‘ভালোবাসা’ – ‘ভালো বাসা’

নাসিমুন নাহারঃ জীবনে প্রথম প্রেম এসেছিল যখন রুবা মেডিকেল কলেজে ভর্তি হলো তখন। যেহেতু জীবনে এর আগে বই-পুস্তক ছাড়া কোন মানুষের প্রেম পড়া হয়নি; তাই স্বাভাবিক ভাবেই প্রচণ্ড আবেগ আর শুদ্ধ অনুভূতি নিয়ে আষ্টেপিষ্টে নিজের সমস্ত ভালোবাসা দিয়ে রুবা মানুষটির প্রেমে পড়ে গিয়েছিল। মানুষটিও কম ভালো কিন্তু বাসেনি। সম্পূর্ণ বিপরীত স্বভাবের দুজন মানুষ রীতিমতো হাবুডুবু খেতে খেতেই যেন ভালোবেসে ফেলল পরস্পরকে।

‘ভালোবাসা’ আর ‘ভালো বাসা’ তে যে যোজন যোজন দূরত্ব হয় এক ছাদের নিচে বসবাস করতে শুরু করে জেনে ফেলল রুবা আর তার মানুষটা। প্রেমের সময়ে অসহ্য মনে হলেও মেনে নেয়া সিগারেটের ধোঁয়া তাদের দাম্পত্য কলহের কারন হতে লাগল রোজ রোজ। সেই সাথে রান্না করতে না জানা রুবাকে অকর্মা মনে হতে লাগলো মানুষটির। অথচ এই মানুষটিই দিনের পর দিন রুবার হোস্টেলে বক্স ভরে খাবার দিয়ে আসত পরীক্ষার সময়গুলোতে।
তখন দূরে থেকেও কত আপন ছিল তারা। আর আজ এক ছাদের নিচে এসে অসহনীয় হয়ে উঠছে নিজেদের কাছে।
অদ্ভুত জীবন !!

অতঃপর ছোট ছোট সমস্যা থেকে একটু একটু করে ভুলে ভরা ভুল বোঝাবুঝির শুরু।
চিৎকার, চেঁচামেচি, হৈচৈ থেকে খাবার টেবিলে একসাথে না বসা থেকে শুরু করে কখন যে বিছানা আলাদা হয়ে গেল নিজেরাই যেন টের পেল না আর। এভাবে চলতে চলতে একদিন রুবা চলে এল বাবার বাড়ি।

মাসখানেক পর আবার সব ঠিকঠাক।

মাস ছয় পর আবার পুনরাবৃত্তি।
হৈচৈ, চিৎকার, নোংরা শব্দের প্রয়োগ থেকে হাতের, বেল্টের ব্যবহার………
এবার আর বাবার বাড়ি নয়। হাসপাতালে ভর্তি হতে হলো রুবাকে।

একই ঘটনা ঘটতে থাকল বছর পাঁচেক ধরে।

অতঃপর ‘ভালো বাসা’ তৈরি করতে ব্যর্থ হবার অপবাদ মাথায় নিয়ে ঘর ছাড়া হলো রুবা। ‘ভালো বাসা’ তৈরি করতে না পারলেও বেঁচে থাকতে চেয়েছিল রুবা। ততদিন ঘেন্না ধরে গেছে ভালোবাসা নামক অদৃশ্য অনুভূতিটার উপর।

সাত বছর পর আবার নতুন করে ভালোবাসা যেন উঁকিঝুঁকি দিল রুবার মানসপটে। মানুষ তো ! রক্ত মাংসের মানুষ কিভাবে অস্বীকার করবে মনের শরীরের ভাষাকে ?

কিন্তু এবার ‘ভালোবাসা’ নয় বরং ভাবনার জগত জুড়ে রয়েছে ‘ভালো বাসা’। সুস্থ, সুন্দর, ভদ্র, নিরাপদ পরিবেশের ,সামাজিক মর্যাদার, পারস্পরিক শ্রদ্ধা মিশ্রিত চারটা দেয়ালই শুধু চাই রুবার এখন। ভালোবাসা যেন গৌণ এবার!
কাবিননামায় সাইন করতে করতে ভাবছে রুবা— শুধু ‘ভালোবাসা’ দিয়ে আসলে ‘ভালো বাসা’, ঘর সংসার হয় না কিছুতেই।’ভালো বাসা’ তৈরি করতে হলে, ঘর সংসার চালাতে হলে শ্রদ্ধা, সম্মান এবং অবশ্যই অভিনয় দক্ষতা প্রয়োজন।

‘ভালোবাসা’ না থাকলেও দিব্যি টিকে যাবে সংসার, তৈরি হয়ে যাবে ভালোবাসাহীন ‘ভালো বাসা’………..

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী