ঈদ-উল-আযহার অর্ঘ্য বিরচন

নুরে আলম মুকতা

ধূ-ধূ মরু প্রান্তর…
চারপাশ কাঁপে থর থর
জল নেই , নেই জল
শুষ্ক কন্ঠ আর প্রেয়সীর ঘোলা চোখ ।
আশা আর ভালোবাসায়
মানব মানবী থমকে থমকে
জীবনের পানে ধায় !
এতো মায়াময় জীবন
চঞ্চল তরুহীনকায়।

কালো পর্বত মালায় উলঙ্গ
জমিনে বিছিয়ে ভালোবাসা ,
বিশাল প্রান্তরে দৌড়ায়
কার পানে চায়?

বুভুক্ষু দৃষ্টি মেলে বার বার
উন্মত্ত জমিন চষে আরবার
শরীরে যেটুকু অবশিষ্ট ছিলো
তাও আর নেই জল ।

তুমি চলে যাও,তৃষ্ণা মেটাও আমার প্রেমাস্পদের….
যে প্রেমের জন্য আমি উন্মত্ত
ও প্রেম আর চাইনা, ক্ষুধার্ত আমি ।
দেখ আমার রসালো চিরযৌবনা বক্ষ ও
শুকিয়ে গিয়েছে !

অগ্নিতাপ দগ্ধ,কাঁপে মার্তন্ড
দমকে দমকে নাচে প্রচণ্ড ..
সুন্দর তম নগ্ন ক্ষুদ্র পদাঘাতে
বিদীর্ন জমিনে,
ভালোবাসা উদগীরণ ক্রমাগত !
জল, জল, জল
চারিদিকে
জীবনের একি কোলাহল !
বিস্ময়ে মানব মানবী
বিস্ফারিত নেত্রে তাকায়
বিস্ময় বিস্ময়!
প্রস্তরীত মরু প্রান্তরে
প্রভু তোমারই জয়।

নত করো মস্তক
প্রিয় দাও দত্তক !
বিনা প্রতিদানে,প্রেম নয় সার্থক
অবনত হও !
আরো অবনত,
সেজদাহ করো
মালিক আমি
তুমি প্রশংসিত ।

দাও… দাও….. দাও…..
আকাশে বাতাসে বজ্র
নিনাদ ,
শন শন বেগে তপ্ত বায়ু বেগময় ভীষণ আঘাত হানে
বালুকাময় পর্বত মালায়
ভয়ানক আদেশ ।
পাহাড় পর্বতে চমকে
বজ্রপাত !
দাও….. দাও
ফিরিয়ে দাও
ভালোবাসা যেটুকু দিয়েছি আমি
হাজেরা-ইব্রাহীম ,
তোমরাতো প্রিয় অসীম !
ফিরিয়ে দিয়েছি প্রেম তোমাদের
একটু ভালোবাসা যা ছিলো
অবশিষ্টের।

আমার ডমরু বাজাও
সমস্ত বিশ্বচরাচরে আমার অস্তিত্ব জানাও
নিজের ইন্দ্রীয় নাচাও……
ঘোষনা দাও এক ,
শুধু এক আর এক
নেই জন্ম, নেই মৃত্যু
নেই বংশ, নেই সীমা
নেই ধ্বংস নেই পরিক্রমা ।
আমিই আদি
আমিই অন্ত
আমার নেই অবশেষ ।।

“ম” কাব্য
২৮.০৭.২০২০

আরও পড়ুন