বনের পাশেই থাকি

তারিকুল ইসলাম সুমনঃ

বনটা আমার সবুজ ঘেরা বনের পাশেই থাকি
বন যে আমি ভালোবাসি তাইতো ছবি আঁকি।
চিত্রা হরিণ মায়া হরিণ বন্ধু ভীষণ ওরা
ওটাও প্রিয় জন্তু আমার হলদে-কালোয় ডোরা।

বেসাস বানর ঝুলতে থাকে কেওড়া গাছের ডালে
ঘোলা জলে কুমির ভাসে সব মোহনার খালে।
বনবিড়ালে সুযোগ বুঝে দেয় শিকারে হাঁনা,
নলখাগড়ার ঝাড়ে খেলে বনশূকরের ছানা।

কেউটে সাপে ডিমের খোঁজে পাখির বাসায় চলে
জোয়ার হলে লাল কাঁকড়ায় ডাঙ্গায় ফেরে দলে।
উদ্বিড়ালে মুখটা উচায় হরগোজারই ফাঁকে
গাছের ডালে মৌমাছি দল জমায় মধু চাকে।

গাছে গাছে নানান পাখি সারাটা দিন ডাকে
সারস শালিক ফিঙ্গে পেঁচা উড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে।
মদনটাকের শরীর বড় ঝিমায় বসে গাছে
মাছরাঙা অনেক জাতের পেটটা থাকে মাছে।

মাছের কথা বলব কিআর হরেক মাছে খালে
টেংরা বেলে ভেটকি ওঠে ধরলে পাতা জালে।
চিংড়ি আছে কয়েক জাতের ভিন্ন সবার স্বাদে
ঢগরা জাবা স্বাদে ভীষণ মনটা আজো কাঁদে।
r
গেওয়া গরান ধুঁন্দল গাছে বাতাস পেয়ে দোলে,
গোলের ঝাড়ে সুস্বাদু ফল দিনকে দিনে ফোলে।
কাঁকড়া সিঁদুর পশুর পাতা একটু থাকে পুরু
বেত হেঁতালে উঁচু পেলে বাড়তে করে শুরু।

ভালোবাসার বনটা আমার ভীষণ ভালো মন
নানান ঝড়ে আগলে আমায় বাঁচায় সারাক্ষণ।

লেখকঃ কবি।

আরও পড়ুন