অনুঘটক কিংবা মেন্টরদের কথা

আরেফিন আল ইমরান

শামস তাবরিজের দেখা না পেলে, জালালউদ্দিন রুমী কি তাঁর আত্মশক্তির পরিপূর্ণতা নিয়ে হাজির হতে পারতেন ? রুমীর ভেতরে নিঃসন্দেহে সেই প্রতিভাটা ছিল। মেধার পর্যাপ্ত বারুদও মজুদ ছিল। বাকি ছিল কেবল আগুন দেয়ার কাজটা। তাবরিজ সার্থকভাবে সেটা করেছিলেন। শিষ্যকে যোগ্য করে তুলবার জন্য দিয়েছিলেন—উপযুক্ত পথনির্দেশ। তাঁর বদৌলতেই রুমী বলতে পারলেন— “Stop acting so small. You are the universe in ecstatic motion.”

একদম সহজ করেই বলছি—তিরিশের দশকের কবিরা আসার আগ থেকেই উপমহাদেশে রবীন্দ্রবিরোধী সাহিত্য বলয় গড়ে উঠছিল। সত্যি বলতে কী, নজরুল তাঁর অসামান্য প্রতিভায় কথিত আধুনিক কবিদের বেশ আগেই রবীন্দ্রবলয় ভেঙ্গেছিলেন। রবীন্দ্রনাথ যেমন সেই কিশোর বয়স থেকেই জানতেন যে, তাঁর মাঝে বিশ্বজয়ী একটা প্রতিভা আছে; তেমনি নজরুলও জানতেন রবী ঠাকুরের অপ্রতিহত প্রভাবের বাইরে গিয়ে আলাদা বলয় তৈরীর মত প্রবল শক্তি তাঁর কলমে আছে। এরপরও নজরুলের রবীন্দ্রভক্তিতে ছেদ পড়েনি। তাঁকে ‘গুরু’ বলে সম্বোধন করতে কার্পণ্য করেননি। কারণ, রবীন্দ্রনাথ বাংলা ভাষা, শিল্প-সাহিত্য ও সঙ্গীতে এমনই এক প্রতিভা—যাকে অস্বীকার করা তো দূর, আকার-আয়তন বুঝে ওঠাটাও কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। আবার নজরুল যে মানের প্রতিভা এবং ব্যক্তিত্ব—তা কেবল উপমহাদেশে নয়; বিশ্ব ইতিহাসেই বিরল। অজস্র জায়গা থেকে তিনি উপকরণ সংগ্রহ করেছেন। স্রষ্টা প্রদত্ত প্রতিভার সাথে মিশ্রণ ঘটিয়েছেন পরিশ্রমলব্ধ ঐশ্বর্যের। তাঁরা উভয়েই উভয়কে জানতেন, বুঝতেন। ফলে দুজনের পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধে ঘাটতি ছিলনা কখনোই। বিভাজন, বিভেদ আর কাদা ছোঁড়াছুঁড়ির কাজটা করেছে প্রতিভাহীন স্তাবকগোষ্ঠী আর সাম্প্রদায়িক সংকীর্ণতায় আবদ্ধ বাঙালি সমাজ। এরা তারাই, যারা কখনো কোনো বিষয় নিয়ে গভীরভাবে ভাবেনা, নিজেরা পড়াশোনা বা গবেষণা করেনা। অন্যের মুখ থেকে শুনে গুজব তৈরী আর কুৎসা রটনাই যাদের কাজ।

যাই হোক, আলোচনা সংক্ষিপ্ত রাখতে হবে। মূল কথা—প্রতিভা বিকাশের পথে মেন্টর বা গুরু লাগে। লালনের জন্য যেমন— সিরাজ সাঁই, বাংলা আধুনিক গানের মুক্তিদাতা হিসেবে যেমন—কবীর সুমন, বিশ্ব সঙ্গীতের দরবারে যেমন—বব ডিলান, মাইকেল জ্যাকসন, জন লেনন কিংবা এরিক ক্ল্যাপটন; তেমনি আমাদের বুদ্ধিবৃত্তির স্বল্পায়তন পরিসরে—একজন আলোকিত আহমদ ছফা। এবার আপনাকেই প্রশ্ন করছি, সীমিত এই জীবনে এমন কোনো পরশ পাথরের সন্ধান পেয়েছেন কি, যার আলোতে জীবনকে নতুনভাবে উপলব্ধি করা যায় কিংবা চিন্তার জগৎটা আকস্মিক ঝড়ে এলোমেলো হয়ে যায় ?

মিরপুর, ২৫-১১-২০১৯

আরেফিন আল ইমরান

লেখকঃ সাহিত্যিক ও সঙ্গীত পরিচালক 

 

আরও পড়ুন

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.