রম্যরচনাঃ বিভ্রান্তি

সুমেরা জামান

গতকাল একটা পোষ্ট দিলাম “আজ সেই দিন, যেদিন খাল কেটে কুমির এনেছিলাম ” এরপর থেকে আমার সব এলোমেলো গেলো।
একটু পর আমার বর জামান একটা মেসেজ দিল “বাড়িতে আগে আসি তারপর বুঝাবো মজা। কুমির দেখেছো বাট লেজ তো দেখনি ”
আমি একখানা মুখ হা করা ইমো দিয়ে আহাম্মক হয়ে বসে রইলাম। ভাবতে লাগলাম এ কেমন কথা!

হিজাব মাথাতে তুলে দিয়ে রেডি হতে শুরু করলাম। পিঁয়াজ কিনতে বাহিরে যেতে হবে।
কলিংবেলের আওয়াজ শুনে দরজা খুলে দেখি ওপারে একটা কেক নিয়ে হাসিহাসি মুখে আমার ছোট বোন দাঁড়িয়ে। বড়আপু ” অভিনন্দন, আজ তোমার কারা জীবনের ১৮ বছর পুরণ হলো। তবে তোমার পোস্ট কিন্তু সেই লেভেলের হয়েছে! ”
কি আশ্চর্য! আমি কি জন্য এটা লিখেছি না জেনে….
থামো থামো তোমার সব চালাকি আমি জানি।
তুই থাক আমি একটু বাজারে যাবো।

বাহিরে গিয়ে রাস্তাতে আমার এক কলিগের সাথে দেখা। সে বলছে ম্যাম এমনটা আমি আপনার কাছে আশা করিনি। আমাকে আপনার ব্রাঞ্চে আপনিই কিন্তু ট্রান্সফার করে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু আজ এমন পোস্ট দেখে হতাশ! কি অপরাধ আমার!
উফ! কি অত্যাচার! ইয়া আল্লাহ্!

বসাতে ফিরতেই দোতলার ভাড়াটিয়ার লম্বা সালাম। ইনি আবার চ্যাটাংচ্যাটাং কথা বলে। সে যে কি বলে সেটা নিয়ে আমি ভয় পেতে লাগলাম।
আসসালামু আলাইকুম আপা। আমাদের নিয়ে কি কোন সমস্যা আছে ? থাকলে সরাসরি বলবেন ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে বলার কি আছে? আমাদের পাঁচ বছর হলো এ বাড়িতে এসেছি। কোনদিন কোন……
থামিয়ে দিয়ে বললাম আপনি তো আমার লিস্টেই নেই। এসব আপনাকে বলবো কিভাবে?
নেই তো তাতে কি! আমি আপনার ফেসবুক আইডির ফলোয়ার। সি ফাস্ট দিয়ে রাখা আছে।
আমি আর কথা না বাড়িয়ে চলে আসলাম। মেজাজ প্রচুর খারাপ।
ঘরে ঠুকেই দেখি ড্রয়িং রুমে বিরোধী দলের নেতা কর্মী তে ভর্তি।
সবাই উঠে দাঁড়িয়ে বলল ” অভিনন্দন আপি, আপনার সাহসী পোস্টের জন্য জাতি আপনাকে আজীবন শ্রদ্ধার সাথে মনে রাখবে।”
আমি আমতা আমতা করতে লাগলাম আমি কি মারা গেছি!
একজন আমার গলাতে ফুলের মালা চড়িয়ে দিলো আর চারিদিকে তুমুল করতালি ।
একজন বলল আপি এভাবেই কুমিরদের আঘাত হানতে হবে। সাপও মরবে লাঠিও ভাঙবে না।
আমার মাথা তো পুরাই হ্যাং।পুরো বডি খুজে দেখলাম রিস্টার্ট দেবার কোন অপশানও নেই । আমার বোনকে বললাম এককাপ চা দে তো। দেখি কাজ হয় কিনা।

দুপুরে পর ছুটি নিয়ে জামান বাড়িতে চলে এসেছে। সেই তো বুঝলাম। ল্যাঞ্জা দেখাতে মনে হয়।
বললাম এতো আগেই চলে আসলা যে?
আমি কি কিছুই বুঝিনা! বোকা ভাবো আমাকে! আমাকে বিয়ে করে যদি খাল কেটে কুমির আনা হয় তবে কে বলেছিল খাল কাটতে? এখন খাল ভরাট করে চলে যাও। ছিঃ নিজের বিয়ের দিন নিয়ে মানুষ এমন রহস্যময়ী পোস্ট দিতে পারে!
উফ! জামান থামো। আজ আমাদের ম্যারেজ ডে না। আজ তো ৫ তারিখ। সেটা তো ৯ তারিখে।
এই মাসে তো দিছো, ঐ দিকেই তোমার ইশারা ছিলো।

টুংটাং করে কলিংবেল বেজ উঠলো।
দরজা খুলে দেখি পুলিশ। তখন বিকেল চারটা। আপনাকে আমাদের সাথে থানাতে যেতে হবে।
জামানতো ভয়ে শেষ!
কি বলেন এসব?
আপনাকে বলিনি আপনার স্ত্রীকে বলেছি।
বললাম, প্রজ্ঞাপন পড়েন না নাকি?
সরকারি চাকুরিজীবীকে এভাবে ধরার কোন বিধান নেই।
আমাদের আইন শেখাবেন না।
আজ গনতন্ত্র হত্যা সরি গনতন্ত্র রক্ষা দিবস আর আপনি লিখেছেন খাল কেটে কুমির আনার কথা! কাকে বলছেন সেটা আমরা জানিনা মনে করেন! আমরা কি ফিডার খাই! ভোটের দিন নিজেরা ডিউটি দিছেন বলে এসব লিখে গুজব ছড়াবেন আমরা বসে বসে আঙ্গুল চুষবো! হাউ ফানি!
চলেন আজ আমাদের সাথে নিজের কাটা খালের কুমির দেখবেন স্বশরীরে।

উফ! আমি তো বলেছি আর্তুগুলের কথা। এক বছর আগে আমি এই দিন থেকে দিরিলস দেখা শুরু করেছি। তারপর থেকে স্বয়নে স্বপনে তাকেই দেখি। এই দেখেন দেখেন আমার বর। তারে জিগান। সে সব জানে। আমরা আগামীকাল তুরস্ক যাচ্ছি। আজ আমাদের গনতন্ত্র রক্ষা দিবস তাই সেই খুশিতে আমাকে টিকিট গিফট করেছে। এক নজর আর্তুগলকে দেখবো তাই।
এই বল, বলনা কিছু তুমি! ঠিক কিনা!
আমার বর জ্ঞান হারালো  ।

লেখকঃ রম্য লেখক ও শিক্ষক

আরও পড়ুন