“বিয়ে ও বোঝাপড়া” বই নিয়ে কিছু কথা

ইমরান হোসাইন নাঈম

বিয়ে ও বোঝাপড়া নামে একটা সিরিজ লেখা শুরু করি সামাজিক যোযোগ মাধ্যমে।

যখন লিখছিলাম, তখনই এমন প্রশ্নের সম্মুখীন হই যে, বিয়ের আগেই বোঝাপড়া কীসের। পরিচিত ও অপরিচিত নানান জনের কাছ থেকে এই প্রশ্নের সম্মুখীন হই।শুরুতে কাউকে বোঝাতেই পারছিলাম না যে, বিয়ের আগেও বোঝাপড়া হতে পারে।

অগত্য সবাইকে বলি, লেখাগুলো পড়তে থাকুন। তখন আপনিই বলবেন যে, আসলেই বোঝাপড়াটা বিয়ের আগেই করা উচিত।

আলহামদুলিল্লাহ! লেখাগুলো মানুষের বদ্ধমূল চিন্তায় তরঙ্গ সৃষ্টি করতে পেরেছিল। আমার এক সহপাঠী মুখে বলেছিল যে, আমার লেখাগুলো তার উপকারে এসেছে। অথচ এই সহপাঠীই কিন্তু প্রথমে প্রশ্ন তোলে “বিয়ের আগেই বোঝাপড়া আবার কীসের”!

কিন্তু যখন সে পড়ল, তার চিন্তায় পরিবর্তন এল। এবং সে তা স্বীকারও করল। সে এমনই বলেছিল যে, আমার লেখাগুলো তাকে ভুল পথ থেকে ফিরিয়ে আনার ওসিলা হয়েছিল—আল-হামদুলিল্লাহ।

এমন আরও কয়েকজনের ম্যাসেজ পেয়েছিলাম, যাদের চিন্তায় আমার লেখা প্রভাব ফেলতে পেরেছিল। “পরিবার রাজি নয় কী করবো” এই শিরোনামের লেখাটা লিখেছিলাম এক ভাইয়ের প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে। তিনি আমার সিরিজটা পড়ছিলেন। এই পর্বটা পড়েই তিনি ম্যাসেজ করে জানালেন যে, আমার সিরিজ তাকে হারাম রিলেশনশিপ থেকে ফিরিয়ে এনেছে। জানুয়ারি মাসের ৩ তারিখে তিনি এই হারাম রিলেশন থেকে ফিরে আসেন। যার ওসিলা হয়েছিল আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা “বিয়ে ও বোঝাপড়া সিরিজটা। আবারও আল-হামদুলিল্লাহ।

মূলত ফিরিয়ে এনেছেন আল্লাহ তাআলা। কিন্তু এর উসিলা হয়েছে আমার লেখা। আল হামদুলিল্লাহ। আল্লাহ একে আমার নাজাতের উসিলা বানান। আমীন।

এমন আরও বেশ কিছু গল্প আছে এই সিরিজকে কেন্দ্র করে।

আমাদের সমাজে বিয়ে নিয়ে সাধারণত কথা বলা হয় না। আমরা একে লজ্জাকর মনে করি। অথচ বিয়ে মানব-জীবনের একটা অন্যতম বিষয়।

পৃথিবীতে ইসলামই একমাত্র ধর্ম, যা বিয়েকে পবিত্র মনে করে। কেবল পবিত্রই মনে করে না বরং উৎসাহিত করে। বিয়ের নাম শুনলেই ছি ছি করে না। বরং বিয়ের বিষয়ে ইসলামের আগ্রহ চোখে পড়বার মতো। ইসলাম চায় বিয়ে হয়ে যাক। দুনিয়ার চাকচিক্যের মাঝে না পড়ে আমরা যেন বিয়েকে সহজ করি, ইসলামের এটাই ইচ্ছা। কেননা বিয়েকে সহজ না করলে পৃথিবীতে প্রবল বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়বে।

বইটা লিখেছি মূলত আমার অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করে। মাদরাসায় পড়ার সুবাদে বিয়ে নিয়ে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি জানবার সুযোগ হয়েছে– আলহামদুলিল্লাহ। তারপরও নিজের বিয়ের প্রস্তুতি স্বরূপ পুণরায় পড়াশুনা শুরি করি। এবং সমাজের অবক্ষয়ের খতিয়ান নেয়ার চেষ্টা করি। বিভিন্ন বড় ভাইদের কাছ থেকে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে থাকি। এক সময় দেখতে পাই, সারা জগৎজুড়ে অশান্তির দাবানল জ্বলছে। যার দহনে জ্বলে পুড়ে খাঁক হয়ে যাচ্ছে সবাই ও সব কিছু।

বিয়ের পূর্বেই তাই নিজেকে আমি প্রস্তুত করতে থাকি। কিন্তু হঠাৎ এক দিন মাথায় আসে যে, আমি কেবল একাই প্রস্তুতি নেবো আর আমার আশাপাশের সবাই ভাগাড়ের দিকে ছুটবে, এটা কেমন হয়! এই চিন্তা থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখা শুরু করি “বিয়ে ও বোঝাপড়া” নামে একটা সিরিজ।

লেখা শুরু পর দেখি অনেক মানুষই “ভূক্তভূগী”। তারা এসে দুঃখের কাহিনী শোনাত। কমেন্টে জানাত নিজের দুঃখগাঁথা। ম্যাসেঞ্জারে অনেকেই নিজের সমস্যা নিয়ে হাজির হয়েছিল।

ফেইসবুকের লেখার স্থায়ীত্ব স্বল্প। হাজারও ভিড়ে লেখাগুলো হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাই শতভাগ। তাই সংরক্ষণের মানসেই বই করছি। আশা করি, সিরিজের মতো এই বইও অজস্র মানুষের কাজে লাগবে। তারাও উপকৃত হবেন, জীবনের পথে পা বাড়াবার আগেই তারা সাবদানী হবেন। আমার এই বই তাদের সুখী জীবনের ওসিলা হবে—ইনশাআল্লাহ।

বইটা প্রকাশের উদ্যোগ নেয়ার জন্য নাশাত পাবলিকেশনকে অসংখ্য শুকরিয়া।

লেখক: কলাম লেখক ও “বিয়ে ও বোঝাপড়া” বইয়ের লেখক

আরও পড়ুন