ভদ্রবেশী

ডাঃ জোবায়ের আহমেদ

আমার এক বন্ধু একটা চাকুরি খুঁজছে।উচ্চ শিক্ষিত মেয়ে বাচ্চাদের জন্য চাকুরী ছেড়ে দিয়েছিলো।
কিন্ত তিলোত্তমা ঢাকায় একা হাজবেন্ড এর ইনকামে সংসার চালানো,বাচ্চাদের স্কুলের খরচ ও অন্যান্য খরচ মিটিয়ে চলা খুব কষ্টকর।তাই পরিবারের কিছু দায়িত্ব নিতে সে আবার চাকুরী করতে ইচ্ছুক হলো।
অনলাইনে বিভিন্ন সাইটে জবের জন্য এপ্লিকেশন জমা দিলো।ইন্টারভিউ দিলো কয়েক জায়গায়।
দুই এক জায়গায় চাকুরী হয়েছে কিন্ত দূরত্ব ও স্যালারিতে না হওয়ায় সে জয়েন করলো না।

এর মধ্যে আমাদের ০১/০৩ গ্রুপে এক বন্ধু তার ফার্মে একাউন্টসে লোক নিবে বলে পোস্ট দিলো।
সেখানে সেই বন্ধুটি কমেন্ট করলো যদি HR এ লোক লাগে তাহলে সে আগ্রহী।।
তার কমেন্ট দেখে গ্রুপের আরেক বন্ধু তাকে ইনবক্সে নক দিলো।নক দিয়েই প্রথম কথা, তুমি তো মহা সুন্দরী।তার রুপের গুনগান করলো।

বললো, আমার ফার্মে HR এ লোক নিবে।তুমি এপ্লাই করো।।সে এপ্লাই করলো।ইন্টারভিউ দিলো। সেই বন্ধুটি তার ইমিডিয়েট বস হবে,সেও ভাইভা বোর্ডে থাকলো।।

জয়েনিং এর আগের দিন সন্ধ্যায় সেই বন্ধুটি আমার বন্ধুকে ফোন দেয়,তার সাথে হাতিরঝিলে দেখা করতে পীড়াপীড়ি করে।।আমার বন্ধুটি যেতে রাজি না হলে সেই বন্ধুটি বলে,আচ্ছা বের না আজকে প্রব্লেম নাই কিন্ত আমার সাথে তো বের হতে হবে তোমাকে জব করতে চাইলে।
তার কুরুচিপূর্ণ ইঙ্গিতটা আমার বন্ধু বুঝতে পারলো।তখন সে বললো,আচ্ছা আমি আগামীকাল জয়েন করবো না বলে লাইন কেটে দিলো।।

তারপর সেই ছেলে অনেকবার ফোন দিলো।পরে ইনবক্সে বললো,আমার বউ বাচ্চা আছে,তোমার স্বামী বাচ্চা আছে তা আমি জানি।।তোমাকে আমার ভালো লাগে।।তুমি আমার সাথে সময় কাটালে আমি তোমার জন্য অনেক কিছু করবো।।।
আমার বন্ধুটি নিপাট ভদ্র ও নিরীহ,সে সেই ভদ্রবেশী নোংরা লোকটিকে ব্লক করে দিলো।।

আমাকে আজ যখন জানালো,আমি স্তম্ভিত হলাম।আমার বয়সী একটা ছেলে আরেক বন্ধুকে হেল্প করে সে মেয়েটার কাছ থেকে শারীরিক সুবিধা পেতে চায়।।

কর্পোরেট দুনিয়ায় এসব লম্পটরা গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বসে আছে।।এদের সাথে একটা নীরব লড়াই করে সম্ভ্রম বাঁচিয়ে টিকে থাকতে হয় নারীদের।।এদের মুখোশ উন্মোচন করে দেওয়া দরকার।।পাশাপাশি সচেতনতার খুব প্রয়োজন।

লেখকঃ সাহিত্যিক ও ডাক্তার 

 

আরও পড়ুন