মাতৃত্ব কালীন বিষণ্ণতা (পর্ব-৫)

ডাঃ শারমিন সুলতানা 

ছোট ভাই-বোনদের বিয়ে হবার পর নিজের বিয়ের ব্যাপারে আগ্রহ অনুভব করেন রানা।বিয়ের আগ্রহটা ছোট ভাই অনুভব করতে পেরেছিল।তাই বড় ভাইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতাস্বরুপ ঘটকালির দায়িত্বটা ছোটভাই রেজা নিয়েছিলেন।রেজা এক দ্বীনি সার্কেলের মাধ্যমে তমার ব্যাপারে জানতে পারে।এরপর রানাকে তমার বাসায় দেখতে যাওয়ার জন্য অনেক অনুরোধ করেন।রেজার ধারণা তমাকে রানার পছন্দ হবে।এবং রেজার ধারণা ভুল নয়।দেখামাত্রই রানার তমাকে পছন্দ হয়।

রানা,রেজা,ইরা ও ইতি এই চার ভাইবোনের মধ্যে রানা খুব দায়িত্বশীল ছিল সবার প্রতি।ছোট ভাইয়ের পড়াশোনা শেষ হতেই যখন বুঝতে পারল রেজা, আলফাকে পছন্দ করে।আলফা ও রেজার মধ্যে প্রেমপর্ব চলছে।তখনি রানা তাদের বিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।রেজা ও আলফার বিয়ে হলো।রেজার বাবা-মা সহজভাবে নিতে পারেনি।যাইহোক, রানাই রেজার খরচ বহন করতো।
এদিকে ইরা বিয়ের জন্য যাকে পছন্দ করেছে সেটা রানা ও রেজা মেনে নিতে পারবে না।তাই ইরা পালিয়ে বিয়ে করে ফেলল।এই বিয়ের ব্যাপারে আলফার মা বেশি সহায়তা করেছিল।

আলফার প্রেমের বিয়ে আবার ভাসুরের আগে বিয়ে হয়েছে, সব মিলে শ্বশুর বাড়িতে অনেক কথা হজম করতে হতো।তাই আলফার মা ইরার বিয়ের ব্যাপারে খুব চালাকির আশ্রয় নিল,যাতে আলফার সম্মান বাড়ে।

তমা এসব অতীতচিন্তায় সারারাত পার করলো।কেন এসব চিন্তা মাথায় আসলো বুঝতে পারছে না।সকাল হয়ে এলো।বাচ্চার নড়াচড়া কমে আসছে স্বাভাবিকের চেয়ে। ডাক্তারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষা……

(চলবে)

আগের পর্ব- মাতৃত্বকালীন বিষণ্ণতা (পর্ব-৪)

লেখকঃ ডাক্তার, সাহিত্যিক ও মোটিভেশনাল স্পিকার,The Nafs Psychological & Spiritual Wellness Centre

আরও পড়ুন