বাংলার দ্বিতীয় প্রীতিলতা ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা

ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। টক -শো  প্রেমিকদের এখন সুপরিচিত মুখ। রুমিন ফারহানাকে টক-শো রাজা বলে ডাকেন অনেকই। কেউ কেউ আবার অগ্নি-কন্যা বলেও ডাকেন। তাঁর গ্রহণযোগ্যতা এখন আকাশচুম্বি। তাঁর তুখোড় বুদ্ধিমত্তার প্রসংশা আদালত পাড়ায়, হাটে-বাজারে, চায়ের দোকান, সেলুনে মানুষের মুখে মুখে শুনি। তাঁর জনপ্রিয়তা শুধু আদালত পাড়াতে নয়,বাংলার প্রতিটি সচেতন মানুষের কাছে তিনি অতি প্রিয়মুখ। ভার্চুয়াল প্লাটফর্মেও তিনি সমান জনপ্রিয়। মুহুর্তেই তাঁর ফেসবুক ফ্যান পেজে হাজারো লাইক,শেয়ার,কমেন্ট তা-ই প্রমাণ করে। এই স্বাধীন ভূ-খন্ডের পঁচাশি হাজার ছয়শত পঞ্চাশটি গ্রামের প্রতিটিতেই তার ভক্ত অনুরাগী রয়েছে।
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা একটি ব্র্যান্ড  নাম। তাঁর জ্বালাময়ী বক্তব্যের জন্য তিনি ছাত্র- শিক্ষক, কবি-সাহিত্যিক, কৃষক -মজুর, সাংবাদিক -রাজনীতিবিদসহ সর্ব সাধারণ মানুষের অতি পরিচিত মানুষ হয়ে উঠেছেন।অল্প সময়ে বিশ্বভাবুকমণ্ডলীতে তিনি যে স্থান করে নিয়েছেন তাঁর তুলনা বোধহয় তিনি নিজেই।
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার টক-শো শোনার জন্য গ্রামে-গঞ্জের প্রতিটা দোকানে আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা অর্ধ রাত পর্যন্ত জেগে টেলিভিশনের সামনে বক পাখির মতো টু-মেরে বসে থাকেন।তাঁর যুক্তি, তথ্যবহুল বক্তব্য শুনলে মনে হয় তিনি একটা জীবন্ত তথ্যভান্ডার। মুক্তিযোদ্ধাকালীন মানুষ রেডিওকে ঝাঁক দিয়ে ঘিরে যে রকম সংবাদ শুনতেন ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার বক্তব্যের বেলায়ও গ্রাম্য দোকানগুলোতে এই রকম দৃশ্য দেখা যাচ্ছে ইদানীংকালে।
অসাধারণ স্মৃতিশক্তির অধিকারী ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। জনৈক কবি তার কবিতায় রুমিন ফারহানাকে “বাংলার দ্বিতীয় প্রীতিলতা” বলে আখ্যা দিয়েছেন। যত কঠিনই হোক, যত তিতা কথায় হোক যা তিনি বিশ্বাস করেন,সত্য বলে জানেন  সক্রেটিসের মতো নির্ভয়ে  তা প্রকাশ্যে বলেন।
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা ১৯৮১ সালের ১৯ ই আগষ্ট জন্ম গ্রহণ করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলার  বিজয়নগর উপজেলার ধুরন্তী ইউনিয়নের ইসলামপুর  হচ্ছে তাঁর পিতৃভূমি। তাঁর বাবা অলি আহাদ স্বাধীনতা পুরস্কার বিজয়ী একজন ভাষা সৈনিক ও রাজনীতিবিদ ছিলেন।তাঁর দাদা আবদুল ওহাব ডিস্ট্রিক্ট রেজিস্ট্রার ছিলেন।
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা হোলি ক্রস স্কুল থেকে মাধ্যমিক এবং ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করার পর লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিভাগে স্নাতক ডিগ্রী সম্পন্ন করেন এবং যুক্তরাজ্যের লিংকনস ইন থেকে ব্যারিস্টার ডিগ্রি অর্জন করেন।
ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা অসাধারণ মহীয়সী নারীমুক্তিবাদী,লেখক,আইনজ্ঞ।তাঁর সাহস,তাঁর দেশপ্রেম, অন্যায়ের সাথে তাঁর আপোসহীনতা দেখে কেউ কেউ তাঁকে এ যুগের লৌহ কন্যা বলেও আখ্যায়িত করেন।তিনি একজন রাজনীতিবিদ,লেখক ও আইনজীবি। দেশের বহু জার্নালে তাঁর লেখা প্রকাশিত হয়েছে এবং লেখাগুলো সর্বাধিক পঠিত।তাঁর লেখা জনপ্রিয় কলাম সংকলন হচ্ছে ‘আমাদের রোজ নামচা’।আমার প্রিয় ব্যাক্তিত্বের নামের তালিকায় আর একটি নতুন নাম সংযোজন হলো- তিনি হচ্ছেন অগ্নিকন্যা ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা।
লেখকঃ
এম.মনসুর আলী,সাংবাদিক
সরাইল,ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আরও পড়ুন
1 টি মন্তব্য
  1. আকির রাজা বলেছেন

    লেখাটি প্রকাশ করার জন্য সম্পাদক মহোদয়কে ধন্যবাদ।

উত্তর দিন আকির রাজা
উত্তর বাতিল করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.