একান্তে

মাহমুদা লাভলী

বহুযুগ হ’ তে অপেক্ষায় শুধু তোমার জন্য।
অপেক্ষায় শীত গ্রীষ্ম বর্ষা শরৎ হেমন্ত বসন্ত।
যদি হঠাৎ এসে বাঁচাও ভালোবেসে!

এলে তো সেদিন —
ভাঙ্গা বুকে স্বপ্ন জাগালে,
খুলে দিলে স্তব্ধ বন্ধ কবাট।

দুহাতে মুছে দিলে —
তোমার জন্য  বুকের মাঝে দগ্ধে চলেছিল যত কষ্ট।
স্নেহকাতর ছোঁয়ায় ভুলালে শতেক দুঃখ আমার।

সকল স্বপ্নিল আনন্দের উৎস তুমি –
নুতন ভাবে জন্ম দিলে গোলাপ কুঁড়ি করে।
উথালপাতাল স্বপ্ন এঁকে দিলে বুকে,
করলে মহুয়া রসে মাতাল।

তারপর চললে সুদূর পানে —
এলে আবার ফিরেও গেলে!
তোমার স্পর্শ ছাড়া মনে হয় দূর দেশে  পড়ে আছি একাকী আমি।
তোমার সান্নিধ্য ছাড়া জীবন আমার পদ্মার বালুচর।

এলে আবার ফিরেও গেলে —
বড্ড ইচ্ছে করে তোমার কাছে যাই।
তোমার দীঘল চক্ষু মাঝে মুগ্ধ ব্যাকুলতায় যাই  হারিয়ে।
না বলা অব্যক্ত কথাগুলো বলে চলি অবিরাম।

আরও কিছু কি শুনবে তুমি ?
তুমিই আমার দেবতা —
আমার দুচোখে ভাসে শুধু তোমার প্রসন্ন মূর্তি ;
তার পদতলে চক্ষু বুঁজে ধ্যানে মগ্ন আমি।

তুমিই আমার ভালোবাসার অন্তত আকাশ ;
তাই বড্ডো ইচ্ছে করে তোমার কাছেই যাই,
তোমার ছায়াতলে বসে আকন্ঠ মহুয়া পানে মাতাল হই।
ইচ্ছে করে আবার

ইচ্ছে করে
কোন এক অবেলায় বালুচরে রাজপ্রাসাদ গড়ি।
কোন এক শুভক্ষণে
আবারও একান্তে নিবিড় বন্ধনে।

মাহমুদা লাভলী কবি ও সাহিত্যিক।

আরও পড়ুন