খাঁচার–পাখির–আকাশ

খাঁচার –পাখির–আকাশ

খাঁচার পাখিটা আকাশ দেখে রোজ
আকাশের অনেক রঙ,মেঘ সূর্যের
লুকোচুরি আর হঠাৎ কাল বরণ।

রোজ ভোরে কবিতার চাষ
দুপুর গড়িয়ে বিকেলে খেলার মাঠ।

রোজ তার খাঁচা ভাঙতে ইচ্ছে করে।

হঠাৎ মুক্ত পাখির আনা গোনায়
জোনাক জ্বলা সন্ধ্যা ভুলে
পিদিম জেলে মৃন্ময়ী সাজে অপেক্ষা।

লেখক-বিপাশা হাবিব-আরজু, কবি ও সাহিত্যিক।

একটা নকশীকাঁথা সেলাই করব বলে
অনেক রঙের সুতো নিয়ে বসেছি
একটা নকশা করে দেবে কবি?

তোমার পেন্সিলেই হোক শুরু।

অনাস্বাদিত পংক্তিদের মন খারাপ

মৃত্তিকা বাড়ির কপাট বন্ধ বলে।

অনুভবের অনুকম্পা নিয়ে হেঁটে যাই
হেঁটে যাই তোমার আঙিনার পাশ দিয়ে।

রোজ আমার মেঘের বাড়িতে বসবাস।
সেখানে রোদের সাথে যুদ্ধ করি।

আমি হেরে যাই রোজ হেরে যাই।
রোদের সাথে পারি সাধ্য কি আমার!!

আরও পড়ুন