কিভাবে নিজেকে সুখী করা যায়

তামান্না সুলতানা

মানবজীবনে সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য হচ্ছে সুখ।পৃথিবীতে সবাই সুখী হতে চায়,কিন্তু সবাই প্রকৃতপক্ষে সুখী হতে পারে না।সুখ শব্দের অর্থ হচ্ছে পূর্ণতা, প্রেম, পুলক,উল্লাস, আহ্লাদ ইত্যাদি।

সুখের নির্দিষ্ট সংজ্ঞা নির্ণয় করা খুবই দুরূহ ব্যাপার, সুখ একটা আপেক্ষিক বিষয়।সুখ সম্পূর্ণ নির্ভর করে মানসিকতার উপর।সঠিকভাবে সুখের পরিমাপ করাটাও অত্যন্ত কঠিন । সুউচ্চ ইমারতে বসবাস করলেই যেমন সুখী হওয়া যায় না,ঠিক তেমনই ছোট্ট ভাঙা কুটিরে থাকা মানেই অসুখী নয়।

বহু মানুষকে বলতে দেখেছি জীবনে সুখ নেই, এই সুখ সুখ করতে করতেই নিজেকে তারা অসুখী করে তোলে। সুখের অভাব অনুভব করাই মূলত অসুখী হওয়ার মূল কারণ। আবার বহু মানুষকে দেখেছি সামান্য কিছু নিয়ে হাসি মুখে জীবন কাটিয়ে দিতে।তারা সুখের অভাব অনুভব করে না বলেই তারা সুখী। সুখের প্রকৃত আবাসস্থল হচ্ছে মন।

সুখী হওয়া সহজ নয় আবার কঠিন কিছু ও নয়।কিছু উপায় অবলম্বন করলে সুখী হওয়া সম্ভব-

১) সব সময় প্রাপ্তির হিসাব করুন, তাহলে মনের মধ্যে অসুখী ভাবটা চলে যাবে। অপ্রাপ্তির হিসাব মন থেকে ঝেড়ে ফেলে দিলে অবশ্যই সুখী হবেন। তখন নিজেকে অসুখী

২) তাদের নিয়ে একটু ভেবে দেখুন, যাদের শক্তি সামর্থ্য আপনার থেকে কম।বুঝতে পারবেন সৃষ্টিকর্তা আপনাকে কতটা সুখে রেখেছেন।

৩) যতটা পারা যায় নিজের কাজে ব্যাস্ত থাকুন,তখন নিজেকে অসুখী ভাবার অবকাশ থাকবে না।ব্যাস্ত থাকলে নিজেকে অনেকটা সুখী রাখা সম্ভব।

৪) সম্ভব হলে পরোপকার করুন তাতে অনেকটা মানসিক তৃপ্তি আছে। এই উপকার গুলো আপনাকে দিন শেষে অনেকটা সুখী করবে।

৫) নিজেকে অসুখী ভাবা বাদ দিন তাহলেই সুখ অনুভব হবে। নিজেকে অসুখী ভাবায় কোনো সুখ নেই তাই অসুখী ভাবা বাদ দিন।

এই কাজগুলো করার অভ্যাস হলে নিজেকে অনেকটা সুখী মনে হবে।তাই নিজেকে সুখী হিসেবে ভাবুন।তাহলেই সুখী হতে পারবেন।

আরও পড়ুন