ব্রাউজিং শ্রেণী

ধারাবাহিক উপন্যাস

আমি নসিমন- পর্ব:০৯

আমি নসিমনপর্ব-০৯ (জীবন দর্শন)এইচ বি রিতা আমার মা অতি ভাল মা’দের একজন। তিনি ধার্মিক, রক্ষনশীন ও শালীন জীবন যাপন করেন। তিনি দয়ালু,একজন প্রকৃত মুসলমানের যেমন হওয়া দরকার, তার একশো ভাগ না হলেও আশি ভাগ আমার মায়ের মধ্যে বিদ্যমান। একশো ভাগ খাঁটি…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্বঃ দশ)

-খোশবুর আলীঃ কয়েক মাসের মধ্যে সোহেল চৌধুরীর বাড়ির কাজ শেষ হয়ে গেল। বাড়িতে সব নতুন ফার্নিচার দিয়ে সাজানো হলো। আধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা যেমন, পানির লাইন, টেলিফোন লাইন ইত্যাদি সংযোগ করা হল। আত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধব অনেকে দেখতে এলো বাড়িটি।…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ ডাংগুলি  (পর্বঃ আট)

--খোশবুর আলীঃ সোহেল চৌধুরী এবং তাঁর স্ত্রী অক্লান্ত পরিশ্রম করে প্রায় সপ্তাহ খানেক মেডিকেলে যাতায়াত করে মনাকে সুস্থ করে তুললো।সবাই তাদেরকে বলতে লাগল- পরের ছেলের প্রতি এত মায়া কেন? ওর বাবা মা খোঁজ পেলে হয়তো নিয়ে যাবে, খামাখা মায়া বাড়িয়ে লাভ…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্বঃ নয়)

-খোশবুর আলীঃ যথা সময়ে মিনার একটি মেয়ে সন্তান জন্ম নিল। মেয়ে দেখতে ঠিক সোহেল চৌধুরীর মতই হয়েছে। মেয়ের নাম রাখলো ছেলের নামের সাথে মিল করে মনি। ছেলে আর মেয়েকে নিয়ে মিনার ব্যাস্ত সময় কাটে। স্কুল থেকে ফিরে মনা বোনের সাথে  খেলা ধুলা করে। পাড়া…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্বঃ সাত)

--খোশবুর আলী এদিকে বৈদ্যপুর গ্রামে ঘটলো আরেক হৃদয় বিদারক ঘটনা। পরেরদিন মনা গরু চরাতে যায়নি দেখে সেই আহত ছেলেটির বাবা কাদের মিঞা মনাদের বাড়িতে এসে  মনার খোঁজ করে বলল— কাদের মিঞাঃ মনা কই, অ্যাজ গরু চরাতে যায়নি ক্যান? মনার মাঃ জানিন্যা ভাই।…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ ডাংগুলি (পর্বঃ ছয়)

-খোশবুর আলী সেদিন রাতে সোহেল চৌধুরীর ভাল ঘুম হইনি। রাতে সে সব কথা স্ত্রীকে খুলে বলেছে। তাঁর স্ত্রী তাকে সান্তনা দিয়ে বলেছে, আপনি ঠিক কাজই করেছেন। আগামীকাল আপনার পুলিশ বন্ধুকে ফোন করলেই মনে হয় খবর পাওয়া যাবে। পরদিন সকালে সোহেল চৌধুরী তাঁর…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্বঃপাঁচ)

-খোশবুর আলী সোহেল চৌধুরী লোকজনের ভিড় ঠেলে তাঁর সীটের নিকট গিয়ে দেখলেন, সেখানে অন্য লোক বসে আছে, মনা নাই। তাই তিনি সীটে বসা লোকটিকে জিজ্ঞেস করলেন— সোহেল চৌধুরীঃ ভাই, এখানে একটি আট নয় বছরের শিশু ছিলো কোথায় গেল? লোকটি বললঃ  কেন ? আপনার…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ ডাংগুলি (পর্ব-চার)

--খোশবুর আলী সোহেল চৌধুরী মনাকে তাঁর সীটে বসিয়ে রেখে তাঁর বাবাকে খোঁজার জন্য উঠে গেলেন। বললেন- আমি না আসা পর্যন্ত তুমি এখানেই থাকবে, কেউ ডাকলেউ যাবে না, কিছু দিলে নিবে না, ঠিক আছে? ট্রেন ছাড়ার আগেই আমি ফিরে আসবো। প্রতি ট্রেনে হাজার হাজার…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ ডাংগুলি (পর্ব–তিন)

-খোশবুর আলীঃ ট্রেন ছুটে চলছিল নাটোর অভিমুখে। ট্রেন চলতে শুরু করলে মনা ভয় পেয়ে যায়, কারণ তার বাবাকে তখনও ট্রেনে দেখতে পাইনি। তার কাঁদ কাঁদ ভাব দেখে  পাশের ভদ্রলোক বলল — ভয় নেয় বাবু তোমার, চুপচাপ বসে থাক, কিছুক্ষনের মধ্যে তোমার বাবা চলে…

ধারাবাহিক উপন্যাসঃ – ডাংগুলি (পর্ব–দুই)

--খোশবুর আলীঃ গ্রামের মেঠো পথ দিয়ে হাঁটছে তাঁরা। সারাদিন গরু চরিয়ে ক্লান্ত মনা, তাই বাবার সাথে হাঁটতেও পারছে না। ছোট ছেলে সে, বাবা জোরে হাঁটছে ফলে তাঁকে প্রায় দৌড়াতে হচ্ছিল। অন্ধকার রাত রাস্তার উচু নিচু কিছুই বোঝা যাচ্ছিল না, তাছাড়া রাস্তা…