শান্তির বৃষ্টি দাও হে প্রভু

 

হে মহান প্রভু দয়াময় রাহমান
শান্তির বৃষ্টি দাও এই ধরায় ,
জন্মান্তর থেকে অশান্তির প্রচন্ড তাপদাহে পুরছি আমরা।
পুরছি পাপের অনলে,
মিথ্যা অহংকারে ভেসে গেছি তলিয়ে গেছি অতলে।
লালসার আগুনে জ্বলসে গেছে এই জগৎ সংসার,
লেলিহান পাপানলে জ্বলে পুরে অবশিষ্ট
আমরা মানুষ নিকৃষ্ট অঙ্গার ।
বাতাসে পোরা গন্ধ, কান পাতলেই
শুনতে পাই প্রলয়ের হাহাকার,
শুনতে পাই ধ্বংসের বিভৎস অসনি সংকেত।
চারিদিকে মৃত্যুর সাইরেন বেজে চলছে অবিরাম,
এরপরও কত দ্বিধাহীন ভাবেই ভুলে যাই,
ভুলে যাবো প্রভু তোমারই প্রিয় নাম।
দিয়ে ছিলে অসীম জ্ঞান বুঝে নিতে ভালো মন্দ বিবেক সীমাহীন,
র মুর্খতায় হয়েছি হীন হতে আরও হীন।
হে মহান সর্বময় শক্তির আধার,
এই অবুঝ মানুষকে একবার শুধু মানুষ কর
আরও একটিবার মানুষ করে তোলো।
কোথায় আজ শক্তির বড়াই,
উচ্চতার দম্ভ ধুলায় লুটাও
স্তব্ধ করে দিয়েছো শহর নগর বন্দর
যেন কোথাও কেউ নেই যেন কোথাও কেউ ছিলো না কেউ কোনদিন।
এইতো ছিলো এখানেই কোলাহল,
চরম অসভ্যতার ডামাডোল
হত্যার হিংস্রতার সীমাহীন প্রতারনার গন্ধে
নষ্ট বাতাসে লুটোপুটি খেলার গান
একনিমিষেই কি করে করেদিলে প্রভু
এই রঙ্গ মঞ্চের অবসান।
যদি তাই চাও তুমি তবে বিনাশ কর
ক্ষমা কর আরও একটিবার ক্ষমা কর
হে মহান দয়াময় আরও একটিবার শান্তির বৃষ্টি দাও
শান্ত কর একটিবার, এই অশান্ত ধরা।

 

রত্না  আফরোজ –  কবি ও গল্পাকার

আরও পড়ুন