লেখক নয়, পাঠক চাই

ডাঃ জোবায়ের আহমেদ

আজকে একজন প্রকাশক বন্ধুর সাথে আলাপ হলো।
সামনে বই মেলা।।
লেখক দের নিয়ে নানা অভিজ্ঞতার শেয়ারে আমাদের আলাপ জমে উঠলো।

আমি বললাম,ভাই আমাদের দেশ এত লেখকের ভার সইতে পারবে তো।
সবাই লেখক, পাঠক কই।
সৈয়দ মুজতবা আলী বই কেনার গুরুত্ব নিয়ে প্রবন্ধ লিখে গেছেন।
বই কিভাবে মনের চোখ খুলে দেয়,নতুন নতুন চোখ তৈরী করে তা বলে গেছেন।
ওমর খৈয়াম বলে গেছেন, রুটি মদ ফুরিয়ে যাবে,প্রিয়ার কালো চোখ ঘোলাটে হয়ে আসবে কিন্ত বই খানা অনন্ত যৌবনা যদি তেমন বই হয়।

হ্যাঁ যদি তেমন বই হয় তবে সেই বই যুগ যুগ ধরে পাঠক কে টেনে নিবে তার পাতায় পাতায়।

বাংলা সাহিত্য সমৃদ্ধ হয়ে আছেন বিখ্যাত সব বই দিয়ে।
সেই বই গুলো পড়ার পাঠক কই।
ঘরে ঘরে আমরা অবশ্যই লেখক চাইনা কিন্ত ঘরে ঘরে আমরা গুনমুগ্ধ পাঠক চাই।।
যারা বই পড়ে অন্তর মম বিকশিত করবেন,আলোকিত হবেন, সেই আলোর স্ফুরণ ছড়িবে দিবেন সমাজে।
এভাবে সমাজ আলোকিত হয়ে দেশ আলোয় আলোয় উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।

প্রতিবছর হাজার হাজার বই বের হয়।
সেগুলো আসলে পড়ে কে আর কিনে কে?
শুধুই কি কালি ও কাগজের অপচয় নয়?

সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই চারটা গল্প লিখলেন,স্ট্যাটাস দিলেন। ব্যস লেখক হয়ে গেলেন।!
দুই একজন কমেন্ট করলো, আপনার তো বই বের করা উচিত, তখনই আমরা গদগদ হয়ে বের করে ফেলি।
যিনি কমেন্ট করলেন, বই বের করা উচিত, তিনিই সেই বই টাকায় কিনে খুলে দেখবেন না।

আর ফেসবুকে বইয়ের যেই বিজ্ঞাপন দেখতেছি তাতে লেখকদের ব্যক্তিত্ব নিয়ে নানা হাস্যরসের জন্ম দিচ্ছে আমাদের নানা আলোচনায়।

কাউকে অনুরোধ করে একটা রিভিউ লিখালেন লেখক।
তারপর নিজের টাইম লাইনে শেয়ার করে নিজের বই কতখানি দামী তা জাহির করেন।।

আজকের দিনের লেখকদের দেখলে আহমদ ছফা অন্তত কিছু না বলে ছাড় দিতেন না।

একজন আহমদ ছফা,একজন শওকত আলী,একজন সৈয়দ ওয়ালী উল্লাহ,একজন হাসনাত আব্দুল হাই,একজন শাহেদ আলী,একজন শওকত ওসমান,একজন আবুল মনসুর আহমদ,একজন আবু ইসহাক, একজন আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের মত লেখক আমরা আর পাবো না কোনদিন।
উনাদের মত লেখক হতে গেলে যে প্রচুর পড়াশুনা দরকার,জীবন ও চারপাশ দেখার মত যে গভীর চোখ দরকার, উন্নত ব্যক্তিত্ব ও নির্মোহ হৃদয় দরকার তা তো আজকের লেখকদের মধ্যে দেখা যায়না।।

আজকালকার লেখকরা ফেসবুকে জানান দেন উনার কতটা বই বের হলো।কত মুদ্রন শেষ হলো।
আবার কেউ সেটা বিশ্বাস না করলে কটুকথায় আক্রমণ করেন সেই অবিশ্বাসী কে।।

আমাদের বন্ধুদের একটা গ্রুপ আছে।
নাম কবিরাজ ক্লাব।
দুধ চা খেয়ে তোকে গুলি করে দিবো এমন বই  নিয়ে এক বন্ধু মজা করে পোস্ট দিলো।
তখন আরেকজন মন্তব্য লিখবো দুধ চা কি একসাথে খাবো না দুধ ও চা আলাদা খাবো??

আমরা চাই আরণ্যক, কবি,প্রাদোষে প্রাকৃতজন,চিলে কোঠার সেপাই,লালসালু, আয়না,কবি, গাভী বিত্তান্ত এর মত বই।

আমরা চাই এমন বই যা আমাদের মর্মে আঘাত করে মস্তিষ্কে অনুরণন সৃষ্টি করবে।
আমরা তেমন বই চাই যার পাতায় পাতায় হারিয়ে যাওয়া যায়।
তেমন বই চাই যা আমাদের আবেশিত করে রাখবে।
তেমন বই চাই যা আমাদের একাকী রাতের সঙ্গী হয়ে সঙ্গ দিবে।।

আমরা ঘরে ঘরে লেখক চাইনা।
ঘরে ঘরে পাঠক চাই।।
বই হয়ে উঠুক প্রিয়ার মত প্রিয়জন যার সঙ্গ ছেড়ে এক ইঞ্চি দূরে যেতেও আমাদের মন সায় দিবেনা।

ডাঃ জোবায়ের আহমেদ চিকিৎসক  ও লেখক।

আরও পড়ুন