যেভাবে বুঝবেন আপনি ভালো না খারাপ..

 রত্নম অর্জুনঃ 

যুগের সাথে সাথে নীতিবাক্য গুলোর যেন পরিবর্তন হয়ে যায়। মানুষ তার প্রয়োজন অনুসারেই নীতিবাক্য গুলো ভেঙ্গে দেয়, আবার নতুন করেই গড়ে নেয়। নিজের স্বার্থেই নিজের যুক্তি দিয়ে সেগুলোর ভাঙ্গা গড়ার কাজ সাধন করে । অন্যায়, অবিচার, মিথ্যাচার, হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি এসবের ভীড়ে ভালো বলতে জগতে যা ছিল তা ঢাকা পড়েছে যেন।সবাই যেন স্বার্থান্বেষী একেকটা চিতা বাঘ যে চিত্রা হরিণের জন্য ওত পেতে বসে আছে ।

তবে ভাল মানুষ যে পৃথিবী থেকে একেবারে হারিয়ে গেছে তা নয়; এখনও কিছু ভালো মানুষ আছে, যাদের কারণে পৃথিবীর সভ্যতা টিকে আছে । খারাপ মানুষেরা পৃথিবীর ভারসাম্য নষ্ট করার চেষ্টা করে তাদের স্বার্থ উদ্ধার করতে গিয়ে, আর ভাল মানুষেরা নিজের স্বার্থের কথা খুব বেশী মাথায় না রেখে কিছু ভালো কাজ করে  । ভালো মাইক্রোঅরগানিজমের পরিবেশের ইকোলজিক্যাল ব্যাল্যান্স রক্ষার মতোই তারা পৃথিবীতে সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ব্যাল্যান্স রক্ষা করে মানব সভ্যতা টিকিয়ে রাখতে যেন ভূমিকা রেখে যাচ্ছে ।  তবে পৃথিবীতে এমন মানুষ  কিন্তু সংখ্যায় খুবই কম।

ভালো খারাপের বিষয় আসলে কিছুটা আপেক্ষিক। ঠিক তেমনি হল সত্য আর মিথ্যা। আমরা সবাই কম বেশি সত্য বলি । আবার প্রয়োজন অপ্রয়োজনে মিথ্যাও বলি। মানুষের মন এমন একটা জায়গা যেখানে কেবল তারই পদচারণা। কারো মনের কথা অন্যের জানার সাধ্য নেই, যদি না সে তা জন সম্মুখে প্রকাশ করে থাকে। মনে মনে, কল্পনাতে আপনি কাউকে মেরেও ফেলতে পারেন আবার মৃত কাউকে বাঁচিয়ে তুলতেও পারেন। মনের অন্দরমহলে সর্বদা কোন্দল চলে নিজের সাথেই। মন আর বিবেক এর যুদ্ধ।

মন চায় মানুষের কন্ট্রোল পাওয়ার নিয়ে নিতে, আর বিবেক চায় মনকে কন্ট্রোল করে মানুষের মনুষ্যত্ব টিকিয়ে রাখতে। যার বিবেক নেই, যাকে বিবেক কখনো টানে না, বুঝতে হবে সে খারাপ মানুষ। কেননা খারাপ যে কোন কিছুর উৎপত্তি মনেই। বিবেকের অনুপস্থিতিতে মন পুরো কন্ট্রোল নিয়ে ফেলে; আর বিবেক বিতাড়িত হওয়া মানুষকে অপরাধে লিপ্ত করে। যে বাধ্য হয়ে খারাপ কাজ করে তাকে খারাপ বললে খারাপ মানুষের সংজ্ঞা অশুদ্ধ হয়ে যায়। প্রকৃত ভালো মানুষ তারাই যারা খারাপ কাজ করার পর অনুশোচনায় দগ্ধীভূত হয়, বিবেক যাদের তাড়িয়ে নিয়ে বেড়ায়।

পক্ষান্তরে, তারাই খারাপ যারা আত্মশুদ্ধির পথ জানা থাকা সত্ত্বেও নিজের বিবেক কে সব সময় অবহেলা করে আর মনের প্রভুত্ব গ্রহণ করে। কারণ ভালো মানুষের ভালো হবার ইচ্ছা আছে, তাদের বিবেক আছে, আছে অনুশোচনা। তারা বিবেকের প্রভুত্ব চায়, আর মনকে বিবেকের দাস বানাতে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে যায়। মন যেহেতু সব সময় মানুষকে এটা ওটা এভাবে বিভিন্ন খারাপ কাজে টেনে নিতে চায় বা কোন কুচিন্তা ঢুকিয়ে দিতে চায়, সেহেতু কারো মননে খারাপ কিছু আসাটা অস্বাভাবিক না। কেউই ধোয়া তুলসী পাতা না!! যেই মানুষ তার মনে আসা কুচিন্তা বা কুপ্রবৃত্তিগুলোকে বাস্তবিক রুপ না দিয়ে মনের অন্দরমহলে দাফন করে দেয় সেই সত্যিকার ভাল মানুষ। আর যে নিজের মনকে কন্ট্রোল করতে পারে না, সে বাইরে সাধু হোক , ভদ্র হোক কিংবা হোক কোন মহাপুরুষ , বাস্তবে সে একজন কুপুরুষ!!

লেখক রত্নম অর্জুন

লেখকঃ মেডিকেল ছাত্র, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ

 

 

 

 

 

 

 

 

লেখকের অন্যান্য লেখা-

অসফল মানুষ যেভাবে সফল হয়

সৃজনশীলের প্রশ্নের তাপে, হৃদয় আমার কত কাঁপে!

 

Comment

Comment

   
ই-মেইলঃ mohioshi@outlook.com
ফেসবুকঃ www.facebook.com/mohioshibd
মোবাইলঃ ০১৭৯৯৩১৩০৭৮, ০১৭৯৯৩১৩০৭৯
ঠিকানাঃ ১০/৮, আরামবাগ, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
কপিরাইট ©  মহীয়সী