নারী সমাজের প্রগতিগত সমস্যা

জেসমিন আক্তার 

আমাদের সমাজে নারী ফিতনা একটি জটিল সমস্যা। নারীরা বাস্তব জীবনে অসহায় তারা আজ নির্যাতিত।আজ সমাজের দিকে তাকালে দেখা যায় নারীদের যেন পশ্চিমা দেশ গুলো ও মিডিয়া স্যাটালাইট চানেল গুলো হাতছানি দিয়ে ডাকছে।দু টাকার শ্যাম্পু থেকে শুরু করে বিলবোর্ড সব কিছুতেই নারীদের ব্যবহার করা হচ্ছে।নাট্য কলা থেকে শুরু করে ছবি ও সিরিয়্যালের মাধ্যেমে নারীদের আকর্ষণীয় সহ সংসারিক ও সামাজিক বিশৃঙ্খলা মূলক শিক্ষা দেওয়া হয়। যা সমাজে অপরাধের জন্ম দিচ্ছে,প্রেম ভালবাসা যুবক যুবতিদের নষ্ঠ করে তুলছে।সমাজে ব্যভিচার,পরকীয়তা বেড়েই চলছে,পারিবারিক জীবনে তালাক এর পরিমান বেড়েই চলেছে।খবরের কাগজে বা নিউজে প্রতিনিয়ত নারী ধর্ষণ, নারীদের সন্মান হানি,অপরিপক্ক শিশুদের লাশ যাদের পৃথিবীর আলো দেখার আগেই হত্যা করা হচ্ছে।

আজ সমাজ ব্যবস্থা এর কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করে না,করলেও তা সাময়িক। আজ মুসলিম নারী হিসাবে আমরা নিজেদের ঠিকই পরিচয় দিই,কিন্তু আসলেই কি আমরা মুসলিম নারীদের করনীয় সম্পর্কে কজন সচেতন আছি।ইসলাম নারীদের জাহেলি জীবন থেকে কীভাবে অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত করেছিল সে বিষয়ে কি আমরা ভেবে দেখি?এর প্রকৃত কারণ আমরা এখনও ধর্মীয় কুসংস্কারে  পড়ে আছি ধর্মকে নাম মাত্র মানি বাস্তব জীবনে প্রতিফলিত করতে চাই না।

নারীর ক্ষমতায়ন অর্থায়নে নারীর ভূমিকা থাকলেও প্রকৃত মর্যাদাপ্রতিষ্ঠিত হয় না।তাই ব্যাপক ভাবে পরিবার ও সমাজ গঠনে নারীদের ধর্মীয় সচেতনতা প্রয়োজন।কারণ নারীরা কখনও মা,সহধর্মীনি,বোন ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে গড়তে হলে নারীদের ভূমিকা অনেক । তাই নারীদের সমাজ গঠনের হক ক্ষেত্রে ধর্মীয় জ্ঞান অর্জন আবশ্যক প্রয়োজন।

লেখকঃ নারী বিষয়ে কলাম লেখক 

আরও পড়ুন