বনসভার প্রথম মুদ্রণ কয়েক দিনেই শেষ !  

মোঃ কামরুজ্জামান জেমস

নতুন বইয়ের ঘ্রাণ সত্যই মনমুগ্ধকর। বইয়ের প্রতি আমি দুর্বল সেই ছোটবেলা থেকে। বিশেষ করে গল্প ও উপন্যাস হলে তো কথাই নেই। ঠিক তেমনি একটি উপন্যাসের নাম বনসভা। রাজশাহী কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র (ব্যাচ- ১২২) আসাদুজ্জামান জুয়েল এর দ্বিতীয় উপন্যাস ‘বনসভা’ বের হয়েছে এবারের বইমেলায়। পেন্সিল প্রকাশনীর এই বইটি পাওয়া যাবে এবারের একুশে বইমেলার ৩১৪ নং স্টলে। প্রথম মুদ্রণ শেষ হয়ে আবার দ্বিতীয় মুদ্রণে বইটি ।

উপন্যাসটিতে মোট ২১ টি অনুচ্ছেদ রয়েছে বা ২১ ধাপে সম্পন্ন হয়েছে।

২১ টি ধাপের ১১ টি ধাপে আলাদা আলাদা বিষয়ের উপর আলোচনা করা হয়েছে বা কাহিনী নির্দেশিত হয়েছে। প্রথম ধাপে হাস কেন পানিতে নামার আগে ঠোঁট দিয়ে প্রথমে পরে সমস্ত শরীর চুলকায় এর সম্পর্কে যুক্তি তুলে ধরা হয়েছে এখানে প্রকৃতি প্রেমের ও উদাহরণ দেওয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় ধাপে স্কুল ছাত্রছাত্রীদের বিভিন্ন অসুবিধার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়াও পরিবেশ বিপর্যয়ের কথাও এখানে উল্লেখ করা হয়েছে।

তৃতীয় ধাপে বিভিন্ন গল্পের মাধ্যমে পড়াশোনার পরিবেশ এর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। চতুর্থ ধাপে বিভিন্ন ছাত্র-ছাত্রীদের নামকরণ ও এর সার্থকতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

পঞ্চম অধ্যায় অনুচ্ছেদে প্রকৃতির পাখি কাক ও সবচাইতে পরিশ্রমী প্রাণী পিঁপড়া নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের পশু পাখি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। ষষ্ঠ অনুচ্ছেদে মৌমাছি ও তাদের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে গল্পের মাধ্যমে।

সপ্তম অধ্যায় কানাডার অধিবাসী বাংলা প্রীতি ও বাংলাদেশিদের নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এ অধ্যায়ে একমাত্র বিশ্বের ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন এ শিক্ষা সফর নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। অষ্টম অধ্যায় আজব আজব কাহিনী নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

নবম অধ্যায় মুহিব সহ অন্যান্য সহপাঠীদের মন খারাপ করার কারণ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। দশম অধ্যায় বর্তমান পৃথিবীর অন্যতম একটি সফটওয়্যার অটোমেটিক ল্যাঙ্গুয়েজ ট্রানস্ফার অ্যাপস ব্যবহার ও ইন্টারনেট এর বিস্তারিত ব্যবহার এর উপর কিছু আলোচনা করা হয়েছে। 11 অনুচ্ছেদে বিভিন্ন ধরনের পশু পাখির নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে এবং তাদের আবাসস্থল সংকটের কথা বলা হয়েছে।

১২ তম অনুচ্ছেদে বিভিন্ন ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা সফরের বিভিন্ন পদ বন্টন নিয়ে আলোচনা করা হয়। ১৩ তম অধ্যায় এ অনেক কিছু রসিকতার মাধ্যমে শিখিয়ে দেওয়া হয়েছে। ১৪ তম অধ্যায় সোনাতলা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা সফরের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার ঘটনাবলী উল্লেখ করা হয়েছে।

১৫ তম অধ্যায় ছাত্রছাত্রীরা নিজেরা ও শিক্ষকদের মধ্যে তারা বিভিন্ন ধরনের আনন্দ উল্লাস প্রকাশ করেছে। ১৬ তম অনুচ্ছেদে সুন্দরবন এলাকার ডাকাতদের দৌরাত্ম্যের বিবরণ দেওয়া হয়েছে। ১৭ থেকে ২১ অধ্যায়গুলোতে সাধারণত বিভিন্ন পশু পাখি, বন্যপ্রাণীদের বিভিন্ন ধরনের অসুবিধা ও এর প্রতিকার সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

বই শেষ না করা পর্যন্ত আমার আর কিছু করতে মন চাইছিলো না যদিও এর মাঝে খাওয়া-ঘুম এসবের প্রয়োজন ছিল। আমার খুব ভালো লেগেছে। আশা করা যায় সকলের ভাল লাগবে। এই বই কিনবেন এবং লেখককে উৎসাহিত করবেন এ আশাবাদ ব্যক্ত করছি।

উপন্যাসের নামঃ বনসভা
লেখক-আসাদুজ্জামান জুয়েল
প্রকাশনী-পেন্সিল প্রকাশনী
প্রথম প্রকাশ – মুজিব বর্ষ, অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০
প্রকাশক-পেন্সিল পাবলিকেশনস
প্রচ্ছদ-তৌহিন হাসান
মূল্য-২২২.০০ টাকা

 

আরও পড়ুন