যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের জীবনের গল্পটা কেমন?

মহীয়সীঃ
কমলা হারিস যে কিনা কৃষ্ণাঙ্গ, এবার হয়েছেন শ্বেতাঙ্গদের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট । হিলারি ক্লিনটন যেখানে রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক অভিজ্ঞতা বিবর্জিত ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে নির্বাচনের দৌড়ে হেরে গিয়েছিলেন সেখানে এবার ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রে ইতিহাস গড়লেন আমেরিকার নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের রানিং মেট কমলা হ্যারিস । তার জীবনের গল্পটা কেমন ? নীচে কিশু পয়েন্টের আলোকে জানবো আমরা।

কেন আলোচনায়?
১১ আগস্ট অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন কমলা হ্যারিসকে তার নির্বাচনি জুটি হিসাবে বেছে নিলেন৷ কমলা হলেন প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী এবং প্রথম এশিয়ান অ্যামেরিকান যাকে নির্বাচনি জুটি হিসাবে বাছলেন কোনো প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রার্থী৷ ফলে বাইডেন জিততে পারলে কমলাও ইতিহাস গড়বেন৷ প্রথম নারী, প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ও প্রথম এশিয়ান অ্যামেরিকান হিসাবে ভাইস প্রেসিডেন্ট হবেন তিনি৷

জন্ম ও পরিবার
৫৫ বছর বয়সি কমলার বাবার জন্ম জ্যামাইকায় এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত ইন্ডিয়ান অ্যামেরিকান৷ অর্থনীতিবিদ বাবা ও জীববিজ্ঞানী মায়ের সন্তান কমলার রয়েছে মায়া নামের এক বোন৷ কমলার জন্ম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওকল্যান্ড শহরে৷ কৃষ্ণাঙ্গ সংখ্যাগরিষ্ঠ পাড়ায় দীর্ঘদিন থাকার পাশাপাশি তামিল মা ও জ্যামাইকান বাবার মিশ্র ঐতিহ্যকে সাথে নিয়েই বেড়ে ওঠা কমলার৷

স্কুল জীবন
ক্যালিফোর্নিয়ার শহর বার্কলের কৃষ্ণাঙ্গ সংখ্যাগরিষ্ঠ পাড়ায় বাস করলেও কমলা পড়তেন অভিজাত থাউজেন্ড ওকস স্কুলে৷ সেই স্কুলে এক সময় ৯৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ছিলেন শ্বেতাঙ্গ৷ বর্ণভিত্তিক পৃথকীকরণের নীতি রদ হবার পর এই চিত্র বদলে যায়৷ কমলা যখন সেই স্কুলে ভর্তি হন, তখন সেখানে মোট শিক্ষার্থীর ৪০ শতাংশ ছিল কৃষ্ণাঙ্গ৷ কিছুদিন মায়ের সাথে ক্যানাডায় ছিলেন কমলা৷

বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্পণ
হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও অর্থনীতিতে স্নাতক হবার সময়ে নানা ধরনের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতেন কমলা হ্যারিস৷ ছবিতে বান্ধবী গোয়েন ভিটফিল্ডের সাথে তাকে দেখা যাচ্ছে অ্যাপারথাইড বা বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে একটি সমাবেশে অংশগ্রহণ করতে৷ ছবিটি ১৯৮২ সালের৷ ১৯৮৬ সালে স্নাতক হবার পর আইনে স্নাতকোত্তর স্তরে পড়াশোনা করেন তিনি৷

কমলার পরিবার
ক্যালিফোর্নিয়ার আইনজীবী ডগলাস এমহফকে ২০১৪ সালে বিয়ে করেন কমলা৷ ডগলাসের আগের পক্ষের দুই সন্তান রয়েছে, কোল ও এলা, যাদের কমলা হ্যারিসের সাথে বিভিন্ন রাজনৈতিক সমাবেশেও দেখা যায়৷
রাজনীতিতে প্রবেশ
২০০৩ সালে প্রথম নারী ও কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি হিসাবে ক্যালিফোর্নিয়া অ্যাটর্নি জেনারেল পদে নিযুক্ত হন তিনি৷ তখন থেকেই ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সাথে তার সম্পৃক্ততা বাড়তে থাকে৷ পরে ২০১৭ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার জুনিয়ার সেনেটর পদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন ও জয়ী হন৷

উত্তরণ
সেনেটর হিসাবে তার ধারালো প্রশ্ন করার ক্ষমতা বারবার আলোচিত হয়েছে সংবাদমাধ্যম ও সোশাল মিডিয়ায়৷ টানা দুই টার্ম ধরে সফল অ্যাটর্নি জেনারেল হিসাবে তার কাজও আলোচিত হয়েছে এতদিন৷ শুধু তাই নয়, বিভিন্ন টেলিভিশন অনুষ্ঠানে নিজের মিশ্র ঐতিহ্য বিষয়ে সাবলীল আলাপ তাঁকে জনসাধারণের কাছে আরো জনপ্রিয় করে তোলে৷ এছাড়া, সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার তাঁর প্রতি সমর্থনও সাহায্য করেছে বলে মনে করেন অনেকে৷

গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ
সেনেটর পদে নির্বাচিত হবার পর কমলা বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সোচ্চার হয়েছেন৷ সমকামীদের বিবাহের অধিকারের পক্ষে, মৃত্যুদণ্ডের বিপক্ষে থাকার পাশাপাশি কমলা বিভিন্ন সময়ে পুলিশনীতিতে বদলের দাবি তুলেছেন৷ বর্তমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবাদ ও পুলিশের অনৈতিকতা যেভাবে আরো গুরুত্বপূর্ণ হয়ে আলোচনায় উঠে আসছে, সেই পরিপ্রেক্ষিতে কমলা হ্যারিসের নির্বাচনি অংশগ্রহণ যথাযথ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷
ইতিহাস গড়লেন তিনি
কমলা হ্যারিসের হোয়াইট হাউসের উদ্দেশ্যে যাত্রাকে অনেকেই দেখছেন মার্কিন রাজনীতিতে একটি ঐতিহাসিক মোড় হিসাবে৷ অ্যামেরিকায় সর্বোচ্চ পদগুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ ও অন্য বর্ণের নারীদের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে উদ্বুদ্ধ করবে হ্যারিসের জয়৷ বিশেষ করে, ভারতীয় বংশোদ্ভূত অ্যামেরিকানদের মধ্যে কমলার অংশগ্রহণ নিয়ে দেখা যাচ্ছে বিশেষ আগ্রহও৷

সূত্রঃ ডয়েচে ভেলে

আরও পড়ুন