প্রবাসীদের বউ কেন চলে যায়?

পান্না চৌধুরী

বউ কি শুধু প্রবাসীদেরই চলে যায়!?নাকি দেশে যারা থাকেন তাদের বউও যায়? আসলে যে চলে যাওয়ার সে যাবেই। এখন প্রশ্ন হল কেন যায়?
আমাদের দেশের মানুষের মানসিকতা হল যাকে বিয়ে করেছি সে সারাজীবনের জন্য আমার!! মারি কাটি আদর যত্ন করি আর না করি কিন্তু সারাজীবনের জন্য সে আমার থাকতে বাধ্য।এই ধারণার কারণে বউ বেটার অপশন পেলেই ফুরুৎ!

কয়েকদিন আগে আমার হাজব্যান্ডের ইনবক্সে একজন একটা ভিডিও ক্লিপ পাঠালো। সে সেটা আমাকেও দেখতে দিলো।কোন এক অভিনেতা ( নাম জানি না, আমি চিনি না) তিনি আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে ভাষণ দিচ্ছেন। প্রসঙ্গ ছিলো প্রবাসীদের বউ চলে যাওয়া নিয়ে।তিনি প্রবাসীদের বউ চলে যাওয়া নিয়ে খুব কষ্ট পেলেন।আর পরামর্শ দিলেন কি করলে বউ চলে যাবে না!!

“চাইলেই বউকে বড় বড় এ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোন কিনে দিবেন না।ফোন কিনে দিবেন আপনার মাকে। আপনি যখন ভিডিও কল দিয়ে বউয়ের সাথে কথা বলতে চাইবেন তখন মাকে বলবেন ফোনটা বউকে দিতে। আবার কথা শেষ হলে ফোনটা মায়ের কাছে ফেরত দিবে।
বউকে বেশি লাই দিবেন না।তিন/চারটা বছর একটু টাইটের মধ্যে রাখবেন, দেখবেন সব ঠিক”।

ওনার ভাষণ শুনে রাগের সাথে আবার হাসিও পেলো।এমন পরামর্শ দিলেন যাতে বউ আরও আগে চলে যায়!!
প্রতিটা মানুষই ভালোবাসার কাঙ্গাল। প্রকৃত ভালোবাসা পেতে তো সবাই চায়।সত্যিকারের ভালোবাসা পেলে কেন বউ চলে যাবে!!
একজন প্রবাসী বিয়ের পর ১/২ মাস থেকে আবার প্রবাসে চলে যান দীর্ঘ সময়ের জন্য।বউয়ের সাথে প্রেম হওয়ার আগেই তিনি চলে যেতে বাধ্য হন।ঠিক ঐ সময়টাতে যদি প্রেমের পরিবর্তে বউকে টাইট দেন তাহলে সম্পর্কটা কোথায় গিয়ে দাড়াবে?
বউ কি কলকব্জা যে টাইট দিলেই সেটা স্হির হয়ে থাকবে!! তাছাড়া মানুষকে টাইট দিয়ে রাখা যায়!!
যে সম্পর্কটার ভিত্তি হল প্রেম, ভালোবাসা, শ্রদ্ধা আর বন্ধুত্ব। সেখানে এগুলিকে গুরুত্ব না দিয়ে দেয়া হয় শাসনকে!!
একটা মেয়ে তার দীর্ঘ দিনের পরিচিত পরিবেশ ছেড়ে একটা মানুষের হাত ধরে অপরিচিত একটা পরিবারে চলে আসে। সেখানে তার জন্য প্রয়োজন সহানুভূতির হাত, প্রেম, ভালোবাসা আর বন্ধুত্ব।
নতুন পরিবেশে খাপ খাইয়ে নিতেও সময় লাগে।আস্তে আস্তে মেয়েটা যখন বুঝবে তাকে বুকে আগলে রাখার একজন মানুষ আছে, বুক ভরা ভালোবাসা দেয়ার মানুষ আছে তাহলে সে কখনওই অন্যের বুকে আশ্রয় খোঁজার চেষ্টা করবে না।
অথচ যখন সে দেখে চারদিকে তাকে লেবুর মতো চিপার জন্য সবাই রেডি।তার প্রতি কারও কোন সহানুভূতি নাই, বিশ্বাস নাই তখনই সে বেটার অপশন খুঁজে বেড়ায়।আস্তে আস্তে বিতৃষ্ণা হয়েই অন্যের হাত ধরে চলে যায়।
আমাদের দেশে ভাত কাপড়ের চাহিদাকেই শুধু স্বীকার করা হয়।অথচ এর সাথে একজন মানুষের শরীর আর মনেরও যে চাহিদা আছে সেটাকে কখনওই গুরুত্ব দেয়া হয় না।অথচ মানুষ হিসাবে এসব চাহিদাকে অস্বীকার করার কোন সুযোগ নাই।
একটা মানুষ তার ভালোবাসার মানুষকে কাছে পাবে না। ভালো ব্যবহার পাবে না, ভালোবাসার কথা শুনতে পারবে না,সহানুভূতি পাবে না তাহলে কেন সে আপনাকে(বর)ভালোবাসবে? কেন সে আপনার জন্য বছরের পর অপেক্ষা করবে?ঠিক কি কারণে? আপনি তাকে বিয়ে করে দয়া করেছেন সেজন্যে?!!আপনি কেন ধরেই নিচ্ছেন সে আপনার কাছেই থাকতে বাধ্য!!
সত্যি কথা হল মেয়েরা এখন আর আগের মতো নাই। তারা নিজেকে চিনতে পারছে,বুঝতে পারছে, নিজেকে সম্মান করতে শিখেছে।আপনার থেকে বেটার অপশন পেলে তারা কেন যাবে না!! তাহলে আপনি আপনার বউকে ধরে রাখতে পারছেন না!!

সেম অবস্হা শুধু প্রবাসীদের বেলায় না দেশের হাজব্যান্ডদের বেলায়ও।প্রবাসেও অনেক দম্পতি আলাদা হয়ে গেছেন।অনেকের বউ অন্যের হাত ধরে চলে গেছে।এখানে মুল কারণ হল বউকে শাসনে রাখার মানসিকতা।আপনার হুকুমের বাহিরে তার এক কদম চলার ক্ষমতা না থাকা।
তাই আমি মনে করি হাজব্যান্ডদের চিরাচরিত মানসিকতা থেকে বের হয়ে আসতে হবে।বউকে সম্পত্তি মনে না করে সম্পদ মনে করুন। সম্পর্ককে সুন্দর করার জন্য প্রতিদিন এর যত্ন নিতে হয়।বউকে বিশ্বাস করুন, ভালোবাসুন। তার পাশে বন্ধুর মতো দাড়ান। তার ভুলগুলিকে শুধরে দিন। দেখবেন আপনার চেয়ে শত গুন বেটার অপশন পেলেও সে তাদের দিকে ফিরেও তাকাবে না।।

লেখকঃ প্রবাসী বাংলাদেশী, ইতালি

 

আরও পড়ুন
২ মন্তব্য
  1. রেজাউল করিম বলেছেন

    সুন্দর লেখা । বেশ ভালো লাগলো ।

  2. মো: মোতাছিম বিল্লাহ বলেছেন

    উপরের লেখায় একটি সংলাপ – ” বউকে সম্পত্তি নয়, সম্পদ মনে করুন”।
    আমার বহুদিনের প্রশ্ন: সম্পদ ও সম্পত্তির মধ্যে পার্থক্য কি?? HSC -এর বইয়ের হৈমন্তি গল্পটি আমার ভীষণ প্রিয় একটি ছােট গল্প। সেখানে একটি সংলাপ ছিল – “সে আমার সম্পদ নয়, আমার সম্পত্তি”। সেই থেকে এখনো পর্যন্ত আমি এ দুটির মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারিনি। নিশ্চয় এদু’টির মধ্যে কোন বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ অর্থ রয়েছে। কেউ জানলে দয়া করে শেয়ার করুন।

উত্তর বাতিল করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.