যে কারণে আমির খানের প্রতি রুষ্ট তার ভারতীয় ভক্তরা

রেজাউল করিম মুকুল

‘লাল সিং চাড্ডা’ আমির খানের সিনেমা। প্রচার প্রচারণা ভারতীয় মিডিয়া বিনে পয়সায় করে দিয়েছে।

সেই সপ্তম শতাব্দীতে মোহাম্মদ বিন কাশিমের সিন্ধু বিজয়ের তিনশত বছর পরে ১১৯১ ও ১১৯২ খ্রিঃ পৃথিরাজ দিল্লীর অদুরে তারাইনের যুদ্ধে তুর্কি সেনাপতি মোহাম্মদ ঘোরীর হাতে যে ভারত তুলে দিলেন তা ১৮৬২খ্রিঃ বাহাদুর শাহ পর্যন্ত মুসলমানদের শাসনেই ছিলো। এই ভারত হাজার বছর ছিলো বৌদ্ধদের, দু’শ বছর ছিলো ইংরেজদের শাসকরা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করেন নাই।

করোনাকালিন লক ডাউন সমস্যা ও সিনেমার রিমেকিং এর প্রয়োজনে এ মাসের প্রথমার্ধে বলিউডের সিনেমা নায়ক আমির খান তার সুটিং টিম নিয়ে তুরস্কের বিভিন্ন লোকেসনে চলচিত্রায়ন করেন। সুটিং প্যাক আপ করার আগে আমির খান তুরস্কের ফাষ্ট লেডি ইমিনি এরদোগানের সাথে সাক্ষাৎও করেন। এটা ছিলো খুব স্বাভাবিক একটা কৃতজ্ঞতা ও সৌজন্যবোধ। পৃথিবীর সব দেশেই ফকির থেকে রাজা রানী সিনেমা তারকাদের প্রতি কৌতুহল সবারই সমান। ভারতে শাহরুখ খানকে পুঁজো দেয় ভক্তরা। তুরস্কের ফাস্ট লেডিও ব্যতিক্রম নন। তিনি থ্রি ইডিয়টস সিনেমাটি অনেকবার দেখেছেন। এবার আমির খানকে কাছে পেয়ে এতটাই খুশি ও বিমোহিত হন যে সাথে সাথে তার ভেরিফায়েড অফিসিয়াল পেজে টুইট করে লিখলেন, “I had the great pleasure of meeting @aamir_khan, the world-renowned Indian actor, filmmaker, and director, in Istanbul. I was happy to learn that Aamir decided to wrap up the shooting of his latest movie ‘Laal Singh Chaddha’ in different parts of Turkey. I look forward to it!”

তুরস্কের ফার্স্ট লেডির সাথে ছবি দেখে মাথা নষ্ট, তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলো ভারতের মিডিয়া। খোঁজ খবর কিছু না করেই চাউর করে দিলো খবর শত্রু দেশে কেন আমির খাঁন? শত্রু দেশের ফাস্টলেডির সাথে কিসের আলাপ আলোচনা?

শত্রু কেন? কারণ তুরস্ক পাকিস্তানের বন্ধুদেশ। পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া ও তুরস্ক যুদ্ধ-চুক্তি করেছে। সাথে আছে চীন, উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়া।

ভারতীয় সংবিধানে কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা ৩৭০ ও ৩৫এ ধারা বিলুপ্তির বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে খোলামেলা সমর্থন করেছে তুরস্ক। তাছাড়া সবাই ওআইসির মুসলিম দেশ। ভারতীয় পার্লামেন্ট সংবিধানের ৩৭০ নং ধারা সৃষ্টি করে সর্বসম্মতভাবে জম্মু ও কাশ্মিরকে বিশেষ শায়ত্বশাসনের অধিকারও দিয়েছে। জাতি সংঘের ১১৭২ নং সিদ্ধান্ত এবং নিরাপত্তা পরিষদের ৪৭ নং সিদ্ধান্ত এটিকে সমর্থনও করেছে। ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা ও সংযুক্তি ৩৫এ উপধারার মৃত্যূ নাই । কাশ্মীরের ভারতভুক্তি ছিলো সাময়িক ও শর্ত সাপেক্ষ। শর্তটি ছিলো কাশ্মিরের জনগণের ইচ্ছা, যার অপর নাম গণভোট। ভারত ৭০ বছরেও সেই গণভোটটি করতে আগ্রহী হয় নাই। ৩৭০ ধারা বাতিলের সাথে সাথে কাশ্মীর আর ভারতের নয়। কারণ Article 370 allows its own death by permitting plebiscite. Article 370 is the only link that connects Jammu and Kashmir to India. ভারত নিজেই তার ১৯৪৭ সালের সাংবিধানিক অধিকার বাতিল করেছে। ভারত এখন গায়ের জোরে কাশ্মীরের দখল নিয়ে রেখেছে মাত্র।

আগামীতে তুরস্ক চীন-পাকিস্তান জোটেই থাকবে।পৃথিবীর ভূস্বর্গ কাশ্মীর এখন পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়াল জনপদ/ কাশ্মীর কোনদিনই ভারতের অংশ ছিলো না। দীর্ঘ প্রতারণা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ভারত শেষ পর্যন্ত কাশ্মীর দখল করে নিয়েছে। মহারাজা থেকে মোদিজি, ভারত স্বাধীনতার আগে থেকেই স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরিরা রাস্তায় নেমেছে, নির্মম গণনির্যাতনের শিকার হয়ে আসছে। জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অষ্ট্রেলিয়াসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এক ডজন মধ্যস্থতা, প্রচেষ্টা ভারত ছল চাতুরি করে প্রত্যাখান ও বাধাগ্রস্হ করেছে। কাশ্মীর নিয়ে চীন-ভারত-পাকিস্থানের মধ্যে আজকের যুদ্ধের একটাই কারণ কাশ্মীর এবং এর অনিবার্য পরিনতি যুদ্ধ।

এটাই কাশ্মিরের ইতিহাস, এই ইতিহাস রাজা বাদশা নয়, কাশ্মীরের গণমানুষের কথা বলছে। শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে পারবেন না কোন পক্ষই। পৃথিবীর ভূস্বর্গ কাশ্মীর এখন পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর যুদ্ধক্ষেত্র-নয়া পানিপথ। শুধু তুরস্ক নয় কাশ্মীরিদের পক্ষে পৃথিবীর সব দেশ, বিপক্ষে শুধু ভারত এবং কিছু অস্ত্র বিক্রেতা দেশ।

তিনি তথা কাজ করলে একেবারে পারফেক্ট না হওয়া পর্যন্ত কিছুতেই হাল ছাড়েন না। সে কারণে সবাই বলেন বলিউডের মিস্টার পারফেকশনিস্ট। কাজ করার ধরণও একেবারেই আলাদা। শ্যুটিংয়ের ফাঁকেই ফ্যানদের সেলফি আবদার মিটিয়েছেন আমির। সেই ছবিই ভাইরাল হয়েছে।
১৯৮৬ ‘সালে ফরেস্ট গাম্প’ উপন্যাসটি লিখেছেন মার্কিন লেখক উইনস্টোন গ্রুম। পরে ১৯৯৪ সালে সেটি নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন পরিচালক রবার্ট জেনাকিস। মুক্তির পর থেকে টম হ্যাঙ্কস অভিনীত এ ছবি সেরা ছবি, সেরা পরিচালনা এবং সেরা অভিনয়-সহ আরও তিনটি বিভাগে মোট ছয়টি অস্কার জিতে নিয়েছে। সেই অস্কারজয়ী ‘ফরেস্ট গাম্প’-এর রিমেক তৈরি করছেন আমির খান। নাম ‘লাল সিং চাড্ডা’। ছবিটি প্রযোজনার পাশাপাশি এতে অভিনয় করতেও দেখা যাবে আমিরকে। এই ছবিতে করিনা কপুরকেও দেখা যাবে। সে কারনেই বলিউডের সিনেমা পাড়ার লোকেরা ডাকে মিস্টার পারফেকশনিস্ট। ৫৪ বছরের এই অভিনেতা এখন ‘লাল সিং চাড্ডা’র শ্যুটিং পরবর্তি আনুসাঙ্গিক কাজ নিয়ে অসম্ভব ব্যস্ত। আর প্রচার প্রচারণা ভারতীয় মিডিয়া বিনে পয়সায় করে দিয়েছে।

লেখকঃ কলামিস্ট

 

আরও পড়ুন