সাগ্নিক- স্বপন

 

আঁধার একটু একটু করে ঘন হয়

আধারের বাতিগুলে নিভে যেতে থাকে

ক্লান্ত দেহে ভারহীন ঘুম ভর করে নিরবে।

 

এই একটি মজার ব্যাপার-

সে ঘুম। যার চোখে আসে, সে আর কিছু দেখতে পায় না;

অথচ আঁধারের গলি হাতরে ঘুম পৌঁছোয় চোখে চোখে।

তবে কী ঘুম ঘুটঘুটে আঁধারেও দেখতে পায়

না কী আধাঁরেই চোখে দেখে।

 

আরেকটি মজার ব্যাপার

ঘুম এসে চোখ বন্ধ করে দেয়, খুলে দেয় কল্প দৃষ্টি;

স্বপ্ন দেখে- ভাবা স্বপ্ন, হৃদ গহরের লাজুক স্বপ্ন

অতীতের মধুর স্বপ্ন, শেকলে বাঁধা দুঃস্বপ্ন

আঁধার রাতে ঘুমের ঘোর স্বপ্ন আসে।

 

অদৃষ্ট মোর এমন কেন!

নিভালে বাতি ঘুমটুকু মোর পায় না পথ আসার তরে

ঘুম না তবু শেকলি-স্বপন, সারানিশি কাঁদিয়ে ফেরে

স্বপন ভয়ে জ্বালিয়ে বাতি নিশিথ জাগি

বিশ্বাস; ঘুম। তেপান্তরে!

 

মঈনুল করীম – কবি ও সাহিত্যিক 

 

 

আরও পড়ুন