বাচ্চা মেয়ের পোশাক নির্বাচনে যেভাবে ভুল করেন মায়েরা

রিতু আদ্রিতুল

আজকের সমাজে খুব অদ্ভুত একটা সংমিশ্রণ দেখা যায় মুমিন নারীদের ক্ষেত্রে।আমরা যারা আল্লাহকে ভয় করে চলতে চাইছি বা কিছুটা হলেও আল্লাহর রাস্তায় চলার চেষ্টা করছি, পর্দা করছি তারা অবলীলায় আমাদের সন্তানদের বিশেষ করে মেয়ে সন্তানদের ওয়েস্টার্ন পোষাক,সাজসজ্জা বা প্রসাধনী ব্যবহার করাচ্ছি শুধু মাত্র বাচ্চা মেয়ে বলে।

আমি অনেক পুরো পর্দানশীন মায়েদের দেখি বাচ্চা মেয়েকে শর্ট স্কার্ট বা মিনি স্কার্ট,লেগিংস,টি শার্ট,হরেক রকম হেয়ার স্টাইল,হেয়ার ব্যান্ড,ব্রান্ডেড জুতো সবকিছু পরিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছি।

অনেকেই হয়তো বলবেন বাচ্চা মেয়ে এখন একটু শখ পূরণ করাই পরে তো আর পারবে না।কিন্তু আমরা একটা জিনিস সহজেই ইগ্নোর করছি তা হল বাচ্চা বয়সেই একজন মানুষের সব সেন্স গ্রো করে, ভালো মন্দের পার্থক্য তৈরি হয়ে যায়, ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠে।তাই ছোট বেলাতে যা অভ্যাস করানো যায়,সেটার ইম্প্যাক্ট সারাজীবন থাকে।

আমরা মা বাবারা যেন ভুল করেও না ভাবি যে মেয়ে সন্তান ছোটবেলায় খোলামেলা পোষাক পরবে সে বড় হয়ে একদম ইসলামের পর্দায় চলে যাবে।হেদায়েত হলে অবশ্যই পরবে কিন্তু ছোট থেকেই যদি একটু সতর্কতা দেখানো যায় পোষাক নিয়ে তাহলে মনের মাঝে সেই পোষাকের বীজ বপন হয়ে যাবে।কিন্তু ছোটবেলাতেই যদি অভ্যাস হয়ে যায় টপ্স,জিন্স বা ওয়েস্টার্ন কিছু তাহলে হঠাৎ করেই সে অভ্যাস চলে যাবে এটা ভাবা বোকামী।

তাই মেয়ে বাবুদের পোষাক সিলেকশনের ব্যাপারে অবশ্যই ছোট বেলা থেকেই খেয়াল রাখতে হবে।লেগিংস,মিনি স্কার্ট, টি শার্ট এগুলো কখনই মুসলিম নারী বা বাচ্চা যেই হোক না কেন তার পোষাক সেন্সের সাথে যাবে না।তাই এগুলোতে ছোট থেকে অভ্যাস না করালেই সবচেয়ে ভালো হয়।

নইলে বড় হলেও ওদের চোখে এই পোষাকই ভালো লাগবে।আর কে জানে শুধু এই একটা কারণেও কেউ কেউ ইসলাম থেকে দূরে চলে যাবে।

রিতু আদ্রিতুলঃ লেখক ও সহকারী অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.