সব মনে রাখা হবে

(“সাব ইয়াদ রাখা জায়েগা”) মূললেখকঃ মীর আজিজ

ভাবানুবাদেঃ জুম্মি নাহদিয়া

সব মনে রাখা হবে
সব কিছু মনে রাখা হবে।
তোমাদের লাঠি আর গুলিতে আমার সকল বন্ধুর খুন,
তাদের স্মরণে হৃদয়ের সমস্তটুকু স্থবির করে রাখা হবে।

সব মনে রাখা হবে
সব কিছু মনে রাখা হবে।
আর সত্যকে তোমরা মিথ্যা লেখো জানি সেটা,
আমাদের রক্ত দিয়ে হলেও সত্যটা লেখা হবে নিশ্চিত;

সব মনে রাখা হবে
সব কিছু মনে রাখা হবে।
মোবাইল টেলিফোন ইন্টারনেট দিনদুপুরে বন্ধ করে
শীতরাত্রির অন্ধকারে পুরো শহর নজরবন্দী করে
হুট করে আমার শহরে আমার ঘরে হাতুড়ি নিয়ে ঢুকে পড়ে,
আমার মস্তিষ্ক, আমার শরীর, আমার এই ক্ষণজন্মটুকু চুরমার করে দিয়ে
চৌরাস্তার মোড়ে আমার হৃদয়কণাকে হত্যা করে,
সব বুঝতে পেরেও জটলায় দাঁড়িয়ে এভাবে হাসতে পারার
সব মনে রাখা হবে

সব কিছু মনে রাখা হবে।
সব কিছু মনে রাখা হবে,
আর দিনের আলোয় তোমাদের মিষ্টি মিষ্টি কথা সামনে এসে-
আড়ষ্ট জিভে সব কথা জড়িয়ে ফেলা,
রাত নেমে এলেই আবার নিজের অধিকার চাওয়াদের ওপর লাঠি আর গুলি,
আমার ওপর চড়াও হয়ে আমাকেই ফের “আক্রমণকারী“ বলে বেড়ানো

সব মনে রাখা হবে,
সব কিছু মনে রাখা হবে।
কী কী প্রক্রিয়ায় তোমরা স্বদেশ ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র করেছিলে,
মনে রাখা হবে।
এও মনে রাখা হবে কতটা যতনে স্বদেশ গড়ার সুতীব্র আকাঙ্খা আমরা করেছিলাম,

সব মনে রাখা হবে।
ভীরুদের জিকির উঠবে যেদিন দুনিয়ায়
তোমাদের কথা মনে করা হবে,
যতদিন সাহসের জীবন নিয়ে জিকির হবে
নাম নেয়া হবে আমাদের।
কিছু লোক ছিল লোহার হাতুড়ি যাদের সঙ্কল্প ভাঙতে পারেনি
কিছু লোক ছিল যাদের অস্তিত্ব ইজারাদারদের কড়িতে কেনা যায়নি
কিছু লোক নুহের তুফানের পরেও টিকে ছিল
নিজের মরে যাবার খবর আসার পরেও জীবিত ছিল,
কিছু লোক ছিল।
হোক সেটা চোখের পলক ফেলা ভুলে যাওয়া,
হোক জমিনের কক্ষপথে ঘোরা ভুলে যাওয়া,
আমাদের কর্তিত ডানা নির্ভর উড়ে বেড়ানোকে-
আমাদের ভাঙা গলার আওয়াজকে
মনে রাখা হবে।
তোমরা রাত লেখো আমরা লিখবো চাঁদ।
তোমরা জেলে ঢোকাও, দেয়াল ফুঁড়ে লিখবো আমরা।
এফআইআর লেখো তোমরা, আমরাও লিখবো “তৈরি”।
আমাদের খুন করে ফেলো, প্রেত হয়ে লিখবো তবু,
খুনি তোমাদের হত্যাকর্মের সমস্ত প্রমাণ লিখবো।
আদালতে বসে তামাশা লেখো
আমরা দেয়ালে লিখে রাখবো “ইনসাফ”।
এতটাই উচ্চকণ্ঠে পড়বো যে বধিরও শুনতে পাবে
স্পষ্ট লিখবো এতটাই যে অন্ধও পড়ে ফেলতে পারবে।
কালো পদ্ম লেখো, লাল গোলাপ লিখবো আমরা;   যমিনে জুলুম লিখো, আসমানে লেখা হবে “বিপ্লব”।

সব মনে রাখা হবে,
সব কিছু মনে রাখা হবে।
তোমাদের নামে যাতে লানত পৌঁছে দেয়া যায়,
তোমাদের চেহারায় যাতে কালিমার পোঁচ দেয়া যায়,
তোমাদের নাম তোমাদের চেহারা আবাদ রাখা হবে।

সব মনে রাখা হবে,
সব কিছু মনে রাখা হবে।

জুম্মি নাহদিয়া কবি,  সাহিত্যিক ও অনুবাদক।

নোটঃ

জামিয়া মিল্লিয়ার ছাত্র আমির আজীজের “সাব ইয়াদ রাখা জায়েগা” চলমান ভারতের সিএএ বিরোধী আন্দোলনের উত্তাল সময়ে লেখা একটি কবিতার নাম। 

কবিতাটি মোদী এবং মোদী সরকারের বর্ণবিদ্বেষ, ফ্যাসিজম, ভয়াবহ জুলুম নির্যাতনের বিরুদ্ধে অন্যতম শক্তিশালী উচ্চারণ। গত ২২ শে ফেব্রুয়ারি  উইকিলিক্সের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাশেঞ্জের মুক্তির দাবীতে লন্ডনের পার্লামেন্ট স্কয়ারের প্রতিবাদ মঞ্চে জনপ্রিয় রকব্যান্ড পিঙ্ক ফ্লয়েডের  কো ফাউন্ডার এবং গিটারিস্ট রজার ওয়াটার্স “সাব ইয়াদ রাখা জায়েগা”র ইংরেজী অনুবাদের কিছু অংশ পড়ে শোনান।  

Kill us, we will become ghosts and write

of your killings, with all the evidence.

You write jokes in court;

We will write ‘justice’ on the walls.

We will speak so loudly that even the deaf will hear.

We will write so clearly that even the blind will read.

You write ‘black lotus’;

We will write ‘red rose’.

You write ‘injustice’ on the earth;

We will write ‘revolution’ in the sky.

আরও পড়ুন