বিচার চাই, অন্য ভাই বাঁচাতে চাই

হাসিবুল হাসান অপু

নিহত আবরার ফাহাদ রাব্বি আমার আপন খালাতো ভাই।ওরা দুই ভাই কোন বোন নাই। ছেলেটা এতোটাই ভালো ভালো ছিল যে,নিজের মনটাকে এখনো মানাতে পারছি না যে আমি আমার ভাইটাকে হারিয়ে ফেলেছি যে ভাই নিজে হাতে কখনো খেতো না নিজে একা একা কখনও কোথাও যেতো না সবসময় আম্মু আব্বুর সঙ্গে যেত সবাইকে সে অনেক সম্মান করত ভালোবাসতো আমার মনে হয় না যে ছোট বেলা থেকে আজ অব্দি ও কখনো কারো সাথে বেয়াদবি করেছে। আমার খালামনি তার অনেক স্বপ্ন ছিল আমার খালু তার অনেক স্বপ্ন ছিল ওকে ঘিরে আজ আমি আমার ভাইকে ফেরত পাব না কিন্তু চাইনা আর কোন মায়ের কোল খালি হোক ।চাইনা আর কোন মায়ের স্বপ্ন এভাবে নষ্ট হয়ে যাক ।আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই যাতে অপরাধীরা ভবিষ্যতে আর এ ধরনের অপকর্ম না করতে পারে আজকে হয়তো আপনি ব্যাপারটা এড়িয়ে যাবেন কিন্তু কি গ্যারান্টি দিতে পারবেন কাল আপনার পরিবারের সঙ্গে এমন টা হবেনা সবাই মিলে সোচ্চার হোন ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করুন। নইলে অকালে ঝরে যাবে এরকম মেধাবী প্রাণ।

ভাইটা মেডিকেলে চান্স পেয়েছে,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সে জেনেটিক্সে চান্স পায় কিন্তু খালামণি বলে যে না জেনেটিক্সের পড়লে পারমাণবিক ক্রিয়ার কারণে ক্যান্সার হতে পারে দরকার নাই।আর ভাইটি আমার বলতো ভাই রক্ত দেখলে আমার ভয় লাগে আমি ডাক্তার হতে পারবো না ও বুয়েটে চান্স পেল সবাই মিলে উৎসাহ দিলাম হ্যাঁ তুই পড় । কয়জন আছে এরকম যে বুয়েটে চান্স পায় । তুই ভালো কিছু করবি দেশের জন্য সবাই তোকে মনে রাখবে আর আজকে তুই ভালো কিছু হলে সেটা দেখে তোর ছোট ভাই আরো ভালো হবে ।

আমার ভাই সে তো মারা গেছে কিন্তু একজন মৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে এরকম মিথ্যাচার আল্লাহ সইবে না। আমার ভাই শিবির ছিল না দাড়ি রাখা নবীজির সুন্নত এটার কারণে যদি শিবির হতে হয় তাহলে সারা বাংলাদেশে শিবিরের সংখ্যা কত??? তাকে শিবির সন্দেহে মারধর করা হয়েছে নিজের অনেক কিছুই মনে হচ্ছে কিন্তু কোন কিছুই বলার কোনো ভাষা নাই । আপনাদের সবাইকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি আপনারা এই বিচার চান যাতে এরকম হাজারো মায়ের সন্তান বেঁচে যেতে পারে। সবাই স্বপ্ন নিয়ে লেখাপড়া করতে যায় কিন্তু সেই স্বপ্ন যদি এরকম ভাবে পূরণ হয় তাহলে দেশে গণতন্ত্র থেকে লাভ কি ? যেখানে বিচার ছাত্ররা নিজে করছে আর নিজের শাস্তি দিচ্ছে ।

আবরার ফাহাদের সেই ফেসবুক স্ট্যাটাস যার কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে

মানছি আমার ভাই ফেসবুকে কয়েকটি স্ট্যাটাস দিয়েছে তাই বলে তাকে এই ভাবে মারধর করে হত্যা করতে হবে? বুয়েট বাংলাদেশের সেরা ইউনিভার্সিটি সব থেকে মেধাবীর জায়গা ওটা কিন্তু । এরা কেমন মেধাবী এদের বিচক্ষণতা কতখানি যে এরা এইভাবে পশুর মত মারধর করে একটা জীবন শেষ করে দিতে পারে। এরা কি আদেও পড়তে গিয়েছিল আমার মনে হয় না ।

আমার ভাই বলে যে আমাদের পড়ার এত চাপ যে আমরা বই রিভাইস দেওয়ার সময় ই পায়না। বুয়েটের প্রতিটা ছাত্র যদি দেশের গৌরব হয় তারা যদি দেশের কল্যাণে কাজ করে থাকে,তাহলে আমি চাইবো অবশ্যই আমার ভাইয়ের বিচার হবে কষ্ট লাগে অনেক যেখানে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে সেখানে বুয়েট বলছে মৃত্যু হয়েছে এটা কেমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিক্ষক কি শিক্ষা দেয় ছাত্রদের তারা নিজেদের জেরার উপর ভিত্তি করে একটা জলজ্যান্ত জীবনকে শেষ করে দিতে পারে ।

গতকাল ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ শোনার পর একটা সিনিয়র বড় ভাই সে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে যে ওই হলেরই আরো একটা ছেলের থাপ্পর দিয়ে কানের তালা দিয়ে রক্ত বের করে দিয়েছে দুই দিন আগে। এরকম ছোটখাটো ভুলের যদি বিচার করা হতো তাহলে আজকে আমাদের এই দিনটা দেখতে হতো না ।

রাস্তায় গাড়ি চালালে যদি কোন ড্রাইভার দুর্ঘটনা ঘটায় তখন আমরা ওই ড্রাইভারকে থামাই, যাতে  সে তার ক্ষিপ্ত মন নিয়ে আর কোনো দুর্ঘটনা ঘটাতে না পারে। তাহলে এই যে একটা মেধাবী ছাত্র যেখানে একটা দেশের গৌরব একটা দেশের সম্পদ তাকে এই ভাবে হত্যা করা হলো আজকে।আমি মনে করি আজকে একটা ছাত্র হত্যা করা হলো কাল বাংলাদেশকে হত্যা করা হবে গলা টিপে যদি এরকম চলতে থাকে ।

ছোটরা বড়দের থেকে কিছু শেখে অনেকেরই স্বপ্ন যে বুয়েটে পড়বো । যাদের বুক ভরা স্বপ্ন বুয়েট পড়বে তারা তো এখন থেকেই বুয়েট শিক্ষার্থীদের ফলো করবে। তাহলে কি প্রজন্মকে এটা শিখাচ্ছে বুয়েট।আর ভাইটা কখনো কোন ক্লাসে আজ ফাস্ট ছাড়া সেকেন্ড হয়নি । কুষ্টিয়া জিলা স্কুলে পড়তো সেখানে সে সবার সবার থেকে ভালো রেজাল্ট করে পড়তে যায় ঢাকা নটরডেম কলেজ যেটা বাংলাদেশের মধ্যে নামকরা কলেজ । সেখানেও সে সুন্দর রেজাল্ট করে ।ভাই যখন এসএসসি শেষ করে তখন তো খুশি হয়েছিলাম, ভাই যখন ইন্টারমিডিয়েট শেষ করে তখনও তো খুশি হয়েছিলাম। ভাই যখন বুয়েটে চান্স পেল তখনও খুব খুব খুশি হয়েছিলাম কিন্তু আজকে তো ভাই এর পড়া শেষ,ভাইয়া বুয়েট শেষ করে বেরিয়ে এসেছে। তাহলে আজকে আমরা সবাই কতটা খুশি আমরা চেয়েছিলাম আমাদের ভাই বুয়েট শেষ করে নাম করবে । আমার ভাই শেষ করেছে আর আজকে আমাদের যে চোখের পানি সেটাতো আনন্দের খুবই আনন্দের। চাই না এই আনন্দ আর কারো ঘরে হোক । নতুন প্রজন্ম আমাদের কাছ থেকে কিছু শিখবে এটা আমাদের মাথায় রাখা উচিত।।।।।

আজকে ভাইয়ের হত্যার যদি বিচার না হয় তাহলে কালকে দেখা যাবে এর থেকে বড় ধরনের কোন ঘটনা আবার আমাদের সামনে আসবে । ছেলেটির দাদা ছেলেটির মৃত্যুর সংবাদ পেয়েছে । আজ সে অনেক মুরুব্বী তাই তাকে দেরিতে জানানো হয়েছে। সে যখন শুনলো যে শিবির সন্দেহে তার নাতিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তখন সে কাঁদতে কাঁদতে বলল আমি নৌকা প্রতীককে ভালোবাসি নৌকা যার ভোট তার সে কে তা আমার দেখার দরকার নেই ।এমনকি আমার ছেলে পেলে কখনো নৌকার বাইরে ভোট দেয়নি তাহলে আজকে কেন আমার নাতিকে শিবির সন্দেহে এত মারধর করা হলো।বিচার কে করবে এর? আমিতো বঙ্গবন্ধুর কথাকে ভালবেসে নৌকা বেছে নিয়েছি তাকে ভালোবেসে আমি নৌকা প্রতীককে ভালোবেসেছি । সেই নৌকা প্রতীকেই বরাবর ভোট দিয়েছি। তাহলে আমি আমার নাতি হত্যার বিচার চাই। কে করবে এর বিচার?  এখন আমি বলতে চাই, যদি তাই হয় আমাদের যদি বাঁচতে হয় তাহলে নৌকার সিল কি আমাদের কপালে লাগিয়ে চলতে হবে যাতে আমরা শিবির সন্দেহে না পড়ি।

অনেক বাবা-মা হয়তো আজকে ভাবছেন যে আপনার সন্তানও তো দূরের কত নামকরা ইউনিভার্সিটিতে কিন্তু কখনো কি ভাবছেন হঠাৎ যদি তার কোন খারাপ সংবাদ আসে তখন কি হবে যদি ভেঙে যায় আপনার স্বপ্ন । মাগো আমরা ভাই ভাই তুমি ভাইকে কি শিক্ষা দিয়েছিলে যার জন্য আজকে আমাকে এভাবে জীবন দিতে হলো । এর উত্তর কি??? তাই আজ থেকে বলছি আপনার সন্তানকে আপনি বোঝান যাতে তারা এমন কোন কিছু না করে ।

আজকে আমার ভাই হারিয়েছে। কালকে আমার অন্য ভাই হারাবে আর আমার ভাই হয়ে ভাইয়ের লাশ কাঁধে করে গোরস্থানের দিকে আগাতে হবে । ভাই হয়ে জন্মেছি এটা কি আমার অপরাধ । যারা অপরাধী তাদের যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয় তাহলে আর কেউ কখনও অপরাধ করার কথা চিন্তাও করবে না। একবার ভাবুন যে বুয়েট শুধু নামে না কর্মেও সেই বুয়েটের ছাত্ররা যদি এমন আচরণ করে তাহলে আমরা অন্যান্য ইউনিভার্সিটির যারা আছি তাহলে আমরা নিজেদেরকে কি বলবো,,,,,,, অশিক্ষিত । যারা দেশের রত্ন তারাই যদি কয়লার মত আচরণ করে তাহলে এ দেশ তাদের থেকে কি আশা করতে পারে। যাইহোক আমি আমার ভাইকে ফিরে পাবো না। আমি এটাও চাইনা যে আমি আর কোন ভাইকে হারাই । আমরা এরকম ঘটনা অহরহ দেখে আসি যে, কাউকে কুপিয়ে হত্যা কাউকে পিটিয়ে হত্যা এরকম অহরহ হচ্ছে দেখে আসছি । কয় দিন প্রতিবাদ করেন আর থেমে যান বিচার পাওয়ার আগেই । এই কারণে অপরাধীরা মনে করে যে অপরাধ যাই করি দু-একদিন পর তা ধামাচাপা পড়ে যাবে ।আপনি আমি চুপ করে বসে থাকলে না জানি এরকম আরো কত প্রাণ যাবে আমরা লোকের মুখে প্রায়ই একটা কথা শুনে থাকি এক পাতিল দুধের ভিতরে যদি এক ফোঁটা গোমূত্র পড়ে তাহলে ওই পাতিলের সব দুধ নষ্ট হয়ে যায় ।

এইজন্য বলছি বুয়েটের প্রতিটা ছাত্রই দেশের সম্পদ তাদের ভালোর জন্য তাদের স্বপ্ন পূরণের জন্য তাদের ভালো ভবিষ্যতের জন্য এদের মধ্যে যে খারাপগুলা আছে ওদেরকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দিন । নয়তো ঝরে যাবে এরকম আমার ভাইয়ের মতো প্রাণ আস্তে আস্তে সৎ লোকের কোন অস্তিত্ব থাকবে না।মেধাবীরা আগামী প্রজন্মের জন্য কিছু করতে পারবে না। দেশ আর কখনো ডিজিটাল হবে না । এই পর্যন্তই থেমে থাকবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন কখনো পূরণ হবে না ।

যে বুয়েট নিয়ে আজ মানুষ স্বপ্ন দেখে সেই বুয়েট নিয়ে কাল মানুষ বলবে এটা সন্ত্রাসের আঁতুড়ঘর। তারা বুয়েটের কেমন ছাত্র ছিল যে তাদের ঘরে মদ পাওয়া যেত,চাপাতি পাওয়া যেত ।  এটা কি কখনো কেউ চোখে দেখে নাই আর দেখে থাকলেও কেন এটার প্রতিবাদ করে নাই। যখন শুনলাম আমার ভাই মৃত্যুর সময় মুখে কালিমা বলতে বলতে মারা গেছে ওদের মারের কারণে সে ব্যথা সইতে না পেরে আমার ভাই মৃত্যু সময় পস্রাবও করে ফেলে। আপনারাতো রক্তে মাংসে গড়া মানুষ আপনারাই বলেন এরকম কথা শুনলে একটা ভাইয়ের মন কতটা ভালো থাকতে পারে ।

যারা আমার এই পোস্টটা পড়ে থাকবেন আমি সবার কাছে হাতজোড় করে বলছি যে আপনারা আর কখনো কারো সাথে এমনটা কইরেন না । আপনি হয়তো আপনার রাগটা কমালেন তাকে হত্যা করে। কিন্তু সাথে আরো কতগুলো মানুষের স্বপ্ন যে জড়িয়ে ছিল সেটা তো আপনি ভাবলেন না। এভাবে চলতে থাকলে বিজ্ঞানীরা যা বানিয়ে গেছেন আমরা ওখানেই থাকবো নতুন কোন বিজ্ঞানী জন্ম নেবে না । নতুন কোন উদ্ভাবন আমরা দেখতে পা বো না । বুদ্ধিজীবীরা যা বলে গেছেন আমরা সে পর্যন্তই আছি । নতুন বুদ্ধিজীবীদের আমরা জন্ম হতে দিচ্ছি না। সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব মানুষ এদের বিচক্ষণতা অনেক বেশি এরা ভালো-মন্দ আলাদা করতে পারে। তাহলে কেন এইটা পারে না কাউকে হত্যা করে না, ভালোবাসা দিয়ে বুঝিয়ে কাউকে অবশ্যই ভালো করা সম্ভব । আমার ভাইটা যে আজকে বুয়েটে পড়তো এটা ওর একার প্রচেষ্টা নয় সাথে জড়িয়ে ছিল স্বজনদের প্রচেষ্টাও ।

আর কিছু বলতে চাই না শুধু বলতে চাই আমি আমার ভাইয়ের বিচার চাই নয়তো কালকে আমি আমার অন্য ভাইকে হারাবো । ভাই হয়ে আর ভাইয়ের লাশের বোঝা বহন করতে চাই না খুবই কষ্টকর এটা মহান আল্লাহতালার কাছে প্রার্থনা করি ইতিহাসে আর কোনদিন যেন কোনো বাবা মায়ের এমন দিন না আসে । সবাই আমার ভাইটির জন্য দোয়া করবেন ভাইটি যেন জান্নাত বাসি হয় ।এপারে তো আমার ভাইয়ের সুখ মিললো না পরপারে যেন আমার ভাইয়ের সুখ হয়। আমিন

লেখকঃ নিহত আবরারের খালাতো ভাই

 

আরও পড়ুন

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.