দাম্পত্য সিরিজঃ অরাজনৈতিক ঝগড়া (পর্ব-৪)

মাহজেবিন মম

(আমি রান্না করছি এমন সময় স্বামী ভদ্রলোক রান্নাঘরে হাজির হলেন)

– কি ব্যাপার, আপনি রান্না ঘরে কি করেন? ক্ষুধা লেগেছে নাকি?

– আরে নাহ, তোমাকে একটু সাহায্য করতে আসলাম আরকি। তা ঝটপট বলে ফেল তো তোমার কি সাহায্য লাগবে?

– এহহহ, আসছেন উনি সাহায্য করতে। আপনি রান্নাঘর থেকে বিদায় হন, এটাই হবে বড় সাহায্য।

– তোমরা নারী জাতি এতো অদ্ভুত কেন বলত? সাহায্য করতে আসলে বল বিদায় হতে আবার না আসলেও বল কোনো সাহায্যই করেনা। আমরা পুরুষরা কি করব তাহলে?

– আপনারা রান্না ঘরে সাহায্য করতে এসে আরো চোদ্দ টা কাজ বাড়িয়ে দেন। ওগুলো করতে গেলে আরো যন্ত্রণা হয়। এজন্য বলি আপনার মহানুভবতাকে আমি স্বাগত জানাই, কিন্তু সাহায্য আমার লাগবে না।

– কিছু একটা কাজ করতে দাও। কোন গড়বড় করব না প্রমিজ।

– এতই যখন কাজ করার ইচ্ছে তাহলে কাঁচামরিচ গুলোর বোটা ফেলে ফ্রিজে রাখেন ত।

– তা নাহয় রাখব কিন্তু তুমি কি জান কাঁচামরিচ এই উপমহাদেশে প্রথম নিয়ে আসে পর্তুগীজরা।

– জি জানি। এরা তো গোটা দুনিয়াটাকেই নিজের উপনিবেশ বানিয়ে নিয়েছিল।

– হুম, ১৪৯২ সালে ভাস্কো দ্যা গামা ভারতের কালিকট বন্দরে অবতরন করেন। এর আগে অবশ্য সে ক্যারিবীয় অঞ্চলে অভিযানে গিয়েছিল। মূলত অটোমান নিয়ন্ত্রিত নৌপথের বিকল্প পথ আবিস্কারের উদ্দেশ্যে অভিযানে বের হয়েছিলেন তিনি।

– হুম, এ সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য অবশ্য তারেক শামসুর রেহমানের “বিশ্ব রাজনীতির ১০০ বছর- ২ “এ আছে।

– আচ্ছা তুমি তো শাহাদত স্যারের ক্লাস করেছ, বলতো পর্তুগালের পাশের দেশ কোনটা?

– স্পেন, যে দেশের ইতিহাস নিয়ে আমার অনেক আগ্রহ আছে।

– তা তো থাকবেই, লিউনেল মেসি সে দেশে আছে। তোমার ডায়েরিতে মেসির ছবি দেখেছি আমি। এত আবেগ নিয়ে তো আমার ছবিও রাখনা কোথাও।

– দেখেন, ছোটবেলায় মানুষ এগুলা করতেই পারে। আমি স্কুল জীবনে রাত জেগে বার্সেলোনার খেলা দেখতাম। এসব নিয়ে খোঁটা দেয়ার কিছু নাই।
স্পেন নিয়ে আগ্রহের কারন হল স্পেনে মুসলমানদের সোনালি অতীত।

– হুমমম, মুসা ইবনে নুসায়ের যখন তারিক বিন যিয়াদকে স্পেন অভিযানের সেনাপতি করে পাঠান। তারিক বিন যিয়াদ একটি পাহাড়ে অবতরন করেছিলেন যার নাম হয়ে যায় ” জাবাল আত তারিক” বা তারিকের পাহাড়। এখান থেকেই কিন্তু জিব্রাল্টার নামের উৎপত্তি। স্পেনে মুসলিম শাসন ছিলো এক অর্থে স্বর্ণযুগ। জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল শাখায় স্পেন হয়ে উঠেছিল অনন্য। যে ইউরোপ নিজেদের আধুনিক বলে দাবী করে তারাও কিন্তু স্পেনে যেত শিক্ষা ও জ্ঞান অর্জনের জন্য।

– অথচ প্রায় আটশ বছরের এই সোনালী শাসনের সমাপ্তি ঘটে কত করুনভাবে। রাজা ফর্ডিনান্ড আর ইসাবেলা মুসলিম শাসনের দূর্বল দিক গুলো ধরতে পেরেছিলেন। আসলে কিছু গাদ্দার জনম জনম ধরেই থেকে যায়, এদের হাতেই রচিত হয় কলঙ্কময় পরাজয়ের ইতিহাস।

– আর সেই ঐতিহাসিক পরাজয়ের পর কত মুসলমানকে হত্যা করা হয়েছে, হাজার হাজার মানুষ পালয়ে গিয়েছে মরক্কো সহ বিভিন্ন দেশে। আর এরপরেও যারা টিকে ছিল তাদের উপর করা হয়েছে অবর্ণনীয় অত্যাচার।

– আমি স্পেনের ইতিহাস নিয়ে পড়তে গিয়ে জানলাম যে সকল মুসলিম তখন স্পেনে থেকে গিয়েছিল তাদের জোর করে ধর্মান্তরিত করা হয়েছিল। আর বেশিরভাগকে ক্রীতদাস বানিয়ে ফেলেছিল। ধর্মান্তরিত মুসলিমদের বলা হত মরিস্কো বা মুর। নিজের ধর্ম ত্যাগ করার পরেও এই মরিস্কোদের মানুষ হিসেবে কোন সুযোগ সুবিধা দেয়া হয়নি। ওদের কপালে অসম্মান আর বঞ্চনা ছাড়া কিছুই জোটেনি।

– হুম, ঠিক বলেছ। আচ্ছা তুমি কি নসীম হিজাযীর বইগুলো পড়েছ ?

– পড়েছি, পড়ে অশ্রু সংবরণ করতে ব্যার্থ হয়েছি। উনার “সীমান্ত ঈগল” উপন্যাসের শেষ লাইনটি এখনও কানে বাজে। তিনি বলেন ” কোন কওমের সম্মিলিত অপরাধ স্রাষ্টাও ক্ষমা করেন না”।

– তোমার রান্না কতদূর? তোমাকে জ্ঞান দান করতে গিয়ে তো আমার ক্ষিধে লেগে গেল।

– ইয়ে মানে, এতবড় শরীর যেহেতু ক্ষুধা তো লাগবেই।

– কি!! তুমি আমাকে মটু বললে? আজ থেকে আমি খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দিব। শুধু বাদাম আর শসা খাব। সকাল বিকেল নিয়ম করে দৌঁড়াতে যাব।

– হেহেহে, মটু বলি নাই তো। আর আপনার বাদাম শসা খাওয়ার কথা তো চার বছর ধরেই শুনে আসছি। বাংলাদেশের একটা রাজনৈতিক দল যেমন ঈদের পরে আন্দোলনে যাবার কথা বলে আপনিও তেমনি ডায়েটের কথা বলেন। আর দৌঁড়ানোর প্রোগ্রাম তো সাতদিনও চলে না।

– তুমি আমাকে চিন নাই মম। এবার থেকে তুমি নতুন রাসেলকে দেখবে। আমাকে তুমি মটু বলেছ। এত অপমান আমি কই রাখি।

– মটু হয়েছেন তাতে কি হয়েছে? আপনাকে তো আর পাত্র দেখতে আসবে না। সে কাজ তো বহু আগেই শেষ।

– বাহ, ভালো কথা বলেছ তো। থাক তাহলে, আমি তো শসা খেতেই পারিনা। এই, আজকে গরুর মাংস রান্না করনা। মনে হচ্ছে কতদিন খাইনা। আর সাথে গুড়ের পায়েশও রান্না করিও।

– হাহাহা, এই তাহলে ডায়েটের নমুনা। ঠিক আছে, আমি রান্না করি আপনি বিদায় হন এখন…..

(এমন করিয়া বেচারার ডায়েট প্লান আর হাঁটার রুটিন ভেস্তে যায়)

লেখক- শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন