ইরান ও চীনের মধ্যে ২৫ বছরের অর্থনৈতিক পরিকল্পনা গ্রহণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ইরানের প্রতি পশ্চিমা দৃষ্টিভঙ্গিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে খুব শীঘ্রই চূড়ান্ত হতে যাচ্ছে ইরান এবং চীনের মধ্যকার ২৫ বছরের জন্য নির্ধারিত “25-Years Comprehensive Cooperation Plan ”

গতকাল রবিবার ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাভেদ জারিফ বলেন “আমাদের চুক্তির মধ্যে কোন গোপনীয় ইস্যু নেই । যখন এই চুক্তি চূড়ান্ত হবে তখন এর বিস্তারিত জানানো হবে ।”

তিনি আরও বলেন রিভাইভাল অব সিল্ক রোড এর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ।

তিনি আরও বলেন, “আমাদের আচরণে স্বচ্ছতা রয়েছে । তবে সত্যটি হচ্ছে বিশ্বজুড়ে শক্তি (পূর্ব দিকে) স্থানান্তরিত হচ্ছে এবং আমাদের উচিত আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির বাস্তবতাগুলি জানা এবং পশ্চিমা বিশ্বের জয়জয়কারের পরবর্তী যুগের জন্য আমাদের পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।”

“চীনা রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং এবং ইসলামী বিপ্লবের নেতা [আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি) এর মধ্যে বৈঠকে এই চুক্তি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাভেদ জারিফ সংসদের একটি খোলা অধিবেশনে বলেন-

“আমরা জনগণের কাছে বিষয়টি ঘোষণা করেছি। গত বছরের সফরে, আমি এই চুক্তিটি চীনে নিয়েছিলাম এবং এটি ঘোষণা করা হয়েছিল । চীন যখন আমাদের খসড়ার প্রতিক্রিয়া জানায়, আমরা তা ঘোষণা করি এবং যখন চীন আমাদের সাথে আলোচনার বিষয়টি গ্রহণ করে, তখন বিষয়টি ঘোষণা করা হয় ।”

ইরান সরকারের মুখমাত্র আলী রাব্বেই গত ২৩ শে জুন এক প্রেস কনফারেন্সে বলেন- “ইরান ও চীনের মধ্যকার ব্যাপক সহযোগিতার জন্য ২৫ বছর মেয়াদি পরিকল্পনা প্রণয়ন ইসলামিক প্রজাতন্ত্রকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করার যতো প্লট গ্রহণ করা হয়েছিল সেগুলোকে ব্যর্থ প্রমাণ করেছে।”

তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন-“এই পরিকল্পনা ইরানকে বিচ্ছিন্ন করা, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে ইরানের সম্পর্ক ছিন্ন করা এবং অন্য দেশের সাথে সম্পর্ক বাড়ানোর ক্ষেত্রে ইরানের ইচ্ছাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নীতিমালার ব্যর্থতা প্রমাণ করে,” ২১ শে জুন ইরানের সংসদের একটি অধিবেশনে এই ২৫ বছর মেয়াদি পরিকল্পনার খসড়া চূড়ান্ত করা হয় ।  ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন “উইন উইন আপ্রোচের ভিত্তিতে এই পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে”  । তিনি আরও বলেন-“এই সহযোগিতা বৃহৎ ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ উদ্যোগ সহ বেসরকারী প্রকল্পসমূহ এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে ইরান এবং চীনের অংশগ্রহণের জন্য এবং শিল্প, পর্যটন, তথ্য প্রযুক্তি এবং যোগাযোগসহ বিভিন্ন অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিনিয়োগ আকর্ষণ করার একটি সুযোগ সৃষ্টি করবে।” রাষ্ট্রপতির ওয়েবসাইট রুহানির বরাত দিয়ে বলেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়েরকের মুখপাত্র আব্বাস মুছাভি ২৯ শে জুন বলেছেন যে “পচিশ বছরের ইরান-চীন ব্যাপক সহযোগিতা পরিকল্পনার সমগ্র বিষয়বস্তু এখনও চূড়ান্ত হয়নি।এই চুক্তির বিষয়বস্তু চূড়ান্ত হওয়ার পরে প্রকাশ করা হবে।তিনি বলেছিলেন, “এই দলিল দুটি দেশের স্বার্থের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং এটি সম্মানজনক।”

সূত্রঃ তেহরান টাইমস

আরও পড়ুন