অন্ধ আদম সন্তান

সোহেল মাহমুদ

অশরীরী চোখে উপরওয়ালা সবই দেখেন,
চোখ থাকলে দেখতে হয় !
পৃথিবীর বেবাক পাপরাশির আদিম দর্শক তিনি !
কোন একদিন পাপিরা দাঁড়াবে আসমানি কাঠগড়ায়।
আমি সেই একদিনের অপেক্ষায়
প্রস্তর যুগ থেকে চেয়ে আছি
অন্তহীন বিচারালয়ের দিকে !
প্রলয়বিষাণে আমার মতোই অপেক্ষমান ইস্রাফিল !
একদিন পাপিদের হাড় কথা বলবে,
অপরাধীর সর্বাঙ্গ কেঁপে উঠবে নিদারুণ স্বীকারোক্তিতে !
আমি সেই একদিনের অপেক্ষায়
অপেক্ষমান আদম সন্তান !
ভষ্মিভূত চোখে চেয়ে দেখি
নিষ্পেষিত বর্তমানের ঝলসানো চোখ !
অমাবস্যার চাবুকে আহত
প্রসূতি ভোরের কাতর চিৎকার !
হৃদপিন্ডের প্রবাহিত রক্তের স্রোতে
খন্ডিত স্বপ্নের লাশ !
দুঃসহ জীবনের পায়ে পায়ে অপেক্ষা,
পুরনো মৃতের চোখে অপেক্ষা !
কবরের গহ্বরে অপেক্ষা,
শ্বশানের ছাইভষ্মে অপেক্ষা !
আদিম ঈশ্বরের পুরনো ভৃত্যের চোখে
বিবস্ত্র গেলমানের চোখ !
অবাধ্য করোটিতে অকস্মাৎ জ্বলে ওঠে
জাহান্নামের বিভৎস আগুন !
আমি অপেক্ষায় ছিলাম, অপেক্ষায় আছি !
গলিত অস্থিমজ্জায় এখনো তাঁর অশরীরী চোখ,
নীরব দর্শকের মতো চেয়ে থাকে নির্বিকার !
কোন একদিন পাপিরা দাঁড়াবে কাঠগড়ায়,
আমি সেই একদিনের অপেক্ষায়
ক্লান্ত বিপর্যস্ত অন্ধ আদম সন্তান !

লেখকঃ কবি।

আরও পড়ুন