মহাযাত্রা

ফারহানা শরমীন জেনী

দূর বহুদূর হতে ভেসে আসে
কর্পূরের প্রকট গন্ধ সাথে লোবান
আর আতরের মন খারাপ করা এক সুগন্ধ।
আমি তার মাঝে খুঁজে ফিরি গভীর দুটি চোখ যে চোখে আজ ভাসছে স্মৃতি সাথে পাথুরে জীবনের বোবাকান্না।
আমি বৃষ্টি ধোঁয়া সফেদ কাপড়ে মোড়া নিশ্চল এক নিদ্রাহীন নিদ্রায় আচ্ছন্ন। ছন্নছাড়া পড়ে আছে সমস্ত ব্যাস্ততা আর হিসেবের খাতাটা বেহিসাবি হিসেবে ঠাসা।
জীবনের বলগাহীন ছোটাছুটি আর এগুনোর নিরন্তর প্রতিযোগিতার বাসনা ছেড়ে শ্বাসহীন আমি চোখ মুদে চির বিশ্রামের বিছানায়। পৃথিবীর কোন ব্যাস্ততা আজ ছোঁবে না আমায়।
আজ যে মহাযাত্রার আয়োজন তা নিয়ে ভেবেছি কখনও পড়ে না মনে তেমন।
অন্ধকার ঘরের আলোর প্রস্তুতি নিতে ভাবিনিত আগে শুধু ভেবেছি এ পৃথিবীর ঝাড়বাতি যেন সাজে আমার আধিপত্যে।
মহাযাত্রার এক অসহায় যাত্রী আমি শুধু চিৎকার করে বলতে চাচ্ছে এ মন “হে পৃথিবীর মানুষেরা নোঙর ফেল সাজাও তোমার মহাযাত্রার গন্তব্যকে বর্ণালী সাজে নশ্বর পৃথিবী শুধুই ময়া; পার্থিব থেকে যেতে হবে অপার্থিবে আসল হিসাবের রোজ নামচা নিয়ে। “

ফারহানা শরমীন জেনী কবি।

১৬/০১/২০২০
রাজশাহী

আরও পড়ুন