সন্তানকে মানুষ করতে নিজেকে মূল‍্যায়ন করবেন যেভাবে

শাজনীন ঊর্মি

আপনারা মায়েরা যারা স্বচ্ছল পরিবারের বৌ, তাদের বলছি মুরগীর দুই রান দুই সন্তানের পাতে দিয়ে, একটা উরু স্বামীকে দিয়ে আরেকটা নিজে নিন…. নাহলে শেষ বয়সের রক্তশূন্যতায় আপনার অতীব ভদ্র সন্তান আপনাকে যত যত্নই করুক, আপনার পুরাতন বোন ম‍্যারু (bone marrow) আর পুরনো কার্যক্ষমতা ফেরত পাবে না।

বাচ্চাদেরকে দুধের গ্লাস কানায় কানায় পূর্ণ না করে নিজের জন্য একটুখানি নিন, না হলে শেষ বয়সে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ছেলের জন্য বিরিয়ানি রান্না করার ক‍্যালসিয়াম Vertebrae তে থাকবে না। তখন বড় ডাক্তার ছেলের এনে দেয়া বিদেশি বড়ি খেয়ে লাভ নাই।

গরীব মায়েদের আমার কিছু বলার নাই, কিন্তু মধ্যবিত্ত আর উচ্চবিত্ত পরিবারের মায়েরা ইচ্ছে করে নিজের যত্ন না করে যে মাহাত্ম্য দেখানোর চেষ্টা করে, তা আসলে একটা গর্হিত অপরাধ। আপনি যদি আসলেই সন্তান কে ভালবেসে থাকেন, তাহলে নিজেকে সুস্থ্য সুন্দর রাখুন, নিয়ম মেনে চলুন, নিজের জীবন কে উপভোগ করুন, সন্তানের সাথে আরও অনেকদিন বেঁচে থাকার চেষ্টা করুন। এই উপমহাদেশের সমাজ ভালো মায়ের যে স্ট‍্যানডার্ড তৈরি করে দিয়েছে-তা একটা ভুলে ভরা প্রহসন ছাড়া কিছুই না।

যদি আপনি আপনার স্বামীর সাথে অসুখী হন, সে যদি তার দায়িত্ব পালন না করে, সৎ না থাকে, আপনাকে সম্মান না করে, তাহলে শাবানা র রূপ ঝেড়ে ফেলে মাথা উঁচু করে দাড়ান, প্রতিবাদ করুন…..আর যদি তা না করেন, তাহলে আপনার মেয়েও একইভাবে অন্যায় সহ্য করা শিখবে….আর আপনার ছেলেও একই আচরণ করবে আর আশা করবে বৌ একইভাবে আপনার মত সহ্য করবে। নিজের দুর্বলতা র জন্য, নিজের জীবন নষ্ট করুন, আপনার সন্তান রা সে দায় নেবে কেন?

নিজের ছেলে মেয়েদেরকে আপনার দায়িত্ব নিতে শেখান, তাদেরকে শেখান তাদের ইন লস (in -laws) দের দায়িত্বও যতটুকু সম্ভব ভাগ করে নিতে। নিজে যদি ছেলের বউকে তার মায়ের সেবা করার সুযোগ না দেন, তাহলে সেই অসহায় মায়ের হক নষ্ট করে আপনি কখনোই ভালো থাকবেন না।

বাচ্চাদেরকে তাদের মনের মত ক‍্যারিয়ার ও জীবনসঙ্গী বেছে নিতে দিন, শুধু খেয়াল রাখুন তারা যেন বিপথগামী না হয়ে যায়। সন্তান আপনার কাছে আল্লাহর আমানত, আপনার স্বপ্ন পূরণের প্রোজেক্ট (project) না। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তাদের দয়া করে অন্যদের সাথে তুলনা করবেন না। কে কত বড় চাকরি করে, কে কত ভালো বিয়ে করল, কে কত ভালো ডিগ্রী নিল, কে কত সম্পত্তি করল…. এগুলো দয়া করে করবেন না।এই পৃথিবীর সব খুনী ধর্ষক আকাশ থেকে পড়েনি, আপনি তাদের মায়েদের চেয়ে অন্তত ভালো আছেন।

সন্তানদের সবাইকে ছেলে মেয়ে নির্বিশেষে নিজেদের মৌলিক চাহিদাটুকু (basic need) সুন্দরভাবে পূরণ করতে পারার ট্রেনিং দিন। তাদেরকে আপনার উপর নির্ভরশীল করে রাখার মধ্যে কোনো কৃতিত্ব (credit) নাই। কবে এই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে যেতে হবে, তা আমরা জানি না। তখন প্রতি পদে পদে তাদের জীবন কী দুর্বিষহ হবে, ভেবে দেখেছেন?

সবশেষে এইটুকু বলতে চাই, প্রত্যেকটা সন্তান তার মায়ের জন্য একেকটা প্রশ্নপত্র….
আপনার বাবুটা গর্ভে আসার প্রথম দিন থেকে আপনার শেষ পর্যন্ত যে কষ্ট আপনি করেছেন, তাতে উপরের আচরণ গুলো একেকটা দাগ, আর এই ব্যাপার গুলোতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় আপনার বাবু টার। তাই সজ্ঞানেই এগুলো থেকে সরে আসুন। একমাত্র বাবার ২৩ টা ক্রোমোজোম ছাড়া সন্তানের সব কিছুই আপনার, আপনি সবসময়ই তার কাছে শ্রেষ্ঠ…. পৃথিবীর কেউ কোন দিন সেই ভালোবাসায় একটা আঁচড়ও দিতে পারবে না।

আরও পড়ুন