ইসলাম মুসলিম নারীদের কাছে কতটা অসহায় !

রিতু আদ্রিতুল

ইসলাম মুসলিম নারীদের কাছে কতটা অসহায় অথবা মুসলিম নারীরা ইসলামের চেয়ে কতটা দূরে!!!

জামালপুরের সাধনা কি ভয়াবহ অন্যায় ও শাস্তিযোগ্য যিনা ব্যাভিচার করেছে নারীদের জন্য ইসলামের ফরজ পর্দার আড়ালে!!! মাথায় চকচকে হিজাব বেধেছে, একজন পরপুরুষের চোখের সামনে বোরখা খুলে ফেলেছে,জনসম্মুখে আসার পর সেই হিজাব দিয়ে নিকাব বেধে বলেছে স্যারের কোন দোষ নেই,যে ভিডিও করেছে তার দোষ।।।

ইসলামে কেন নারীর পর্দার বিধান এল,কেন মাথা ও শরীর বোরকার আড়ালে লুকিয়ে রাখার বিধান এল আর কোথায় সাধনার বোরকা খুলে হাসতে হাসতে সেই শরীর উন্মুক্ত করার দৃশ্য দেখতে হল।বিবাহিত যিনাকারীর শাস্তি মৃত্যুদন্ড। আর আজ যিনাকারী অন্যের শাস্তি চায়।

সাধনার কাছে ইসলামেরই বা কি মূল্য,তার ফরজ বিধানেরই বা কি দাম আর আল্লাহর ভয়ই বা কোথায়!!!

ইসলামে নারীদের চকচকে পোষাক আর গহণা প্রদর্শণ নিষেধ।।যারা ফরজে যত্নশীল নয় তাদের কথা বলছি না।কিন্তু যারা আল্লাহর খুশির জন্য ফরজ পালনে ব্যস্ত তাদের গায়ে যখন জমকালো বোরখা, গহণা, কাঁচ পুতির জামার সাথে রঙবেরঙের কাপড় মাথায় বাঁধতে দেখি তখন ইসলামকে খুব অসহায় লাগে সেই সব মুসলিম নারীর কাছে আবার মুসলিম নারীদেরও খুব দূরে মনে হয় শান্তির জায়গা থেকে!!!

আজ আমরা বিজ্ঞানের বদৌলতে জানি কাপড় তৈরি,কাপড়ের রঙ,সাজ প্রসাধণী উৎপাদন পরিবেশের ২৩% ক্ষতি করে। ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের রঙিন কাপড়ের আকর্ষণ লক্ষগুণ বেশি।আজকাল অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে ক্রয়ক্ষমতাও বেড়েছে হাজারগুণ।তাই সাদা আর কালো পোষাকে নিজেকে নিয়ন্ত্রিত রাখা,সীমাবদ্ধ রাখা আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ কিছুটা হলেও সুরক্ষিত করবে।।।

আর রঙচঙে,ঝকমকে কাপড়ের আড়াল সাধনার মত মাথায় হিজাব বেধে যিনা ব্যাভিচারের সমাজ গঠন করবে…..।

লেখকঃ সহকারী অধ্যাপক,জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন
1 টি মন্তব্য
  1. শাফিন ও সাইফানের মা বলেছেন

    কঠিন সত্য কথা

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.