ধারাবাহিক উপন্যাসঃ ডাংগুলি (পর্বঃ ছয়)

-খোশবুর আলী

সেদিন রাতে সোহেল চৌধুরীর ভাল ঘুম হইনি। রাতে সে সব কথা স্ত্রীকে খুলে বলেছে। তাঁর স্ত্রী তাকে সান্তনা দিয়ে বলেছে, আপনি ঠিক কাজই করেছেন। আগামীকাল আপনার পুলিশ বন্ধুকে ফোন করলেই মনে হয় খবর পাওয়া যাবে।

পরদিন সকালে সোহেল চৌধুরী তাঁর বন্ধুকে ফোন করলে তাঁর বন্ধু তাকে জানালো যে, তুমি চিন্তা করোনা, আমি চারিদিকে লোক লাগিয়েছি তাঁরা ভারতে পাচার করতে পারবে না, ফলে আমাদের পাতা ফাঁদে অবশ্যই পাঁ দেবে। কয়েক দিন ধৈর্য্য ধরো।

বন্ধুর আশ্বাস পেয়ে তাঁর মনকে সান্তনা দেবার চেষ্টা করে , কিন্তু কিছুতেই মেনে নিতে পারছে না এমন নিস্পাপ শিশুটি এখন কেমন আছে। আমি তাঁর বাবাকে খুঁজতে যাবার সময় কেন তাকে সাথে নিয়ে গেলাম না?

জীবন কারো জন্য থেমে থাকে না। তাইতো সোহেল চৌধুরী নাস্তা সেরে তাঁর আড়তে চলে গেল। সারাদিন বিভিন্ন কাষ্টমারের সাথে তাঁর কথা হয়। সুযোগ পেলেই সে সবাইকে গতকালের গল্প শোনায়। সবাই তাকে সান্তনা দেয়।

এভাবে কয়েকদিন কেটে গেল। মনার কোন খোঁজ সে পেল না। প্রতিদিন থানায় ফোন করে, তারাও একই কথা বলে।

প্রায় সপ্তাহ খানেক পর হঠাত একটি ফোনকল আসে। সোহেল চৌধুরী তাঁর কাষ্টমারের কল ভেবেই প্রথমে সালাম দেয়। অপর প্রান্ত হতে একজন বলে –

আমি একটি ছেলেকে পেয়েছি গতকাল। সে এখন আমার নিকট আছে।

তবে পুরস্কারের পঞ্চাশ হাজার টাকা দিলে ছেলেটিকে আপনার নিকট ফেরত দেব।

সোহেল চৌধুরী লোকটিকে বললেন, আপনি টেলিফোনের কাছেই থাকুন আমি একটু পরে আপনাকে জানাচ্ছি বলে ফোন রাখলেন। এবং সাথে সাথে মারুফকে (পুলিশ বন্ধু) কল করলেন,

মারুফ তাঁকে পরামর্শ দিলেন যে, তুমি বল ভাই আমি ব্যাংক থেকে টাকা তুলে টাকা নিয়ে আসছি, আপনারা শিশুটিকে নিয়ে আড়ানী স্টেশনের পেছনের খেজুর বাগানে আসুন। আমি আমার ফোর্স নিয়ে ছদ্দবেশে খেজুর বাগানের চার পাশ ঘিরে রাখছি। আর তুমি শুধু একটি ব্যাগ হাতে এক্ষুনি চলে এস আড়ানি স্টেশনে।

আমি স্টেশনে পৌঁছে তোমার জন্য অপেক্ষা করব। তোমার আসতে লাগবে তিন ঘন্টা । এখন বাজে সকাল দশটা ফলে তুমি দুপুর দু’টায় টাকা নিয়ে আসছি খেজুর বাগানে একথা জানাবে।

সোহেল চৌধুরী ঠিক আছে বলে ফোন রাখলেন। সাথে সাথে সেই অপরিচিত নাম্বারে কল করলেন এবং মারুফের কথা মত সব কথা বললেন। লোকটি রাজি হল।

ফলে তিনি সেদিনের মত আড়তের কাজ বন্ধ করে ট্রেনে উঠলেন আড়ানীর উদ্দেশ্যে।

দুপুর একটা পনের মিনিটে ট্রেন এসে থামল আড়ানী স্টেশন। সোহেল চৌধুরী নেমেই প্রথমে মারুফের খোঁজ করলেন। সোহেল চৌধুরী মারুফকে চিনতেই পারেনি। সে লুঙ্গি পরে ও একটি মলিন শার্ট পরে ছদ্দবেশে দাঁড়িয়ে আছে। তাঁর পাশ দিয়েই চলে যাচ্ছিল সোহেল চৌধুরী, মারুফ তাঁর হাতটি খপ করে ধরে ফেলেছে। কে হঠাত তাঁর হাত ধরলো ঘুরে তাকাতেই হেঁসে ফেলল মারুফ। তাঁরা দুই বন্ধু কলাকুলি করল, মারুফ বলল–,

মারুফঃ এখনো পঁতাল্লিশ মিনিট সময় আছে চল কিছু খেয়ে নি। আমার লোকজন বাগান গিরে রেখেছে কোন সমস্যা নাই। চল খেতে খেতে কি করতে হবে বুঝিয়ে দিচ্ছি।

সোহেল চৌধুরী লক্ষ করলো তাঁর বন্ধু সব কিছু প্রস্তুতি নিয়েই এসেছে । কোমরে তাঁর পিস্তল, হান্ডকাফ সব কিছুই আছে। কিন্তু দেখে বোঝার উপায় নাই যে সে একজন পুলিশ অফিসার।

ঘড়ির কাটা ঠিক দুপুর দু’টায় কথা মত সোহেল চৌধুরী আগে আগে চলে আর মারুফ দূর থেকে তাঁকে অনুসরন করে খেজুর বাগানে পৌঁছালো। সে একটি গাছের নিচে দাঁড়ালো কিন্তু কাউকে দেখতে পেল না। কিছুক্ষণ পর ঝোপের আড়াল থেকে একজন লোক বেরিয়ে এল। মাথায় লম্বা লম্বা চুল, গোঁফ ও বেশ লম্বা। কাছে এসেই বলল টাকা এনেছেন। সোহেল চৌধুরী হাতের ব্যাগের দিকে ইশারা করে দেখালেন, আর বললেন ছেলেটিকে নিয়ে আসুন।

লোকটি পেছন ফিরে তিনটা হাত তালি দিলেন। অমনি ঝোপের ভেতর থেকে একজন লোক একটি ঘুমন্ত শিশুকে কাঁধে করে নিয়ে এলেন।

সোহেল চৌধুরীর বুঝতে অসুবিধা হল না যে, মনাকে ঘুমের ঔষুধ খাওয়ানো হয়েছে।

তিনি তাড়াতাড়ি মনাকে নিতে যাচ্ছিলেন, কিন্তু তাঁরা আগে টাকা চাইল। ফলে তিনি হাতের ব্যাগটা আগিয়ে দিলেন। এবং অন্য জনের নিকট হতে মনাকে নিজের কাঁধে তুলে নিলেন। তাঁরা ব্যাগটি খুলে দেখতে যাচ্ছিল এমন সময় পাশের ঝোপ থেকে “হান্ডস আপ” বলে পিস্তল বাগিয়ে এগিয়ে এল মারুফ। তাঁরা ব্যাগ ফেলে দৌড় দিল কিন্তু কোন লাভ হলো না, মারুফের লোকজন আগে থেকেই চারিদিক ঘিরে রেখেছিল। তাঁরা তাদের কে ধরে ফেলল।

তাদেরকে ধরে থানায় নিয়ে গেল মারুফের লোকজন আর মারুফ ও সোহেল মনাকে নিয়ে গেলেন ডাক্তারের নিকট মনার চিকৎসার জন্য। ডাক্তার বললেন আমি একটি ইজেকশন দিয়ে দিচ্ছি আপনি নাটোরে গিয়ে মেডিকেলে ভর্তি করে দিবেন নইলে শিশুটি মারা যেতে পারে কারণ- ওরা খুব বেশী পরিমান ড্রাগ দিয়েছে শিশুটিকে।

সেখান থেকে পুলিশের গাড়িতে করে বাঘা থানায় পৌঁছে সকল কাগজ পত্রের কাজ সেরে , গাড়িতে করেই রওয়ানা হলেন নাটোর মেডিকেলের অভিমুখে।

মেডিকেলে পৌঁছে মনাকে ইমার্জিয়েন্সিতে ভর্তি করে মারুফ সোহেল চৌধুরীর নিকট হতে বিদায় নিয়ে থানায় ফিরে এলেন।
চলবে…

আগের পর্বঃ

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্বঃপাঁচ)

লেখকঃ কবি ও সাহিত্যিক।

আরও পড়ুন