শীতের জয়গান

ইব্রাহীম খলিল
শীত এসেছে লাগলো কাঁপন
লাগলো দোলা প্রাণে,
শীত এসেছে হিমেল হাওয়া
আনন্দ আর গানে।
বিশাল মাঠে সরষে ফুলের
অবাধ ছড়াছড়ি,
ভ্রমরগুলো মধুর খোঁজে
করছে ঘোরা-ঘুরি।
শিউলি তলায় ভোর বেলায়
ছেলে-মেয়ের মেলা,
এই ফুলেতে কত শত
গাঁথবে তারা মালা।
শীত এল তার হিম-কুয়াশা
সাদা চাদর নিয়ে,
শীত এলো গুটি-গুটি
হামাগুড়ি দিয়ে।
শীত এলো তাই রসের হাড়ি
খেজুর গাছে ঝোলে,
এই রসেতে পিঠা হবে
ভাবতেই মন দোলে।
খেজুর গুড়ের কথা ভেবে
জিবে আসে পানি,
এই গুড়েতে ভাপা পিঠা
তুলনা নেই জানি।
শীতের তরে সাজলো আকাশ
ভিজলো যে তার জলে,
তারই সাথে ভিজলো যে ঘাস
শিশির কনার ঢলে।
শীতের সময় গ্রামগুলোতে
যায় পরে যে সারা,
যাত্রা-পালা শুরু হবে
আনন্দ তাই পাড়া।
শীত সকালে আলসেমিতে
চায়না কাটতে ঘুম,
সকাল বেলার মিষ্টি রোদ
দেয় কপালে চুম।
মিষ্টি রোদের মিষ্টি পরশ
শীতকে তাড়ালো,
হিমকুয়াশার শীত বেলা তাই
লাগে বড় ভালো।
হিমশীতল সন্ধে বেলায়
গায়ে দিয়ে চাদর,
জটলা করে বসে সবাই নেই
আগুনের আদর।
হিমশীতল শীত আসে হায়
রসের হাড়ি নিয়ে,
যাওয়ার সময় কোকিলের সুর

কবিঃ সাহিত্যিক ও কলামিস্ট 

আরও পড়ুন