ভূমিষ্ট শিশু নিয়ে কুসংস্কার মুক্ত থাকা

জাহিদ হাসান

সন্তান জন্ম নিয়ে আমাদের দেশে অনেক কুসংস্কার প্রচলিত আছে । এই সকল কুসংস্কার থেকে আমাদের দূরে থাকতে হবে এবং অন্যদেরকে বুঝাতে হবে ।
কারণ অনেক কুসংস্কার শিরকে পরিণত হয়ে যায় যা আল্লাহ কখনো ক্ষমা করবেন না । গ্রামাঞ্চলে এখনো প্রচলিত আছে যে প্রেগন্যান্ট মাকে নিজ ঘর থেকে আলাদা করে দেয়া হয়, তাকে নিম্নমানের একটি আলাদা ঘরে রাখা হয়, তার থেকে বাড়ির মানুষজন দূরে দূরে থাকে, তার ঘরে গেলে ক্ষতি হতে পারে।
এমন মনে করে । এগুলো সবই ইসলামবিরোধী । একটি শিশু যখন ভূমিষ্ট হয় তখন সে এক জগত থেকে অন্য জগতে আসে, তার পরিবেশ পরিপূর্ণভাবে পরিবর্তন হয়ে যায়, সেজন্য তার নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে । অনেকে শিশুর কোন বিষয়ে একটু এদিক সেদিক দেখলেই বলে ফেলে যে তাকে জ্বীনে ধরেছে । এই ধারণা করা ঠিক না বরং অতিসত্ত্বর শিশুকে ডাক্তার দেখাতে হবে এবং কোন কবিরাজের নিকট যাওয়া অনুচিৎ ৷ওরা কুসংস্কারাচ্ছন্ন, ওরা চিকিৎসার কিছুই জানে না ।
তবে বদনজর ও জ্বীন সংক্রান্ত সমস্যা সত্য।
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,বদ নজর সত্য। (বুখারীঃ ১০/২১৩)
অর্থাৎ এর বাস্তবতা রয়েছে, এর কুপ্রভাব লেগে থাকে।এর জন্য ভালো আলেম থেকে রুকইয়াহ করতে হবে।

এছাড়াও ভূমিষ্ট শিশুকে ও নানান রকম শিরকের বেড়াজালে আটকে রাখা হয়।ভূমিষ্ট শিশুর পাশে লোহা রাখা,আগুন রাখা,কপালে কালো টিপ দেয়া,কাইতুন(তাগি) লাগানো সহ ইত্যাদি শিরক আমরা অহরহ করে থাকি।

এছাড়াও ভূমিষ্ট শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াতে বারণ করা হয়, অথচ দুধ না ফেলে শিশুর স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে।

আর একটা কথা,শিশুকে অবশ্যই চেষ্টা করবেন ছবিযুক্ত পোশাক থেকে দূরে রাখতে।

আমাদের শিশুগুলো থাকুক সকল প্রকার কুসংস্কার ও শিরক থেকে মুক্ত।
আমিন।

আরও পড়ুন

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.