নীরবে কাঁদে

 

 

অনেকদিন ধরে লেখা হয়না কবিতা,

অযত্ন অবহেলায় পড়ে আছে খাতা

টেবিলের এককোণে —- আর

কলমটির কোন হদিসই নেই।

 

মনের কোণে উঁকিঝুঁকি মারে,

অস্ফুট গোলাপ কুঁড়ির মতো —- আবার

ঝরেও যায় অচিরেই।

প্রয়োজনীয় জলসিঞ্চনের অভাবে।

 

কখনো বা নীরবে নিভৃত ঘরে —-

নিশিরাতে পতিহারা অবলা নারীর মতো

ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদে।

কেউ দ্যাখেনা সেই কান্না,

শুধু আমি দেখি গোপনে,অশ্রু নিস্রবে।

 

কখনো দেখি দূর সীমানায়

কোন এক ষোড়শীর মতো যৌবনা বেশে,

হাতছানি দেয়, ডাকে আমায়—

নীরব কেনো কবি ? আমি তোমারি কবিতা,

পরক্ষণে আবার স্বপ্নে বিভোর

ঘুম টুটে যায় —

দেখিনা যে আর উদাসী মনের কিনারায়।

 

পার্থিব জীবনের তপ্ত মরুভূমির বুকে,

একলা চলার পথে,

দূরদিগন্তে মরীচিকা হয়ে দেখা দেয়,

ভুল ভাঙে, দেখি শূন্য সবই,

হয়তো চলেছে ছুটে সময়ের দ্বৈরথে।

 

খোশবুর আলী – কবিও উপন্যাসীক 

আরও পড়ুন