নবীন-প্রবীণের দূরত্ব ও কিছু কথা

আবু সাইফা
কথায় আছে বুড়োর বুদ্ধি তলায় আর ছোঁড়ার বুদ্ধি গলায়। নবীনের বর্তমান হলো প্রবীণের অতীত আর প্রবীণের বর্তমান হলো নবীনের ভবিষ্যৎ। এ দুটোই একই কথার এপিঠ ওপিঠ। এখন নবীনেরা যেখানে দাঁড়িয়ে, প্রবীণেরা অনেক আগেই সেটা পার করে এসেছেন। তাহলে অভিজ্ঞতার জন্য আমাদের কোনটা অনুসরণ করা উচিৎ। আমরা তো ভবিষ্যতে যেতে পারবো না।এটা সম্ভবও নয়।
মূলকথা হলো আমরা ভবিষ্যতের প্রস্তুতি গ্রহণ করবো অতীতের ইতিহাস দেখে।
নবীন-প্রবীণের যে দূরত্ব তৈরি হচ্ছে, এটা ঘোচাবার জন্য নবীনকেই অগ্রগামী হতে হবে। প্রবীণ তো দ্বার খুলে বসে আছে নবীনের আগমন প্রতীক্ষায়। গাভীর ওলানে দুধ জমলে যেমন বছুরকে হাম্বা,হাম্বা করে ডাকে, প্রাজ্ঞজন সেভাবেই নবীনকে ডাকছে — আসো, আমার কাছে যা আছে সব নিয়ে যাও। সব জ্ঞান, সব অভিজ্ঞতা লুটে নিয়ে যাও।
ভার্চুয়াল মেকি সভ্যতা নবীনকে শেখাচ্ছে, ‘ বুড়োদের কোনো জ্ঞান নেই, তারা কিচ্ছু বোঝে না।’ আর এব্যাপারে সব থেকে দায়ী কারণ হলো অসমাপ্ত শিক্ষা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এই ধারণা ঘুচে যায় অবলীলায়। তারা বুঝতে পারে প্রবীণদের মাঝে কী হীরের খনি লুকিয়ে রয়েছে।
নবীন-প্রবীণের এই দূরত্ব অবশ্যই ঘুচিয়ে ফেলা উচিৎ। সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য।
আরও পড়ুন