অগ্নিবীণার কবি  

রুদ্রশংকর

আজকাল প্রকৃত মানুষ ছাড়া সময় কাটে না আমার।
তবু ইচ্ছার অমীমাংসিত স্বাদ নিয়ে
প্রত্যেক দিন হাজার টুকরো হয়ে যাই,
হাজার জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে আমার হাত পা।
সামনে তাকালে ভুলের হাতুড়ি এসে টোকা মারে।
আরও দূরে যেতে হবে ভেবে
প্রেম ও প্রতিবাদের সামনে এসে দাঁড়াই,
সঙ্গে সঙ্গে বদলে যায় মানুষের বিশুদ্ধ সময়।

চুরুলিয়া গ্রাম থেকে সমস্ত বাংলায়
মানুষ আদৌ মৌলিক কিনা,
এই অবেলায় আমি আর বুঝতে পারি না!
তাই সম্মিলিত মানুষের কাছ থেকে
এখনো সহ্য করি বৈষম্যের বৈদিক আঘাত।
এখনো ঘরে পূর্ণিমা আসে, এখনো অমাবস্যা হয়
এবং আমি নতুন করে নিশ্চিত হই,
সাম্যের গান গাইলে বিদ্রোহী হয়ে যায় রক্তকণিকারা।

হয়ত একদিন ফিরে যাব কাক-ডাকা নদীর কিনারে,
প্রেমের ঘামে ফুটে উঠবে স্বচ্ছতম কবিতার মুখ।
হয়ত একদিন হিন্দু , মুসলমান, খ্রিষ্টান, বৌদ্ধ নয়
পৃথিবীর কাছে আমার পরিচয় হবে একমাত্র মানুষ।

কবিঃ কবি, সাহিত্যিক, বিজ্ঞানী এবং সহকারী অধ্যাপক, এমোরি ইউনিভার্সিটি অব মেডিসিন, ইউএসএ 

আরও পড়ুন