মালয়েশিয়ার উপকূলে ভয়ে পানিতে লাফ দেয় ২৪ জন রোহিঙ্গা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

গতকাল রবিবার মালয়েশিয়ার একটি কোস্ট গার্ডের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জানা যায় যে  থাইল্যান্ডের কাছাকাছি মালয়েশিয়ার উপকূলে প্রায় দুই ডজন রোহিঙ্গা নিয়ে একটি নৌকাবহর যাচ্ছিল । একজন উপকূলরক্ষী কর্মকর্তা রোববার বলেছেন তাদের মধ্যে শুধু একজন হয়তো বেচে গেছে ।

উত্তরের রাজ্য কেদা ও পেরিলিসের উপকূলরক্ষী প্রধান মোহামাদ জাওয়াবী আবদুল্লাহ বলেছেন, ল্যাংকাউইয়ের রিসর্ট দ্বীপে তীরে বেড়াতে যাওয়ার পরে ২৭  বছর বয়সী নূর হোসেন নামের এক রোহিঙ্গাকেকে পুলিশ আটক করেছিল।

জাভাবি বলেছেন, “পুলিশের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায় যে অবৈধ রোহিঙ্গা অভিবাসী নৌকা থেকে আরো ২৪ জন যাত্রী ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন এবং  তাদের মধ্য থেকে মাত্র একজন তথা নূর হোসেন নিরাপদে সাঁতার কেটে তীরে আসতে পেরেছিলেন,” জাওয়াবি জানিয়েছেন।

অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়েছিল, তবে অন্য একজন কর্মকর্তা এএফপিকে জানিয়েছেন যে কোনও লাশ বা বেঁচে যাওয়া লোকের সন্ধান পাওয়া যায়নি। নৌকার কী হয়েছে তা এখনও পরিষ্কার নয়।

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ মালয়েশিয়া রোহিঙ্গাদের পক্ষে বেশ ভাল গন্তব্য । বৌদ্ধভূমি মিয়ানমারে নির্যাতনের মুখোমুখি হয়ে অনেকে মালয়েশিয়ায় চলে গিয়েছে ।  তবে কর্তৃপক্ষ সাম্প্রতিক মাসগুলিতে করোনা ভাইরাসের ভয়ে তাদের প্রবেশে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

তিন বছর আগে মিয়ানমারে সামরিক ক্র্যাকডাউন এর সময় পালিয়ে আসা ৭ লক্ষের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমানদের মধ্যে অনেকে মালয়েশিয়া এবং প্রতিবেশী ইন্দোনেশিয়ার উদ্দেশ্যে নৌকায় করে চলে যাওয়ার চেষ্টা করেছে বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলায় উপচে পড়া শরণার্থী শিবির ছেড়ে ।

জাওয়াওয়ী জানান, সন্দেহভাজন অঞ্চল অনুসন্ধানের জন্য দুটি উপকূলরক্ষী বিমান ও দুটি নৌকা মোতায়েন করা হয়েছে। রোহিঙ্গাবাহী নৌকাগুলির আগমন বন্ধ করার জন্য করোনাভাইরাস মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকেই মালয়েশিয়ায় সামুদ্রিক টহল বাড়িয়েছে সেখানকার কর্তৃপক্ষ।

সূত্রঃ ডেইলি সাবাহ

আরও পড়ুন