শহীদ মুক্তিযোদ্ধার খোলা চিঠি

বিপাশা হাবিব আরজু

প্রিয় প্রজন্ম,

        আমি তখন বেঁচে ছিলাম।  সংকীর্ণ মানসিকতার শাসক  দলের শাসনে আমাদের সবুজ ভূমি বিদীর্ণ হাহাকারে কেঁপে উঠতে লাগলো।আমি দুরন্ত ছিলাম,আমাকে রোধ করার চেষ্টা হচ্ছে বুঝতে পেরে স্বাধীনতার জন্য মরিয়া হয়ে উঠলাম। আমি আমার ভূমি রক্ষায় যুদ্ধ করতে নেমে গেলাম।আমি আমার কথা ভাবিনি,আমি আমার প্রজন্মের কথা ভেবেছিলাম ; আমি আমার স্বাধীনতার কথা ভেবেছিলাম। সমুদ্রের লোনাজলে এক বন্ধুর বিষম খেয়ে অন্যদের উম্মুক্ত আনন্দ নিয়ে বন্ধুকে সাহায্য করার ইচ্ছেকে ত্বরান্বিত করার প্রয়াসে যুদ্ধ করতে নেমে গেলাম।
আজ এতটা দিন পরে যখন দেখছি, আমার শিশুর খেলনা ভেঙে রক্তাক্ত করছে  তার তুলতুলে গা।কিশোরীর চঞ্চলতার পথে মরিচা ধরা পেরেগ ফেলে পায়ের শক্তি বিনাশ করা হচ্ছে।  নববধূ নীরব পায়ে লজ্জার শিহরণ নিয়ে দাঁড়াতে গিয়ে হচ্ছে অপমানিত। কৃষাণীর হাহাকারে বিভীষিকাময় রাত বাড়ছেই, আজও কৃষকের গালে হাত নামেনি। ক্ষুধার যন্ত্রণায় ঋণের বোঝা বইতে গিয়ে বনস্পতির ডালে রশিগুলোর কান্না  ক্রমশঃ বেড়েই চলেছে। বড়ো শহর অট্টালিকায় মেঘের ওপরে পাড়ি দিচ্ছে, বাড়ছে কেবল বস্তির দুর্গন্ধ!
আজ তোমাদের বিজয়োল্লাস দেখে পুলকিত যেমন হচ্ছি, তেমনই বিমর্ষ হয়ে ফুঁসে উঠছি।আরেকবার অস্ত্র হাতে নিতে বড়ো ইচ্ছে করছে। স্বাধীনতার পূর্ণ স্বাদ তোমাদের মাঝে ঢেলে দিতে চাই । কিন্তু আমার বসবাসের জায়গা পরিবর্তনের ক্ষমতা আমার নাই।
প্রজন্ম তোমাদের কাছে দাবী আমাদের স্বপ্ন পূরণ করে দিও।নইলে সত্যি সময় তোমাদের প্রতিশোধ নিবেই।
ইতি,
একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা।

লেখকঃ কবি,  সাহিত্যিক ও সহ-সম্পাদক মহীয়সী।

আরও পড়ুন