গন্তব্য

|| উম্মে আয়িশাহ্ ||

আজ আড়াইমাস বাদে আব্বুর কাছে গিয়েছিলাম!!আব্বু আমার এতো সুন্দর ঘুমিয়ে ছিলেন!আর মৃদু মৃদু হাসছিলেন ওনার ছোট্ট কন্যাকে দেখে!কিন্তু একবারও আব্বু কাছে এলেন না,আমাকে সজোরে মা বলে ডাকলেন না! আমাকে কিছুই জিজ্ঞেস করলেন না! আমিতো আব্বুর কাছে গিয়েছিলাম ওনার ভয়েসটা শোনার জন্য, ওনাকে স্বচক্ষে দেখব বলে ছুটে গেলাম! জাস্ট বিলিভ ইট!আমার সেন্স কেন যেন এতোটাই এবসেন্স ছিলো হ্যা এবসেন্স ছিলো! এবনরমাল ছিলাম বলা চলে!

আমি জানিই আল্লাহর কাছে যিনি গিয়েছেন তিনি কখনো এ দুনিয়ার মানুষগুলোর কাছে কখনই ফিরবেন না!আর বড্ড বোকা হয়েছিলাম দেড়-দু ঘন্টা যাবত!! আব্বুকে ডাকব আর আব্বু এসে আমার কোল থেকে আয়িশাহ্ কে কোলে নেবেন, চুম্বন এঁকে দেবেন!নানা-নাতীর খুনসুটি দেখবো!বড্ড সাধ আমার! আম্মাজান আয়িশাহ্ এখন মা শা আল্লাহ্ কথার ফুলঝুরিতে সারাবাড়িময় প্রাণবন্ত করে রাখে!

ও এখন বলে আম্মু নানুও নেই,নানাও নেই! আহা!ছোট্ট রাহমাহ্ আমার আয়িশাহ্ এতো দ্রুতই সবরে, বুদ্ধিতে মা শা আল্লাহ্!কত্তো বোঝে ২০ মাসের বুড়িটা! অতঃপর! তার আর পর নেই ;নেই কোনো ধরাতে ঠিকানা! আমার স্বপ্ন তো শুধু এ আসমানে না, স্বপ্ন আমার সুশোভিত জান্নাহ্ !সেখানে চাই খুব করে চাই আব্বুজিকে!

আজ কবরস্থান সংলগ্ন মাসজিদের এলানে আমি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছিলাম যেন দুনিয়া হতে! শক্তি পাচ্ছিলাম না দাঁড়িয়ে থাকার! আমি যেন আমাতে ছিলাম না! এলানে যখন ধ্বনিত হচ্ছিলো ওমুকের কন্যা রাশেদা ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসারত অবস্থায় মারা গেছেন!হৃদয় ছিড়ে যাচ্ছে! বোন আমার অপরিচিত! কিন্তু আমি সকালে সেখানে গিয়েই যখন বোনের চাচা ভাই মামাদেরকে দেখছিলাম গোর খুরছেন! তখন জিজ্ঞেস করি কে মারা গেছেন কার জন্য এ ঘর?? ওনার চাচা ভেজা কন্ঠে বললেম আমার ভাতিজি!ক্যানস্যারে মারা গেছে! ছোট্ট সন্তান আছে যথাসম্ভব ওনার!আমি অনেক দু’আ করলাম নির্বাক হয়ে!আহা!কখনো দেখিনি সচক্ষে কিভাবে ঐ সাড়ে তিন হাত ঘরটি খুঁড়ে!এ চোখ আজ দেখেছে আমার জন্যও এইতো আর কিছু সময়ের মধ্যে আমার আত্মীয় স্বজনও হন্তদন্ত হয়ে ছুটাছুটি করবে কবরের গোর খুড়তে! কবরটাকে সাজাতে কাঁচা বাঁশ কাটবেন কেউ!একদিকে গরম পানি বরই পাতাই জ্বাল করবেন!তারপর শেষ গোসল! তারপর সাদা কাফনে(শেষ পর্দায় আবৃত আমার কাছে) সাজিয়ে দেবেন আমায়!উত্তম একটা সাজ যে সাজে আমি আমাকে দেখতে পাবোনা!তবে আমি জানি আমায় কেমন লাগবে সেদিন! আমিতো প্রতিটি মুহুর্তে শেষ সময় ভেবেই নিজেকে আবৃত করে বেশি করেই বারবার!খুব খুঁতখুঁতে স্বভাবের!মনে হয় আরো ঢাকতে হবে!আরো আড়াল করতে হবে এই আমাকে!খুব প্রয়োজনের তাগিদেই ছুটতে হয় কর্মস্থলে! আল’হামদুলিল্লাহ্ আমার বর্ণনা(দেখতে কেমন) কলিগ স্টাফ কেউই দিতে পারবেননা!শুকরিয়া রবের!যুদ্ধ করেছি কর্পোরেট দুনিয়ার ঘর হতে বাহিরের মানুষগুলোর সাথে নিজের এ জায়গাটা তৈরি করতে! আমার রব্ব আমাকে সাহায্য করেছে পরিপূর্ণ!

আমি মৃত্যুর জন্য ঠিক কতোটুকু প্রস্তুত আজ আবারো উপলব্ধি করলাম! মৃত্যু আমার দোরগোড়ায়! যেকোনো সময় ডেকে নেবে আমায়! ভীত আমি!গুনাহগার আমি!অনেক অনেক কল্যাণকর কাজ এখনো যে বাকি আমার ঐ সাড়ে তিন হাত ঘরটি আলোকিত করে সাজাতে!কিন্তু সে সময় কি পাবো হাতে!খুব চিন্তিত! এতো এতো গুনাহে ভুলে জর্জরিত জীবন! পরিশুদ্ধ কলব নিয়ে তাক্বওয়া আমলে আখলাকে মাধুর্যতা নিয়ে আমার ঘরে পৌঁছতে পারবতো?!!!

আমার প্রিয় ভাইবোনেরা!ফ্যান্টাসী থেকে বের হয়ে আসুন! বিলাসবহুল জীবন কেন আপনার নয় এ নিয়ে হতাশা কাজ করলে সাথে সাথে আহ্বান করবো কবরস্থানে যান!দেখে আসুন কোন ঘরে আসল ঠিকানা! কিসের বিলাসিতার জন্য আপনি ফ্রাস্ট্রেশনে নিজেকে রব্ব থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন? সেখানে গিয়ে ঘন্টাখানেক সময় কাটান!প্রতিটি নতুন, পুরাতন কবর পরিদর্শন করুন! দেখুন কে কি অবস্থানে আছে এখন?তাদের জৌলুশ কোথায় এখন? কোথায় তাদের অহমিকা?কিসে মিশে ফেলেছে? ভাইয়েরা আমার!আপনাদের বাবা মা যাদের গত হয়েছেন আল্লাহর কাছে চলে গেছেন!কবর যিয়ারত করুন বেশি বেশি! সাদাকাহ্ করুন ওনাদের জন্য! আপনি কাঁদুন দু’আ করুন প্রিয় আব্বা আম্মা বোন কিংবা আত্মীয় স্বজন যারা গত হয়েছেন তাদের জন্য!

বোন আমার! আপনাকে বলছি! শারীয়াহ্ বিধান নেই আমাদের কবর যিয়ারত করার এটা সঠিক!কিন্তু পরিদর্শন নিষেধ নেই! আপনি যান কবরস্থান,সেখানে গিয়ে নিজের অবস্থান অনুভব করুন!দূর থেকেই দেখুন!তবে প্লিজ অতি রঞ্জিত কিছু করবেননা কবরস্থানে গিয়ে কান্নাকাটি! আপনি আবেগ নিয়ন্ত্রণ করুন!আপনি সেখানে গিয়ে দেখুন আপনার সকল রঙিন দুনিয়ার মিথ্যে মিথ্যে স্বপ্নগুলো কি জানান দেয়!আপনার সৌন্দর্য বিলিয়ে দিয়ে সবাইকে দেখিয়ে কতটুকু কামিয়াবি হচ্ছেন সেখানে গিয়ে অনুভব করে কিসে মিশে গেছে এ দেহ! বিশ্বাস করুন!আপনার মধ্যে এক আমূল পরিবর্তন আসবেই! অন্তত দু মাসে একবার হলেও সেখানে যান! দিল নরম হয়ে যাবে! ভীতি কাজ করবে!মৃত্যুচিন্তা অনুভব হবে!আপনাকে নতুনভাবে পথ চলাতে সহায়ক হবে!যেয়ে দেখুন আসল ঠিকানা, আসল ঘর কোথায় আমাদের? আর আমরা কিসের মোহে ডুবে আছি যেন মারাই যাবো না!এখনই সময় মৃত্যুর জন্য নিজেকে তৈরির! পর্দায় আবৃত করে ফেলুন লাশ হবার আগেই! নিজেকে ঢেকে রাখুন!নিজের সম্ভ্রম ইজ্জত সবকিছু হেফাজত করুন আল্লাহর প্রিয় হতে প্রিয় কাউকে হালালভাবে পেতে! আমরা সবাই এগিয়ে চলছি সেই ঘরের দিকে,সাড়ে তিন হাত ঘরের দিকে,আপন ঠিকানা তে ফিরতে,আমাদের ঘরগুলো আলোকিত হোক,সে নিমিত্তে রব্বের কাছে নিজেকে সঁপে আসমানের বিখ্যাত হতে সেলিব্রিটি হতে আমাদের কমপিটিশন হোক! দুনিয়ার সেলিব্রিটি হতে মত্ত না হয়ে আসুন নিজেকে তৈরি করি আমরা রব্বের জন্য রব্বের অল্পসংখ্যক প্রিয়দের লিস্টে হতে ! হালাল ভেন্টিলেশনে নিজেকে আঁকড়ে ধরে জান্নাতের পথে এগিয়ে চলি! মাটি থেকে এসেছি আমরা,মাটিতেই ফিরতে হবে,এ দেহ মিশে একাকার হবে সেই মাটিতেই কোন পথে

১০অক্টোবর, ২০২১ঈসায়ী সকাল ০৮.১৫মিনিট।

আরও পড়ুন