কিভাবে ক্ষমা চাইবেন?

তারিক হকঃ

আমি ক্ষমা চাইব? কী জন্য চাইব? আমার কী দোষ? এটা হলো প্রতিটি মানুষের প্রথম প্রতিক্রিয়া। ক্ষমা চাওয়া কিন্তু খুব সহজ নয়। আপনার কথায় হয়তো বা কেউ আঘাত পেয়েছে।

কিন্তু আপনি মনে করছেন, কিভাবে ক্ষমা চাইব? আপনার কালচার, সামাজিক অবস্থা আর বয়স সব মিলে আপনাকে ভাবিয়ে তুলেছে, কিভাবে ক্ষমা চাওয়া যায়?

মনোবিদরা গবেষণা করে কতকগুলো নিয়ম বের করেছেন। আপনি যদি সেগুলো খাটানোর চেষ্টা করেন, দেখবেন ক্ষমা চাওয়াটা অনেক সহজ হয়ে গেছে।

১. আন্তরিক হোন যদি মনস্থির করেন, কারও কাছে ক্ষমা চাইবেন। তবে নিঃস্বার্থ আবেগ দিয়ে বলুন, ‘স্যরি,আমি ক্ষমা চাইছি।’ শুধু স্যরি বললেই চলবে না, কারণটি বলুন।

আপনি হয়তো সহকর্মীর চুলের নতুন কাট দেখে ব্যঙ্গ করেছেন। সবার সামনে তাঁকে হাস্যকর করে তুলেছেন। মনে আঘাত দিয়েছেন। বলুন, ‘আমি সত্যিই দুঃখিত যে আমি তোমার চুলের কাট দেখে ঠাট্টা করেছিলাম।’

২. কখনও অজুহাত দেখাবেন না। আপনি যদি ক্ষমা চাওয়ার সময় অন্য একটি অজুহাত দেখান, এর চেয়ে বড় ভুল আর নেই।

আপনি হয়তো বলবেন, অফিসে আপনার বস আপনাকে অযথাই ধমকেছিলেন, আপনার বউ আপনার বাজার নিয়ে অসন্তষ্ট, বাচ্চা হোমওয়ার্ক করেনি এগুলো কোনো অজুহাত নয়।

নিজের ওপর শতভাগ দায়িত্ব নিন। বলুন, ‘আমার ভুল হয়েছে, আমি ক্ষমা চাইছি।’

৩. মনে মনে নিজেকে প্রস্তুত রাখুন, যাঁর কাছে ক্ষমা চাইছেন, তিনি হয়তো আপনাকে ক্ষমা করবেন না। তাঁকে সময় দিন। সাথে সাথে আশা করবেন না যে সব কিছু মিটে গেছে।

আপনি যদি এভাবে বলেন, ‘আমি জানি আপনার পক্ষে আমাকে ক্ষমা করা সম্ভব নয়। আমি বুঝতে পারছি আপনি কী অনুভব করছেন।

তবু আমি বলতে চাই, আমি সত্যিই ক্ষমা চাচ্ছি এবং আমি প্রতিজ্ঞা করছি, ভবিষ্যতে কোনো দিনও আমার কাছ থেকে এ ধরনের ব্যবহার পাবেন না।’

কী হতে পারে আপনি যদি ক্ষমা না চান?

আপনি আপনার বন্ধুবান্ধব, গ্রাহক, বন্ধু ও পরিবারকে হারাবেন। ক্যারিয়ার তৈরি করার যে সুযোগ ছিল, তা আপনি হারাবেন। এমনও হতে পারে, কেউ আপনার সাথে কাজ করতে চাইবে না।

আপনি হয়তো অফিসের বস, ভুল করেও ক্ষমা চাইছেন না। জানেন কী হবে? আপনার কর্মচারীরা হয়তো আপনাকে ভয় করবে, কিন্তু কোনো দিনও ভালোবাসবে না। অফিসে সব সময় একটি অশান্ত পরিস্থিতি বিরাজ করবে।

অনেকে ধারণা করেন, আমি যদি মাফ চাই, তাহলে তাকেও মাফ চাইতে হবে। এটা ভুল, এটা কোনো যুক্তি নয়। যখন আপনি ক্ষমা চাইবেন, দেখবেন আপনার আত্মবিশ্বাস বেড়ে গেছে। আপনি নিজের উপকার করছেন, অন্যের নয়।

মনে রাখবেন, ক্ষমা চাইলে আপনার অতীতের পরিবর্তন হবে না, আপনার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।

এ বিষয় শেষ করছি একটি জোক দিয়ে।

কোনো এক আফ্রিকান দেশে অবস্থানরত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত গিয়েছিলেন শিকারে। জঙ্গলের ক্যানিবালরা (নরখাদক) রাষ্ট্রদূতকে খেয়ে ফেলে। ভীষণ লজ্জার ব্যাপার। সাথে সাথে আফ্রিকান পার্লামেন্টে জরুরি অধিবেশন শুরু হলো।

সাংবাদিকরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন কী রেজুলেশন হবে। কয়েক ঘণ্টা পর প্রাইম মিনিস্টার বেরিয়ে এলেন।

বললেন, ‘আমরা সত্যিই দুঃখিত, এ জন্য আমরা ফ্রান্সের কাছে ক্ষমা চাইছি।
ক্ষতিপূরণ হিসেবে আমি প্রস্তাব দিচ্ছি, ফ্রান্সের মানুষ যদি চায়, তাহলে ওরা প্যারিসে আমাদের রাষ্ট্রদূতকে খেয়ে ফেলতে পারে।

লেখকঃ প্রবাসী লেখক, জার্মানি , ২২ / ১০ / ১৭

লেখক তারিক হক সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবু সাইদের সাথে

( লেখকের “বদলে যান এখনই” বইটি থেকে )

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী