জাপানে হিনামাতসুরি উৎসব

শাহীন আক্তার স্বাতী, জাপান থেকে 

আজ ৩ মার্চ ২০২১। জাপানে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘ হিনামাতসুরি উৎসব’। ‘হিনা’অর্থ পুতুল আর ‘মাতসুরি’ অর্থ উৎসব। এক কথায় হিনামাতসুরি হলো ‘ পুতুল উৎসব’ বা ‘ Dolls festival’। এই দিবসটি ‘কন্যা দিবস’ নামেও পরিচিত। প্রতি বছর মার্চের ৩ তারিখে জাপানিজরা তাদের পরিবারের কন্যা সন্তানটির দীর্ঘায়ু, সুস্বাস্থ্য এবং মঙ্গলময় জীবন কামনা করে দিনটি উদযাপন করে থাকে। এ দিবস উপলক্ষ্যে জাপানিজরা পরিবারের কন্যা সন্তানকে পুতুল উপহার দিয়ে থাকে। একটি সুদৃশ্য কাঁচের বাক্সের ভেতরে লাল কার্পেটে ঢাকা সাতটি ধাপে সাজানো থাকে নজরকাড়া অভিজাত সব পুতুল। সবার উপরে থাকে রাজা আর রানী। জাপানিজরা বিশ্বাস করে এই পুতুলগুলো বাড়ির কন্যা সন্তানটিকে যেকোন অশুভ শক্তির বিপক্ষে সুরক্ষা দেবে এবং সুখী বিবাহিত জীবনের জন্য আশীর্বাদ করবে। ফেব্রুয়ারির শেষের দিক থেকেই এ উৎসব পালন শুরু হয়। বিপনী বিতানগুলোতে শোভা পায় কাঁচের বাক্সে ভরা মনোরম পুতুলগুলো।

আকাশছোঁয়া দাম দেখলেই বোঝা যায় জাপানিজদের জন্য কত গুরুত্বপূর্ণ এই ‘ কন্যা দিবস’ । ‘কন্যা দিবস’ উপলক্ষ্যে পুতুলের এই কাঁচের বাক্স ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে ঘরে সাজিয়ে রাখা হয় এবং মার্চের তিন তারিখে নামিয়ে ফেলা হয়। ধারণা করা হয়, যদি কোন বাড়িতে এই পুতুল নামাতে দেরী হয়, অর্থাৎ চার তারিখে নামায়, সেই বাড়ির মেয়ের দেরীতে বিয়ে হবে। এগুলো নিতান্ত কুসংস্কার হলেও পুরোনো ঐতিহ্যকে আঁকড়ে ধরে আজও জাপানিজরা এই দিনটি উদযাপন করে আসছে। এই দিনটিতে কন্যা সন্তানের জন্য সুস্বাদু খাবারও তৈরি করে থাকেন জাপানিজরা। চিরাশিজুশি, হামাগুরিনো

ওসোইমনো,হিশিমোচি,হিনারারে,শিরোজাকে নামের মজাদার খাবারগুলো জাপানিজরা পরম মমতায় তাদের কন্যা সন্তানের সুস্বাস্থ্য আর সুখী জীবনের কামনায় তৈরি করে থাকেন। যেখানে কন্যা সন্তানকে আজও কিছু দেশে অভিশাপ মনে করা হয়, সেখানে জাপানে কন্যা তথা নারীদের প্রতি এমন অপরুপ সম্মান প্রদর্শণ সত্যি শিক্ষনীয়।

আরও পড়ুন