সমাজের সুলতানা ও সুলতানার সমাজ

ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ

জীবনের নানাবিধ অনুষঙ্গকে ঘিরেই সাহিত্য। কথাসাহিত্য হলে তো আর কোন কথাই নেই। গল্প-উপন্যাসের পরতে পরতে জীবনের চিত্রপট আঁকা থাকে। গল্পের কাহিনী, প্লট নির্মাণ, চিত্রকল্প, সংলাপ এমনকি পরিণতির ক্ষেত্রে মানবসমাজের রূপকল্প উন্মোচিত হয়। যিনি যতো সার্থকভাবে বিষয়বস্তুর নান্দনিক উপস্থাপন করতে পারেন তিনি ততো সার্থক কথাশিল্পী। মির্জা মুহাম্মদ নূরুন্নবী নূর সেই প্রয়াসে বেশ খানিকটা পথ এগিয়ে গেছেন- এ কথা নির্দিধায় বলা যায়।

মির্জা মুহাম্মদ নূরুন্নবী নূর শিশুসাহিত্যিক হিসেবেই সমধিক পরিচিত। শিশুতোষ ছড়া-কবিতায় যেমন নিজিকে মানিয়ে নিয়েছেন তেমনি শিশুতোষ গল্পেও পাঠকের হৃদয় স্পর্শ করতে সক্ষম হয়েছেন। এবার তিনি আবির্ভূত হচ্ছেন কথাশিল্পী হিসেবে। সুলতানা নামের ছোটগল্পগ্রন্থটি তাঁকে এ মর্যাদায় অভিষিক্ত করতে যাচ্ছে।

সুলতানা একজন নারী। নারী সমাজের ইতিবাচক প্রতিকৃতি। সমাজ বিনির্মাণে নারীর ভূমিকা পুরুষের মতোই। কোনো কোনো ক্ষেত্রে পুরুষের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ। নারী মানেই পরিবারের প্রশান্তিময় আবহ। নারী মানেই ভালোবাসাময় মুগ্ধতা। নারী মানেই কন্যা জায়া জননী। একজন আদর্শ নারীই একটি প্রশান্তিময় বাড়ির নির্মাতা; সুন্দর পৃথিবীর আশির্বাদ।

তাইতো কবিতার ভাষায় –

নর
তুলে আনে খড়
নারী
গড়ে তোলে বাড়ি।

তবে সব নারীর আঁচলেই এমন প্রশান্তির ছায়া মেলে না। যে নারীর ছায়ায় পৃথিবী সবুজাভ হয়ে ওঠে তাদেরই প্রতিকৃতি হচ্ছে সুলতানা। সুলতানা গল্পটি এমন ইতিহাসের নায়িকা-চরিত।

সুলতানা কোনো উপন্যাস নয়। গল্পগ্রন্থ। নয়টি গল্প দিয়ে সাজানো হয়েছে গ্রন্থটি। বর্তমান বিশ্বের আতঙ্করোগ করোনাকে বিষয়বস্তু করে স্থান পেয়েছে দুটো গল্প, এছাড়াও সারপ্রাইজ, বাবার শিক্ষা, সুলতানা, ভালোবাসার আকুতি, প্রতিদান, বৃষ্টিভেজা বিয়ের দিনে ও শশী শিরোনামের গল্পগুলোও রয়েছে। গ্রন্থশিরোনামের সুলতানা গল্পটি ছাড়াও প্রতিটি গল্পেই সামাজিক অসঙ্গতির নানা দিক ফুটে উঠেছে। জীবন ঘনিষ্ট প্রতিটি গল্পই স্বাতন্ত্র্যিক বৈশিষ্ট্যে সমুজ্জল।

ছোটগল্প মানেই ভালোবাসাময় টান টান উত্তেজনা। শেষ হয়েও হয় না শেষ। রেশ থেকেই যায়। খাওয়া শেষ হলেও স্বাদ লেগে থাকে জিহ্বার সাথে। তেমনি ছোটগল্প। পড়া শেষ হলেও মজাটা লেপ্টে থাকবে হৃদয়ে, গল্পটা ঘুরতে থাকবে মগজের ভেতর-বাহির। সুলতানা গল্পগ্রন্থটি পড়ে পাঠক নিরাশ হবেন না বলেই আমি আশারাখি। গল্পগ্রন্থটি শিল্প সাহিত্য চর্চার ক্ষেত্রে মির্জা মুহাম্মদ নূরুন্নবী নূরকে পাঠকের কাছাকাছি নিয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

লেখক: শিক্ষাবিদ ও সাহিত্যিক
প্রফেসর, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন