গোল্ডেন উইক বা সোনালি সপ্তাহ কী?

এটিএম রফিকুল ইসলাম

এপ্রিলের শেষের দিকে, ২৯শে এপ্রিল থেকে মে মাসের শুরুতে, ৫ মে পর্যন্ত এই পুরো সপ্তাহটা জাপানে গোল্ডেন উইক (Golden Week) নামে পালিত হয়। এই গোল্ডেন উইকে প্রায় এক সপ্তাহের জন্য ছুটি হয়ে যায় জাপানের সব স্কুল,কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সকল সরকারি অফিস,দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া সকল কোম্পানি,বন্ধ হয়ে যায় জাপানের সব কর্মসংস্থান ।
এই সময় বেশির ভাগ মানুষ পুরো সপ্তাহের জন্য, যে যার মতো, ঘুরতে যায়। ট্রেন, বিমানবন্দর এবং দর্শনীয় স্থানগুলিতে গোল্ডেন উইকের সময় খুব বেশি ভিড় হয়। যদিও করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাব এর কারণে এবারের প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ ভিন্ন।

জেনে নেয়া যাক, এই গোল্ডেন উইক আসলে কি? মূলত গোল্ডেন উইক হলো এমন একটি উইক বা সপ্তাহ যেখানে সপ্তাহের সাত দিনের মধ্যে চার দিনই জাতীয় ছুটির দিন (ন্যাশনাল হলিডে )।
জাতীয় ছুটির প্রথম দিনটি ২৯ শে এপ্রিল শুরু হয়, এটি সম্রাট শোয়ার জন্মদিন হিসাবে পালন করা, যিনি ১৯৮৯ সালে মারা যান।

গোল্ডেন উইকের জাতীয় ছুটির দিনগুলি হ’ল:
ক. ২৯ এপ্রিল:শোয়া ডে (শোয়া নো হাই):
২৯ এপ্রিল প্রাক্তন সম্রাট শোয়ার জন্মদিন, যিনি ১৯৮৯ সালে মারা গিয়েছিলেন। ২০০৬ অবধি এই দিনটি গ্রীনারি ডে নামে উদযাপিত হত।

খ. ৩ মে:
সংবিধান দিবস (কেনপো কিনেনবি): ১৯৪৭ সালের এই দিনে নতুন যুদ্ধোত্তর সংবিধান কার্যকর করা হয়েছিল।

গ. ৪ মে: গ্রিনারি ডে (Greenery day) (মিডোরি কোনও হাই):২০০৬ সাল অবধি, গ্রিনারি ডে প্রাক্তন সম্রাট শোয়ার জন্মদিন ২৯ এপ্রিল পালিত হত। কিন্তু এখন ২৯ এপ্রিল শোয়া ডে পালিত হয়। দিনটি পরিবেশ এবং প্রকৃতির জন্য উৎসর্গীকৃত , কারণ সম্রাট গাছপালা এবং প্রকৃতি পছন্দ করতেন। সবুজ দিবস ঘোষণার আগে, ৪ মে একটি আইনের কারণে জাতীয় ছুটি হত, যা পরে একটি দিন হিসাবে ঘোষণা করা হয়। কেননা এইদিনটি দুটি জাতীয় ছুটির (৩ মে ও ৪ মে) দিনের মধ্যে পরায় এটি ও ছুটি হিসাবে ঘোষনা করা হয় এবং গ্রীনারি ডে হিসাবে নামকরন করা হয়।

ঘ. ৫ মে: শিশু দিবস (কোডোম নো হাই): এই দিনটি জাপানে শিশু দিবস হিসাবে উদযাপিত হয়। এইদিনে জাপানিজ পরিবারগুলি তাদের ছেলেদের স্বাস্থ্য এবং ভবিষ্যতের সাফল্যের জন্য প্রার্থনা করে। এক্ষেত্রে তারা কার্প স্ট্রিমারদের ফাঁসি দিয়ে এবং সামুরাই পুতুলগুলি প্রদর্শন পূর্বক দিনটি উদযাপন করে ; এটা হল তাদের ছেলেদের জীবনে শক্তি এবং সাফল্যের প্রতীক।

এখানে উল্লেখ্য যে, গার্লস ফেস্টিভাল ৩ মার্চ উদযাপন করা হয়।

লেখকঃ কলামিস্ট ও  শিক্ষক, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় এবং পিএইচডি গবেষক, হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়, জাপান।
০৫.০৫.২০২০

আরও পড়ুন