বেগম রোকেয়ার সঙ্গে কিছুক্ষণ ও তার কিছু পরামর্শ

আরণ্যকে শবনম
রংপুর বেড়াইতে গিয়া বেশ খানিকটা আফসোস শুনিয়া আসিতে হইল।২০৩২ সালে আসিয়াও বঙ্গীয় নারী সমাজের চিন্তা,লেখনী,ভাবনার পশ্চাৎপদতা দেখিয়া দুঃখিত,হইলেন মহীয়সী।সকাল সকাল তাঁহার পাঠকক্ষে গিয়া উপস্থিত হইলাম।দেখিলাম গভীর চিন্তায় প্রবৃত্ত হইয়া লিখিতেছেন,কোনো প্রবন্ধ হয়ত,শিরোনাম,”স্ত্রী জাতির অবনতি-২য় পাঠ”, উপঅধ্যায়-“জাগো গো ভগিনী,মসী ধরো”। এয়ারকন্ডিশনড রুমেও রীতিমতো ঘামিয়া উঠিয়াছেন,চেয়ার টানিয়া আমার দিকে বসিলেন।পরিচালিকা আসিয়া দুই মগ কফি দিয়া গেলো।কফি খাইতে খাইতে,শুনিলাম।মহীয়সী বেশ প্রফুল্ল, আশ্বস্ত হইলেন মেয়েরা উচ্চতর পড়াশোনা,গবেষণায় মনোনিবেশ করিতেছে শুনিয়া।
তাঁহার নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েদের হল আছে শুনিয়া, লাজুকভঙ্গিতে হাস্য মুখে তাকাইলেন।নিজের লালিত স্বপ্ন যখন সাথর্কতার পথে,সেই প্রশান্তি তাহার চেহারায় প্রতিফলিত দেখিতে পাইলাম।কিন্তু,হঠাৎ মহীয়সীর বদন ম্লান হইয়া আসিল। আজও সমাজে নারীর নিরাপত্তা, কর্মস্থলে হয়রানি,ধর্ষণ,পরিবারে ভূমিকা,বৈশ্বয়িক পরিবর্তনে অবদান,গবেষণাধর্মী কাজে -পশ্চাৎপদতা তাঁহাকে ভাবাইয়া তুলিল।আমি আর কি করিব,ভয়ে ভয়ে তাঁহার পানে তাকাইলাম,তিনি পরামর্শ দিলেন-
১.”তোমাদিগকে জাগিয়া উঠিতে হইবে,নিজদের আত্মমর্যাদাবোধ নিয়া চলিতে হইবে।”
২.”নারীদের কলমের দিকে মনোযোগী হইতে হইবে,যে কবিতা আমি রচিয়াছি,তোমরা তা মহাকাব্যে পরিণত করিবে।”
৩.”অধার্ঙ্গী” প্রবন্ধের সেই নারীই,তোমাদিগকে পুরো মানুষ হইতে হইবে।”
৪.”সমাজ বিল্পবের এই সময়ে,প্রযুক্তির সর্বোচ্চ উত্তম ব্যবহারে মনোযোগী হইবে,অন্ধকারে থাকিবার কোনো যুক্তি থাকিতে পারে না।”
৫.”ধর্মপ্রাণ মডারেট মুসলিমদিগকে আপনাদের বুঝিয়া দিতে হইতে,আপনারা আসলেই তাহাদের পোশাক স্বরূপ।”
৬.”মুসলিম নারীশিক্ষায় পথ চলিতে,সমাজের বিরুদ্ধে ঝান্ডা ধরিয়াছিলাম,আপনারা মুসলিম নারীরা তাহার সঠিক মূল্যায়ন করিবেন,অপব্যবহার করিবেন না।”
৭.”আপনাদিগের সেই শকটের চাকার কথা মনে পড়িবে,হয়ত কিংবা সেই অসামজ্ঞস্য মানুষটার,ভারসাম্যপূর্ন সভ্যতার কারিগর হইবেন।”
৮.”আপনাদিগকে অলস মষ্তিষ্ক,সিরিয়াল,অযোগ্যতা, পরনিন্দা,মূর্খতা নিয়ে থাকিলে চলিবে না।”
৯.”জ্ঞানের চর্চা,শরীরবিদ্যা,অধিবিদ্যা,বিজ্ঞান -সকল দিকেই মনোনিবেশ করিতে হইবে।”
পরিশেষে বলিলেন যার সারমর্ম এই পশ্চিমে দেশগুলোতে নারীরা জগৎকে চিনিতেছে,আপনারাও পিছিয়ে নেই,তবে আরো দূরদর্শী হইতে হইবে।দেশ,ধর্ম,জীবনবোধকে যথার্থ মর্যাদায় রাখিয়াও, লক্ষ্যে পৌছানো সম্ভব।
এতো জ্ঞানগর্ভ পরামর্শ লইয়া,মহীয়সীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসিবার নিমন্ত্রণ করিয়া,রাজবাড়ি দেখিবার উদ্দেশ্যে বাহির হইলাম।পরবর্তী, কোনো সময়ে আপনাদের উহা জানাইবো ক্ষন।আজিকে আসি তবে…..।
(কাল্পনায় বেগম রোকেয়া )

লেখকঃ কবি ও সাহিত্যিক

আরও পড়ুন