আমি মানুষ মাংসপিণ্ড নই

সালমা তালুকদার

(২০১৭ সালের লেখা)

সকালটা ভারী মিষ্টি।
বেলকনির হাওয়ায় খোলা চুলগুলো যেমন বাতাসে দোল খাচ্ছে,
তেমনি অবাধ্য মনটাও কোথায় কোথায় উড়ে বেড়াচ্ছে!
ভাবনার রাজ্যে আমিই তো একমাত্র সম্রাজ্ঞী।
ভাবছি,ভেবে চলেছি।
কালো চুলে আজকাল সাদা প্রলেপ পরেছে।মগজটাও ভোঁতা হয়ে গেছে।
ভাবনা গুলো আর ডাল পালা ছড়াচ্ছে না।দুঃসহ স্মৃতিগুলো আপনজনের মতো আসেপাশে ঘুরে বেড়ায়।
চোখের সামনে বীত অতীত দৃশ্যমান হয়ে, সামনের রাস্তাটাকে শ্মশান ঘাট মনে হয়।
মনে হয়, সুনসান শ্মশান ঘাটে আমি নগ্ন,বিধ্বস্ত।
ভাবলেশহীন চাহনীতে শুধুই শূন্যতা।
ব্যাস্ত রাস্তার সব মানুষ গুলো তখন জ্যান্ত শকুনের রুপে আমার নগ্ন শরীরটাকে খুবলে নিতে ব্যস্ত।
উৎসব করছে ওরা।
কেউ হাত ধরে টানছে,কেউ পা ধরে।
কারো মুখ স্তনে,কারো যোনীতে।
কেউ চুষে খেয়ে ফেলছে ঠোঁট।
কেউ রক্তাক্ত করছে কান।
প্রতিটা অঙ্গ,প্রতিটা মাংস পিন্ড।
আমি কি মানুষ?
নাকি শুধুই এক খন্ড মাংস!
প্রকৃতির অভিশপ্ত নারী দেহ!
পুরুষের তীব্র,লোলুপ দৃষ্টি থেকে যার কখনো মুক্তি মেলেনি।
বেঁচে থেকেও প্রতি মুহূর্তে যার মৃত্যু ঘটছে?হায় দীর্ঘ জীবন!হায় দীর্ঘশ্বাস!
যে দিন গেছে,তাই- ই কেবল ফিরে ফিরে আসে।
আর যন্ত্রণা কাতর হৃদয়ে রক্ত ক্ষরণ ঘটে।
কি করেছি আমি?
কি অন্যায় ছিলো আমার?
নারী দেহের ভাঁজ গুলোতে পুরুষের নির্মম চাহনী।
পাশবিক অত্যাচারের ইতিহাসে বিপর্যস্ত আমি,আজ বেলকনিকে মনে করি কারাগার।
ব্যস্ত রাস্তাকে মনে হয় ধূ ধূ শ্মশান ঘাট।
আর পুরুষ গুলোকে মনে হয় নেকড়ে হায়না।
আজ আমি চিৎকার করে বলতে চাই,আমি মানুষ,মাংসপিন্ড নই।
আমি মানুষ,ভোগ্য বস্তু নই।
আমি মানুষ,বলির পাঠা নই।
আমি মানুষ…আমি মানুষ।

লেখকঃ সালমা তালুকদার, কবি ও সাহিত্যিক।

আরও পড়ুন