্রু দেখার কেউ নেই, তাই অশ্রু কাউ‌কে দেখা‌তে চায়না নয়ন। শুধু অবু‌জের মত নি‌জেকে অ‌নিশ্চয়তার ম‌ধ্যে ঠে‌লে দেয় প্র‌তি‌দিন।

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী